ঢাকা, রোববার 13 May 2018, ৩০ বৈশাখ ১৪২৫, ২৬ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

সরকারি চাকরির টাইম স্কেল ও পেনশন কর্তনের প্রতিবাদ

স্টাফ রিপোর্টার : হাজার হাজার সরকারি কর্মচারির চাকরির টাইম স্কেল ও পেনশন কর্তনের বিতর্কিত চিঠি বাতিলসহ দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানিয়েছে গভর্নমেন্ট এমপ্লয়িজ ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন বাংলাদেশ।
গতকাল শনিবার দুপুরে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত এক মানববন্ধনে এই দাবি জানানো হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন, মানববন্ধন বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়ক জাকির হোসেন, এসোসিয়েশনের সভাপতি আফসার আলী, মহাসচিব নজরুল ইসলাম প্রমুখ।
মানববন্ধন বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়ক জাকির হোসেন বলেন, স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালের ৯ এপ্রিল থেকে ১৯৯৭ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত উন্নয়ন প্রকল্প থেকে রাজস্ব খাতে নিয়মিতকৃত প্রায় লক্ষাধিক কর্মকর্তা-কর্মচারির চাকরিকাল গণনাসহ পেনশন উত্তোলনে গভীর সংকট দেখা দিয়েছে। এ সংকট থেকে উত্তরণের জন্য প্রধানমন্ত্রী ব্যতীত অন্য কোনো বিকল্প নেই।
সংগঠনের নেতারা জানান যে, বর্তমান ঘোষিত পে-স্কেলের গড় প্রবৃদ্ধি ৯৬.৫৬ ভাগ হলেও টাইম স্কেল ও সিলেকশন গ্রেড সুবিধাপ্রাপ্ত ও সুবিধাবঞ্চিত একই পদধারীদের মধ্যে অপূরণীয় বেতন বৈষম্য সৃষ্টি করবে। ইতোমধ্যে যারা টাইম স্কেল ও সিলেকশন গ্রেডপ্রাপ্ত হয়ে ২/৩টি উচ্চতর ধাপে উন্নীত হয়েছেন, তাদের স্ব স্ব গ্রেড প্রত্যাবর্তন করতে হবে।
এসোসিয়েশনের নেতারা জানায়, ১৯৭২ থেকে ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত ২৫ বছরে ২ লাখ কর্মচারী বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প থেকে রাজস্ব খাতে স্থানান্তরিত হয়ে এসেছেন। অর্থ মন্ত্রণালয় ২০০৮ ও ২০১১ সালে বলেছে, রাজস্ব খাতে স্থানান্তরিত পদের পদধারীদের প্রকল্পের চাকরিকাল গণনা করে সিলেকশন গ্রেড ও টাইম স্কেল দেওয়ার অবকাশ নেই।
নতুন আইনে সরকার তাঁদের রাজস্ব খাতে স্থানান্তর করার কথা বললেও উন্নয়ন প্রকল্পে থাকা অবস্থায় তাঁদের চাকরির সময় গণনা করতে রাজি নয়। আইনটির খসড়া তৈরির পর জনপ্রশাসন, আইন ও অর্থ মন্ত্রণালয় এটা পর্যালোচনা করছে। এতে করে প্রায় ২ লাখ সরকারি কর্মচারি ক্ষতিগ্রস্ত হবে। সরকারের এই প্রদক্ষেপ বাতিলের দাবি করছি। 
চিঠির খসড়ায় বলা আছে, সরকারি কোটা অনুসরণ করে এ আইনের আওতায় উন্নয়ন প্রকল্পের কর্মচারীকে রাজস্ব পদে নিয়োগ দেওয়া যাবে। এতে বলা হয়েছে, প্রকল্প থেকে রাজস্ব পদে নিয়োগ দেওয়ার ক্ষেত্রে কর্মচারীর বয়স শিথিল করা যাবে। জ্যেষ্ঠতা নির্ধারণের ক্ষেত্রে চাকরি রাজস্ব বাজেটের পদে যোগদানের তারিখ থেকে কার্যকর হবে। নিয়মিত ও উন্নয়ন প্রকল্প থেকে রাজস্বে নিয়োগ পাওয়া কর্মচারীরা একই তারিখে যোগ দিলে নিয়মিত যোগদানকারী জ্যেষ্ঠতার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাবেন।
সরকারি কর্মকমিশনের (পিএসসি) আওতাভুক্ত রাজস্ব বাজেটের পদে নিয়োগে কমিশনের সুপারিশ লাগবে। পিএসসির আওতাবহির্ভূত পদে নিয়োগের ক্ষেত্রে পদোন্নতি বা বাছাই কমিটির সুপারিশে নিয়োগ করতে হবে। উন্নয়ন প্রকল্পের কর্মচারীর পদ ও পদমর্যাদা রাজস্ব বাজেটের শূন্য পদের সঙ্গে সংগতিপূর্ণ না হলে তিনি রাজস্ব খাতে নিয়োগ পাবেন না।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ