ঢাকা, মঙ্গলবার 15 May 2018, ১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ২৮ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

এপ্রিল মাসে রাজনৈতিক সন্ত্রাস

মুহাম্মদ ওয়াছিয়ার রহমান : রাজনৈতিক মাঠে এপ্রিল মাস ছিল কারাগারে আটক বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার অসুস্থতা, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপার্সন তারেক রহমানের পাসপোর্ট ও নাগরিকত্ব ইস্যু নিয়ে সরগরম। তবে রাজনৈতিক ময়দানে লক্ষনীয় ছিল বিএনপি ইতিবাচক রাজনীতির স্রোতধারা। বিএনপি চেয়ারপার্সনের মতো বিশাল প্রভাবশালী ব্যক্তির কারাদন্ড, কারাগারে যথাযথ চিকিৎসার অভাব, তারেক রহমানের পাসপোর্ট ইস্যুতে তারা কোন জ্বালাও-পোড়াও আন্দোলন ও হরতাল-অবরোধ কর্মসূচী থেকে বিরত থেকে বিরল দৃষ্টান্ত সৃষ্টি করে। বাংলাদেশের রাজনৈতিক ইতিহাসে এটা সত্যিই নজিরবিহীন। তবে সরকার এটাকে উদারতার দৃষ্টিতে না দেখে তাদের দুর্বলতা হিসাবে মূল্যায়ণ করে থাকে। এপ্রিল মাসে ১২১টি রাজনৈতিক ঘটনার তথ্যে নিহতের সংখ্যা ১২। এই ১৫ জনের ৫ জনই খুন হয় আওয়ামী লীগের হাতে, ছাত্রলীগের হাতে ২, যুবলীগের হাতে ২, ইউপিডিএফ’র হাতে ২ ও জেএসএস’র হাতে ১ জন। এ মাসে রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টতায় প্রাপ্ত তথ্যে আহত হয় ২২৭ জন এবং গ্রেফতার অনেক বেশী হলেও ৪৭৪ জনের খবর পাওয়া গেছে, বাকীদের তথ্য প্রকাশিত হয়নি। গ্রেফতারকৃতরা অধিকাংশই বিরোধী রাজনৈতিক দলের নেতা-কর্মী এবং দন্ডপ্রাপ্ত ৫১ জন, এই ৫১ জনের আওয়ামী লীগের ২, ছাত্রলীগের ২৯, যুব লীগের ১, যুব মহিলা লীগের ৩, জেএমবির ১৫ ও তরিকত ফেডারেশনের ১ জন।
এপ্রিল মাসে প্রাপ্ত তথ্যে নিহত যারা- (১) খুলনার তেরখাদায় ইউপি নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে গোলাম মাওলা নামে এক নেতা নিহত, (২) ফরিদপুরের সদরপুরে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে আব্দুল মান্নান সিকদার নিহত, (৩) পটুয়াখালীর বাউফলে আওয়ামী লীগের দলীয় কোন্দলে ইউপি সদস্য রফিকুল ইসলাম হাওলাদার নিহত, (৪) নড়াইলের লোহাগড়ায় আওয়ামী লীগের দলীয় কোন্দল ও সংঘর্ষে আবুল খায়ের মৃধা নামে একজন নিহত ও (৫) ঢাকার বাড্ডায় আওয়ামী লীগের দলীয় কোন্দলে কামরুজ্জামান দুখু নিহত হয়, (৬) পাবনার ঈশ্বরদীতে পাকশী ইউনিয়নের রূপপুর পাকার মোড়ে ছাত্রলীগের দলীয় কোন্দলে ছাত্রলীগ নেতা সদরুল আলম পিন্টু গুলিবিদ্ধ হয়ে রাজশাহী মেডিকেল কলেজে মারা যায় ও (৭) চট্টগ্রামের চকবাজারে ক্যাবল ব্যবসা নিয়ে ছাত্রলীগ-যুবলীগের মধ্যে সংঘর্ষে যুবলীগ নেতা ফরিদুল ইসলাম নিহত হয়, (৮) নোয়াখালীর হাতিয়ায় যুবলীগের গুলিতে নীরব উদ্দিন নামে দশ বছরের এক শিশু নিহত ও (৯) ফেনীর দাগনভূঁয়ায় শারমিন হত্যায় যুবলীগ নেতা জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়, (১০) রাঙ্গামাটির নানিয়ারচর থানায় ইউপিডিএফ-এর হাতে জেএসএস নেতা সাধন চাকমা খুন ও (১১) খাগড়াছড়ি সদরে ইউপিডিএফ নেতা সূর্য বিকাশ চাকমা দলীয় প্রতিপক্ষ গ্রুপের হাতে খুন এবং (১২) রাঙ্গামাটি নানিয়ারচর থানায় জেএসএস-এর হাতে ইউপিডিএফ নেতা জনি চাকমা খুন হয়।
আওয়ামী লীগ ঃ ১ এপ্রিল নরসিংদীর শিবপুরে দুলালপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী মরিয়ম বেগম মুক্তার পরাজয়ের পর উপজেলা আওয়ামী লীগ উপজেলা নির্বাহী অফিসার শীলু রায় ও থানার ওসি আবুল কালাম আজাদকে দলীয় বর্ধিত সভায় ২৪ ঘন্টার মধ্যে প্রত্যাহারের আল্টিমেটাম দেয়। উল্লেখ্য, গত ২৭ মার্চ ওই ইউপি নির্বাচন হয়। ২ এপ্রিল শরীয়তপুরের জাজিরা টিএন্ডটি মোড়ে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সফর উপলক্ষে তাকে অর্ভ্যথনা জানাতে যাওয়ার পথে এই সংঘর্ষ হয়। আওয়ামী লীগ নেতা বি.এম মোজাম্মেল হক এমপি গ্রুপ এবং জাজিরা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও অপর আওয়ামী লীগ নেতা মোবারক আলী সিকদার গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে নারী পুলিশ সদস্যা মোসলেহা আক্তার, জুলহাস সারেং, সুমন খান, কবির হাওলাদার, আব্দুল করীম মাঝি ও হৃদয়সহ ১৫ জন আহত হয়। ৩ এপ্রিল মাদারীপুর সদরের কালিকাপুর এলাকায় আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে ২৫টি বাড়ীতে পেট্রল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। আওয়ামী লীগ নেতা ওবায়দুর রহমান খান কালু ও জেলা আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক পাভেলুর রহমান খান শফিক গ্রুপের মধ্যে এই সংঘর্ষের সময় ইদ্রিস খান, মোসলেম খান, খোকন খান, তেলাম খান, ইউনুস খান, বেলায়েত খান, সেলিম আকন, আব্দুল জব্বার আকন, হাবিব আকন, আতাবার আকন, শাহজান আকন, সোবহান মোল্লা, আব্দুল খালেক মোল্লা ও বাদল চোকদারের ঘরসহ ২৫টি ঘর পুড়িয়ে দেয়।
৭ এপ্রিল নরসিংদীর রায়পুরায় পাড়াতলী বালুয়াকান্দি বাজারে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের দ্বন্দ্বে প্রতিপক্ষের উপর হামলা হয়। সাবেক মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ নেতা রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজু এবং অপর আওয়ামী লীগ নেতা ব্যারিষ্টার তৌফিকুর রহমানের সমর্থকদের মধ্যে দ্বন্দ্বে এই হামলা হয়। ব্যারিষ্টার তৌফিকুর রহমান গ্রুপের হামলায় পাড়াতলী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম মজনু ভেন্ডার, ইউনিয়ন যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম ও যুবলীগ নেতা শাহ আলমসহ ৫ জন আহত হয়। ৮ এপ্রিল ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় আকসিনা বাজারে আওযামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে ১০ জন আহতসহ আটক ৩। কসবা পশ্চিম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের আজাদ সরকার-গোলাম কিবরিয়া মিলন গ্রুপ আবু ইউসুফ ভূঁইয়া-খন্দকার আতাউর রহমান গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে পুলিশ ও চেয়ারম্যান মানিক মিয়াসহ অন্যান্যরা আহত হয়। পুলিশ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক খন্দকার আতাউর রহমান, বাচ্চু মিয়া ও বশির মিয়াকে আটক করে। ৯ এপ্রিল খুলনার তেরখাদায় আটালিয়া গ্রামের খামার বিল এলাকায় সদর ইউনিয়নে নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগ দু’গ্রুপের সংঘর্ষে ৫নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি গোলাম মওলা নামে এক ইউপি মেম্বার নিহত হয়। আওয়ামী লীগ নেতা গোলাম মওলা ও কৃষক লীগ নেতা ঝিলু মুন্সী গ্রুপের মধ্যে এই সংঘর্ষে সোহেল শেখ, সাবিনা ইয়াসমিন ও খালিদ শেখসহ ২০ জন আহত হয়। পিরোজপুরের নাজিরপুরে মহিলা পুলিশকে ইভটিজিং করার দায়ে কলারদোয়ানিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ প্রচার সম্পাদক হাসানাত উল্লাহ ডলারকে ৬ মাসের কারাদন্ড দেয় ভ্রাম্যমান আদালত। ডলার নাজিরপুর থানার ওই মহিলা পুলিশসহ ৪ মহিলা পুলিশকে মোবাইল কল ও এসএমএস দিয়ে বিভিন্ন সময়ে উত্যক্ত করে। ১০ এপ্রিল সিরাজগঞ্জের তাড়াশে বারুহাস ইউনিয়নে ১০ টাকা কেজি ফেয়ার প্রাইজের চাল বিতরণের সময় ওজনে কম দেয়ায় ডিলার ও আওয়ামী লীগ নেতা আলতাফ হোসেনকে ২০ হাজার টাকা অর্থদন্ড দেয় ভ্রাম্যমান আদালত।
১১ এপ্রিল ফেনীর ফুলগাজীতে সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগ যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক নূরুল ইসলাম ইউপি কার্যালয়ে জনৈকা বিচার প্রার্থী এক মহিলাকে ধর্ষণ করে। বিজয়পুর গ্রামের ওই মহিলা একটি সালিশের প্রয়োজনে চেয়ারম্যানের দারস্ত হয়। চেয়ারম্যান মহিলার সাথে থাকা তার ভাতিজাকে কৌশলে দোকানে পাঠিয়ে ইউপি ভবনের তৃতীয় তলায় দরজা আটকিয়ে জোর করে ধর্ষণ করে। মহিলার ভাতিজা এসে রুম আটকানো এবং ভিতরে ধস্তাধস্তির শব্দ শুনে শোরগোল করলে লোকজন এসে পড়ে এবং চেয়ারম্যান দরজা খুলে পালায়। ১৫ এপ্রিল ফরিদপুরের সদরপুরে কৃষ্ণপুর বাজারে ইজারাকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে আব্দুল মান্নান সিকদার নিহত এবং পুলিশসহ ৯ জন আহত হয়। আওয়ামী লীগ নেতা বেলাল হোসেন ফকির এবং আক্তারুজ্জামান তিতাস গ্রুপের মধ্যে এই সংঘর্ষে ২০টি বাড়ী-ঘরে হামলা ও ভাংচুর করা হয়। ১৬ এপ্রিল নড়াইলের নড়াগাতিতে পহরডাঙ্গা হাটের ইজারা নিয়ে আওযামী লীগের দু’গ্রুপের মধ্যে এক সংঘর্ষ হয়। আওয়ামী লীগ নেতা হাফিজুর রহমান ও যুবলীগ নেতা সেলিম সিকদার গ্রুপের মধ্যে এই সংঘর্ষে শওকত মল্লিক, আরোজ শেখ, রায়হান শেখ, হাসমত শেখ, মিরাজ শেখ, বাবুল শেখ, নাহিদ সিকদার, মুরসালিন সিকদার, পলাশ সিকদার, বরকত সিকদার ও খোকা সিকদারসহ ১৫ জন আহত হয়। ১৭ এপ্রিল শেরপুর-১ আসনের এমপি, আওয়ামী লীগ নেতা ও জাতীয় সংসদের হুইপ আতিউর রহমান আতিক, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান এমপি এবং ঝালকাঠির এমপি ও আওয়ামী লীগ নেতা বি.এইচ হারুনকে দুর্নীতির অভিযোগ দুদক তলব করে জিজ্ঞাসাবাদ করে। ১৮ এপ্রিল যশোরের কেশবপুরে ভান্ডারখোলা বাজারে আওয়ামী লীগ-বিএনপি সংঘর্ষ। আওয়ামী লীগ নেতা ও বর্তমান চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেনের নেতৃত্বে ১৫-২০ জনের হামলায় বিএনপি নেতা কে.এম খলিলুর রহমানের ভাই লিয়াকত আলীসহ ১৫ জন আহত হয়। শরীয়তপুর সদরের ডোমসার বাজারে আওয়ামী লীগ ডোমসার ইউনিয়ন সাধারণ সম্পাদক ও ডিলার মোনায়েম খান ১০ টাকা কেজির চাল কালবাজারে বিক্রি করে ৩৪ টাকা কেজি দরে। ইউএনও জিয়াউর রহমান ও উপজেলা খাদ্য পরিদর্শক মিজানুর রহমান তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা পায়। 
২০ এপ্রিল ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগরে জাতীয় পার্টির জনসভায় আওয়ামী লীগ সিঙ্গারবিল ইউনিয়ন সভাপতি আনোয়ার হোসেন মাষ্টার ও তার লোকজন বাধা দেয় বলে জাপা অভিযোগ করে। ২১ এপ্রিল উল্লেখিত জনসভায় বন ও পরিবেশ মন্ত্রী ব্যারিষ্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ প্রধান অতিথি হিসাবে থাকার কথা ছিল। মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় মাদক সেবনের তথ্য উপজেলা আইন শৃংখলা কমিটির সভায় উপস্থাপন করায় গজারিয়া প্রেস ক্লাব সভাপতি ও উপজেলা আইন শৃংখলা কমিটির সদস্য জসিম উদ্দিনের উপর হামলা করে মাদক ব্যবসায়ী ও আওয়ামী লীগ কর্মী আমিনুল ইসলাম সিকদার ও তার সহযোগীরা। আমিনুল ইসলাম তার বাড়ীতে প্রতি বৃহস্পতিবার মাদকের আসর ও নারী নিয়ে অনৈতিক কারবারের আড্ডা বসায়। ২১ এপ্রিল পটুয়াখালীর বাউফলে নওমালা ইউনিয়নের ভাঙ্গাব্রিজ এলাকায় আওয়ামী লীগের দলীয় কোন্দল ও হামলায় ইউনিয়ন শ্রমিক লীগ একাংশের সহ-সভাপতি এবং ইউপি সদস্য রফিকুল ইসলাম হাওলাদার নিহত হয়। উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ইউপি নির্বাচনের পর এই বিরোধ সৃষ্টি হয়। জেলা আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান শাহাজাদা হাওলাদার এবং নওমালা ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক কামাল হোসেন বিশ্বাস গ্রুপের মধ্যে দ্বন্দ্বে কামাল গ্রুপের যুবলীগের আলমগীর হোসেন ও কবির মৃধার নেতৃত্বে দেড় শাতাধিক লোকের হামলায় শাহাজাদা হাওলাদার, শামীম, হাফিজুর ও সেলিম সরদারসহ ১৫ জন আহত হয়। পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত মর্মে ৭ জনকে আটক করে। নড়াইলের লোহাগড়ায় আওয়ামী লীগের দলীয় কোন্দল ও সংঘর্ষে আবুল খায়ের মৃধা নামে একজন নিহত এবং অপর ৬ জন আহত হয়। মৃধা গ্রুপ ও ঠাকুর গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে পিংকী খানম, লোহাগড়া সরকারী কলেজ ছাত্রলীগ যুগ্ম-সম্পাদক মুনতাসির মাহমুদ নিয়ন, উপজেলা ছাত্রলীগ সদস্য সজীব শেখ, লিটু শেখ, আকরাম সরদার ও আবুল খায়ের আহত হয়।
২২ এপ্রিল ঢাকার বাড্ডায় আওয়ামী লীগের দলীয় কোন্দলে কামরুজ্জামান দুখু নামে একজন নিহত হয়। আওয়ামী লীগ নেতা এ.কে.এম রহমত উল্লাহ এমপি ও বাড্ডা থানা আওযামী লীগ সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম গ্রুপের মধ্যে এই সংঘর্ষে নাজির হোসেন, বাদল মিয়া, তাজ মোহাম্মদ, শরীফ হোসেন, আজিম ও আব্দুল করীমসহ ১০ জন আহত হয়। ২৫ এপ্রিল নোয়াখালীর হাতিয়ার চেয়ারম্যান ঘাটে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ। আওয়ামী লীগ নেতা মোহাম্মদ আলী ও অপর নেতা মাহমুদ আলী রাতুল গ্রুপের মধ্যে এই সংঘর্ষে উভয় পক্ষে ১৫ জন আহত হয়। সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি পিংকী খান দুদকের কর ফাঁকির মামলায় আদালতে হাজির হলে আদালত তার জামিন নামঞ্জুর করে তাকে জেল হাজতে পাঠায়। নরসিংদীর মধাবদীর মহিষাশুড়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী এনামুল হক শাহীনের লোকজনের বিরুদ্ধে ব্যালট ছিনতাই, বোমাবাজী ও কেন্দ্র দখলের অভিযোগ এনে প্রতিদ্বন্দ্বী ৩ প্রার্থী বিএনপির তোফাজ্জেল হোসেন, ইসলামী শামসতন্ত্র আন্দোলনের মুফতি কাওসার আহমেদ ও স্বতন্ত্র প্রার্থী আলমগীর ভূঁইয়া নির্বাচনী ফলাফল প্রত্যাখ্যান করে। যশোরের চৌগাছায় পাশাপোল ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি আবুল কাশেম হত্যা মামলায় সাবেক চেয়ারম্যান ও অপর আওয়ামী লীগ নেতা শাহীনুর রহমান আদালতে হাজির হলে আদালত তার জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে তাকে লে হাজতে পাঠায়। উল্লেখ্য, গত ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৬ আবুল কাশেমের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ২৪ এপ্রিল ব্রাহ্মবাড়িয়ায় আইনমন্ত্রী আনিসুল হক ও তার ব্যক্তিগত সহকারী রাশেদুল কাওছার ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপ্রচার চালানোর অভিযোগে সাবেক এমপি ও জেলা আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি শাহ আলম এবং যুবলীগ কেন্দ্রীয় নেতা শ্যামল কুমার রায়ের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা দায়ের হয়।
২৬ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জে আড়াইহাজারে আওয়ামী লীগ উপজেলা সভাপতি শাহ জালাল মিয়ার বড় ছেলে সুমন ব্যবসায়ী মোঃ সুমনকে মারধর করে। ২৮ এপ্রিল কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে দলীয় কোন্দলে মকবুল ও মিনার মিয়া নামে দুই কর্মীর হাতে হিংগুলা-কনকাপৈত রোডে কনকাপৈত ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক রাসেল মশিউর রহমান মারাত্মক জখম হয়। ২৯ এপ্রিল বরগুনা জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি জুবায়ের আদনান অনিক এক সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেন যে, বরগুনা-১ আসনের এমপি ও জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভুর ছেলে জেলা তরুণ লীগ সভাপতি এবং আওয়ামী লীগের জেলা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক সুনাম দেবনাথ মাদক বিক্রি করে কোটিপতি হয়েছেন। লিখিত বক্তব্যে অনিক বলেন-“বরগুনার তরুণ সমাজ এখন ইতিহাসের ভয়ঙ্করতম সময় পার করছে। এর আগে শুনেছি কাজের বিনিময়ে খাদ্য মানে ‘কাবিখা’, কাজের বিনিময়ে টাকা মানে ‘কাবিটা’। কিন্তু এখন শুনতে হচ্ছে ‘মাবিরা’ অর্থাৎ মাদকের বিনিময়ে রাজনীতি, মাদকের বিনিময়ে এখন অনেক তরুণই মিছিলে যায়। একটি ফেনসিডিল আর দু’টি ইয়াবা ট্যাবলেটের বিনিময়ে অনেক তরুণই এখন ফেসবুকে ফেক আইডি খুলে পক্ষে-বিপক্ষের নেতাদের সম্পর্কে প্রচার ও অপপ্রচার চালায়”। শরীয়তপুরের ভেদেরগঞ্জ বাজারের দুই স্থান থেকে সরকারী ২৬৭ বস্তা চালসহ আওয়ামী লীগ কর্মী ও ব্যবসায়ী আব্দুল আজিজ খান, গিয়াস উদ্দিন হাওলাদার এবং আফজাল বেপারীকে আটক করে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাব্বির আহমেদ ও সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার থান্দার খায়রুল হাসান। ৩০ এপ্রিল টাঙ্গাইলের গোপালপুরে উপজেলা আওয়ামী লীগের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক ও শিমলা ইউনিয়ন ডিলার আবুল হোসেনের গোডাউন থেকে ১০ টাকা কেজির ৯০ বস্তা চাল উদ্ধার করে পুলিশ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ