ঢাকা, রোববার 13 May 2018, ৩০ বৈশাখ ১৪২৫, ২৬ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

শ্রমিক কল্যাণের সাধারণ সম্পাদকসহ ৪০ জন গ্রেফতার

বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক হারুন অর রশিদ খান, সাংগঠনিক সম্পাদক আলমগীর হাসান রাজু ও অফিস সেক্রেটারি আবুল হাশেমসহ ৪০ জন শ্রমিক প্রতিনিধিকে অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করার ঘটনায় গতকাল শনিবার রাজধানীতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশন ঢাকা মহানগরী উত্তর। বিক্ষোভ মিছিলে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় সহ সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান ভূঁইয়া, মহানগরী সেক্রেটারি মোঃ মহিববুল্লাহ, এইচ এম আতিক, নুরুল আমিন, মোস্তফা আল মোস্তাকিম আনিছ, মডেল থানা সভাপতি মাহমুদুর রহমান, বিমান বন্দর সভাপতি ফজলুল হক, দক্ষিণ খানের আশরাফুল আলম, তুরাগ উত্তর আঃ হালিম প্রমুখ।
বিক্ষোভ মিছিল থেকে ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদকসহ গ্রেফতারকৃত সকল নেতা-কর্মীদের অবিলম্বে নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করা হয়।
উল্লেখ্য, গতকাল মিরপুরের শেওড়া পাড়া থেকে বাংলাদেশ রিকশা শ্রমিক ঐক্য ফেডারেশনের সম্মেলন থেকে পুলিশ অন্যায়ভাবে তাদেরকে গ্রেফতার করেছে। ফেডারেশনের পক্ষ থেকে এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয়েছে।
ডা. শফিকুর রহমানের নিন্দা : রাজধানী ঢাকার মীরপুরে বাংলাদেশ রিকশা শ্রমিক ঐক্য ফেডারেশনের বার্ষিক সম্মেলন থেকে বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক হারুনুর রশিদ, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আলমগীর হাসান রাজু, কেন্দ্রীয় অফিস সম্পাদক আবুল হাসেমসহ ৪০ জন নেতা-কর্মীকে অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমান গতকাল শনিবার দেয়া বিবৃতিতে বলেন, শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশন ও বাংলাদেশ রিকশা শ্রমিক ঐক্য ফেডারেশন নামক সংগঠন দুইটি নিবন্ধনকৃত শ্রমিক সংগঠন। শ্রমিকদের কল্যাণের জন্যই এই সংগঠন দুইটি নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখজনক হল বাংলাদেশ রিকশা শ্রমিক ঐক্য ফেডারেশনের বার্ষিক সম্মেলন থেকে কেন্দ্রীয় এবং স্থানীয় নেতা-কর্মীদের গ্রেফতার করে সরকার আবারও প্রমাণ করল যে, তারা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে না। জনগণের কাছে জবাবদিহিতার কোন চিন্তাও তাদের মাথায় নেই। জনবিচ্ছিন্ন এ সরকার শ্রমিক নেতৃবৃন্দ ও কর্মীদেরকে গ্রেফতার করে শ্রমিকদের অধিকার নস্যাতের ব্যবস্থা করছে।
তিনি সরকারের এহেন স্বৈরাচারী আচরণের তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করেন এবং অবিলম্বে গ্রেফতারকৃত শ্রমিক নেতা ও কর্মীদেরকে বিনা শর্তে মুক্তি দেয়ার জন্য জোর দাবি জানান। অন্যথায় শ্রমিক সমাজ জনগণকে সাথে নিয়ে সরকারের এহেন জুলুমের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলবে, ইনশাআল্লাহ।
অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ারের নিন্দা : শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেনের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক হারুন অর রশিদ খান,সাংগঠনিক সম্পাদক আলমগীর হাসান রাজু ও অফিস সেক্রেটারি আবুল হাশেমসহ ৪০ জন শ্রমিক প্রতিনিধিকে অন্যায়ভাবে গ্রেফতার  করার ঘটনার তীব্র নিন্দা এবং প্রতিবাদ জানিয়েছেন শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাবেক এমপি অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ার।
অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ার এক বিবৃতিতে বলেন, রাজনৈতিকভাবে হয়রানি করার হীন উদ্দেশ্যেই সাধারণ সম্পাদকসহ ৪০ জন শ্রমিক সংগঠনের প্রতিনিধিকে গতকাল মিরপুরের শেওড়া পাড়া থেকে পুলিশ অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করেছে। তিনি এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান।
তিনি বলেন, বাংলাদেশ রিকশা শ্রমিক ঐক্য ফেডারেশন একটি জাতীয় রেজিস্টারভুক্ত ফেডারেশন। এই ফেডারেশন কখনই কোন রাষ্ট্র বিরোধী কার্যক্রম বা উসকানিমূলক কর্মকান্ড পরিচালনা করে না।  গ্রেফতারকৃত শ্রমিক নেতারা সবাই রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার। তাদের বিরুদ্ধে কোন সুনির্দিষ্ট অভিযোগ নেই। তিনি বলেন,ফেডারেশনের বার্ষিক সম্মেলন থেকে তাদের গ্রেফতার খুবই ন্যাক্কারজনক ঘটনা। তাদের গ্রেফতার ট্রেড ইউনিয়ন ও  শ্রমিকদের স্বার্থবিরোধী কাজ এবং শ্রমিকদের বিরুদ্ধে সরকারের অবস্থান। তিনি আরো বলেন, কর্তৃত্ববাদী সরকার ক্ষমতাকে দীর্ঘায়িত করার জন্যই ইসলামী আন্দোলনসহ ২০ দলীয় জোটের নেতা-কর্মীদের অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করছে। অতীতে কোন সরকারই জুলুম-নির্যাতন করে ক্ষমতায় টিকে থাকতে পারেনি। বর্তমান সরকারও জোর করে ক্ষমতায় টিকে থাকতে পারবে না, ইনশাআল্লাহ। ফ্যাসিবাদী সরকারের জুলুম-নির্যাতনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে সোচ্চার হওয়ার জন্য তিনি দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানান। সাধারণ সম্পাদকসহ গ্রেফতারকৃত সকল নেতা-কর্মীদের অবিলম্বে নিঃশর্তভাবে মুক্তি দেয়ার জন্য তিনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ