ঢাকা, রোববার 13 May 2018, ৩০ বৈশাখ ১৪২৫, ২৬ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

চ.বি. ক্যাম্পাসে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় বসবাসরতদের নিরাপদ স্থানে স্থানান্তরের আহবান

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে পাহাড়ের পাদদেশে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় বসবাসরতদের পরিবার-পরিজনসহ নিরাপদ স্থানে স্থানান্তর করার লক্ষ্যে সরকারি নির্দেশনার আলোকে ৩ মে ২০১৮ তারিখ বিকেল ২.৩০ টায় চ.বি. উপাচার্য দপ্তরের সভা কক্ষে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সাথে হাটহাজারী উপজেলা প্রশাসন এবং চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় অফিসার সমিতি, কর্মচারী সমিতি ও কর্মচারী ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দের এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী। সভায় চ.বি. মাননীয় উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. শিরীণ আখতার, স্বনির্মিত ঝুঁিকপূর্ণ ঘর চিহ্নিতকরণ কমিটির আহবায়ক বিশ্ববিদ্যালয়ের বলিষ্ঠ শিক্ষক প্রফেসর ড. অরুণ কুমার দেব, প্রক্টর জনাব মোহাম্মদ আলী আজগর চৌধুরী, রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) জনাব কে এম নুর আহমদ, হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জনাব আখতার উন নেছা শিউলী, চ.বি. এস্টেট শাখার প্রশাসক প্রফেসর ড. মো. তৌহিদ হোসেন, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) জনাব এস.আর. আরমান শাকিল, নিরাপত্তা প্রধান জনাব মো. বজল হক, এস্টেট শাখার ডেপুটি রেজিস্ট্রার জনাব মাহবুব হারুন চৌধুরী ও ডেপুটি রেজিস্ট্রার জনাব আবদুল ছবুর এবং স্বনির্মিত ঘরে বসবাসরতদের প্রতিনিধিবৃন্দ যথাক্রমে চ.বি. অফিসার সমিতির সাধারণ সম্পাদক জনাব মো. শাহ আলম, কর্মচারী সমিতির সভাপতি জনাব আনোয়ার হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক জনাব নুরুল ইসলাম (শহীদ) এবং চ.বি. কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি জনাব জোস মোহাম্মদ ও সাধারণ সম্পাদক জনাব নুরুল আবছার উপস্থিত ছিলেন। 
উপাচার্য সভার শুরুতে উপস্থিত সকলকে স্বাগত ও আন্তরিক শুভেচ্ছা জানান। তিনি বলেন, দীর্ঘদিন যাবৎ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক কর্মকর্তা-কর্মচারী ক্যাম্পাসের ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় স্বনির্মিত ঘরে বসবাস করে আসছে। ইতোপূর্বে কোনো প্রশাসন তাদের জান-মালের নিরাপত্তার বিষয়টি তেমন গুরুত্ব না দেয়ায় বসবাসরতরা বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন দুর্ঘটনার শিকার হয়েছে। তাদের এ অজ্ঞতা ও অসচেতনতার কারণে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকেও বিভিন্ন সময়ে বিড়ম্বনা পোহাতে হয়েছে। প্রসঙ্গক্রমে মাননীয় উপাচার্য বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু তনয়া মানবতার জননী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরতœ শেখ হাসিনা দেশে বিভিন্ন দুর্যোগসহ ভূমি ধ্বসে জীবন হানির আশংকাগ্রস্তদের নিরাপদ জায়গায়  স্থানান্তরের বিষয়টি বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে তাদেরকে নিরাপদ জায়গায় স্থানান্তর করার কঠোর নির্দেশনা প্রদান করেছেন। এ নির্দেশনার আলোকে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় স্বনির্মিত ঘরে বসবাসরতদের চিহ্নিত করার লক্ষ্যে ইতোপূর্বে একটি শক্তিশালী কমিটি গঠন করা হয়েছে। ইতোমধ্যে উক্ত কমিটি সরেজমিন পরিদর্শনের আলোকে প্রাথমিকভাবে ৭৬টি ঘর ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে। তন্মধ্যে কমিটি ২৬টি ঘর অতি ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছেন। কমিটির উক্ত রিপোর্ট এবং সরকারি নির্দেশনার আলোকে অতি ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থানে বসবাসরতদের আগামী ১৫ মে ২০১৮ তারিখের মধ্যে তাঁদের পছন্দমত এবং বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কর্তৃক নির্ধারিত নিরাপদ স্থানে স্থানান্তর হওয়ার নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে। উপাচার্য আরও বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের প্রতিটি মানুষের জান-মাল সুরক্ষায় বর্তমান প্রশাসন অত্যন্ত আন্তরিক এবং সতর্কতার সাথে কাজ করে যাচ্ছে। সুতরাং উক্ত তারিখের মধ্যে তাঁরা নিজেদের জান-মাল সুরক্ষায় নিরাপদ স্থানে চলে যাবেন এটাই প্রত্যাশিত। সরকারি নির্দেশনা ও চ.বি. প্রশাসনের এ প্রচেষ্টা যাতে কোনভাবে বিঘিœত না হয় সেজন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন চ.বি. অফিসার সমিতি, কর্মচারী সমিতি, কর্মচারী ইউনিয়নসহ বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারে সকলের আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করছে। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ