ঢাকা, বৃহস্পতিবার 17 May 2018, ৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ৩০ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

এপ্রিল মাসে রাজনৈতিক সন্ত্রাস

মুহাম্মদ ওয়াছিয়ার রহমান : [তিন]
২২ এপ্রিল ফেনীর সোনাগাজীতে উপজেলা সমাজ সেবা অফিসার নাছির উদ্দিনকে প্রকাশ্যে লাঞ্ছিত করে ছাত্রলীগ উপজেলা সাধারণ সম্পাদক ইফতেখার হোসেন খন্দকার। একটি শিশুর জন্ম সনদ নেয়াকে কেন্দ্র করে এই ঘটনা ঘটায় ইফতেখার হোসেন। ২৬ এপ্রিল কিশোরগঞ্জের নিকলীতে সরকারী ঘর নির্মান প্রকল্পে টাকা আদায়ের খবর পত্রিকায় প্রকাশ হওয়ায় আলোকিত প্রতিদিনের সাংবাদিক আব্দুর রহমান রিপনকে কুপিয়ে জখম করে উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা নাজিউর রহমান সোহেল ও তার সহযোগীরা। অন্য দিকে একই ঘটনায় নিকলী উপজেলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি শেখ উবায়দুল হক সম্রাটকে ২৭ এপ্রিল সকাল ১০ টায় মোবাইলে মেরে ফেলার হুমকি দেয় ছাত্রলীগ নেতা নাজিউর রহমান সোহেল।
২৭ এপ্রিল চট্টগ্রামের চকবাজার কাপাসখোলা এলাকায় ছাত্রলীগ দু’গ্রুপের মধ্যে গোলাগুলিতে ২ জন আহত হয়। বহিষ্কৃত ছাত্রলীগ নেতা নূরুল আজিম রনি ও চকবাজার থানা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি নূর মোস্তফা টিনু গ্রুপের মধ্যে এই গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। চট্টগ্রামের চকবাজার এলাকায় ডিসি রোডে মুন্সী লাইনে ক্যাবল ব্যবসার নিয়ন্ত্রণ নিয়ে ছাত্রলীগ-যুবলীগের মধ্যে বন্দুক যুদ্ধে বাকালিয়া ওয়ার্ড যুবলীগ সাংগঠনিক সম্পাদক ফরিদুল ইসলাম গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যায়। ছাত্রলীগ নেতা রিয়াজ চৌধূরী রাসেল গুলি করে বলে অভিযোগ। রিয়াজ চৌধূরী রাসেল, মুরাদ, সরোয়ার মজনু ও মাসুদের নেতৃত্বে হামলায় আহত হয় আব্দুর রহমান, বেলাল, জেসমিন আক্তার ও নূর জাহান। ২৯ এপ্রিল ঢাকার সাভারে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারী জিয়াউল হককে পিটিয়ে হল থেকে বের করে দেয় ছাত্রলীগ জাবি সাংগঠনিক সম্পাদক অভিষেক মন্ডল।
যুব লীগ ঃ ২ এপ্রিল নারাযনগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে রেলওয়ের জমি অবৈধ ভাবে দখল করে মার্কেট নির্মান করায় যুবলীগ জামপুর ইউনিয়ন সাধারণ সম্পাদক শামসুল আলম ও তুহীনুর রহমানের বিরুদ্ধে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ জমি উদ্ধারের জন্য থানায় মামলা দায়ের করে। ৩ এপ্রিল চট্টগ্রামের যুবলীগ কর্মী মহিউদ্দিন হত্যা মামলায় দলীয় কর্মী আকবর ইকবাল ও তার গাড়ী চালক জিসানকে ঢাকার খিলক্ষেত থেকে আটক করে পুলিশ। উল্লেখ্য, গত ২৬ মার্চ মহিউদ্দিনকে হত্যা করা হয়। ১০ এপ্রিল হবিগঞ্জের নবীগঞ্জে বড় ভাকৈর (পূর্ব) ইউনিয়নে যুবলীগের কমিটি গঠন নিয়ে দ্বন্দ্বে বাড়ি-ঘরে হামলায় আহত অর্ধশত। হামলায় আহতরা হলো- রাখাল বৈষ্ণব, খোকন মিয়া, সাইকুল ইসলাম, রিপন তালুকদার, মিন্টু চৌধূরী, মিলন হক, সায়েদ মিয়া, তৌফিক মিয়া, দেলোয়ার মিয়া, শাহীনুর মিয়া, এমরান মিয়া, নিখিল দাস, দলদর দাস, রঞ্জিত দাস, মুক্তিজিৎ দাস, নিউটন দাস, অতুল দাস, অধীর দাস, নিখিল দাস, অর্জুন দাস, দুলু দাস, দেবলাল দাস ও ইন্দ্রজিৎ দাসসহ অর্ধশত জন। ১৩ এপ্রিল সুনামগঞ্জ জেলার তাহিরপুরের বাদাঘাট বাজারে বিপক্ষে সাংবাদ প্রচার হওয়ায় দৈনিক যুগান্তরের ষ্টাফ রিপোর্টার হাবিব সরোয়ার আজাদকে অমানুষিক নির্যাতন করে ইয়াবাসহ পুলিশে দেয় উত্তর বড়দল ইউনিয়ন যুবলীগ আহবায়ক মাসুক মিয়া, তার ক্যাডার ফারুক মিয়া, হযরত আলী ও ইকবাল হোসেনসহ ১০-১২ জন। ১৪ এপ্রিল ময়মনসিংহের মুক্তাগাছায় বাস টার্মিনালের দখল, ইজারা ও টোল আদায় নিয়ে যুবলীগ দু’গ্রুপের সংঘর্ষে দলীয় নেতা সাইদুল ইসলাম আহত হওয়া ছাড়াও দোকান-পাট, ইজি বাইক ও মটর সাইকেলে হামলা ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে। উপজেলা যুবলীগ সিনিয়র যুগ্ম-আহবায়ক মাহবুবুল হক মনির ও পৌর যুবলীগ নেতা সাইদুল ইসলাম গ্রুপের মধ্যে এই সংঘর্ষ হয়। চট্টগ্রামের বায়োজিত বোস্তামীতে যুবলীগ দু’গ্রুপের গোলাগুলিতে রনি, মোস্তফা কামাল পাশা, পারভেজ, শহীদুল ইসলাম ও নবী আহত হয়। যুবলীগ সোহেল গ্রুপ ও মোস্তফা কামাল পাশা গ্রুপের মধ্যে এই গোলাগুলি হয়। ১৬ এপ্রিল ঢাকার মুগদায় স্বেচ্ছাসেবক লীগ মুগদা থানা সাধারণ সম্পাদক শামীম আহমেদকে যুবলীগ নেতা বিপ্লবের নেতৃত্বে প্লাবন, হীরা, ফারুক ও আলা উদ্দিনসহ ১০-১২ জনের হামলায় আহত হয়। পরে পুলিশ ওয়ার্ড যুবলীগ সভাপতি বিপ্লব, পলাশ, আনোয়ার, মিঠুন ও প্লাবনকে আটক করে। জামালপুরের সরিষাবাড়ির মহাদান ইউনিয়ন যুবলীগ যুগ্ম-আহবায়ক লাভলু মেম্বার ও তার সহযোগী আব্দুর রাজ্জাককে ১৬ পিস ইয়াবাসহ বিলপাড় বড় পুকুরপাড় এলাকা থেকে আটক করে পুলিশ।
১৬ এপ্রিল নোয়াখালীর হাতিয়া পৌর সভার ৫নং ওয়ার্ডে যুবলীগের গুলিতে নীরব উদ্দিন নামে এক ১০ বছরের শিশু নিহত ও তার বাবা মিরাজ উদ্দিন আহত হয়। নীরবের চাচা রাশেদুল ইসলাম নান্টু দাবী করেন রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারনে এই ঘটনা ঘটানো হয়। ১৭ এপ্রিল ঢাকার আদাবরে মুনসুরাবাদ ঢাল ব্রিজের কাছে যুবলীগের দলীয় কোন্দলে সেলিম আহমেদ জীবনকে কুপিয়ে আহত করে প্রতিপক্ষ পাপ্পু গ্রুপের সুমন ও জুলহাসসহ কয়েকজন। ২০ এপ্রিল রাজশাহী মহানগর যুবলীগ যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক তৌহিদুল হক সুমনকে অসামাজিক কার্যকালাপের অভিযোগে সাময়িক ভাবে বহিস্কার করে সংগঠনটি। ২১ এপ্রিল টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার জালাই গ্রামে ৮ম শ্রেনীর ছাত্রীকে ধর্ষনের অভিযোগ ওঠে যুবলীগ দপ্তিয়র ইউনিয়ন আহবায়ক সাজ্জাদ হোসেনের বিরুদ্ধে। মোবাইল ফোনে রাত ৮ টার সময় ছাত্রীটিকে ডেকে বাঁশ বাগানে নিয়ে হাত পা বেঁধে ধর্ষণ করে সাজ্জাদ হোসেন। ২২ এপ্রিল সিলেট ফেঞ্চুগঞ্জে ঘিলাছড়া ইউনিয়নে ভিজিএফ-এর চাল আনতে গেলে যুবলীগ-স্বেচ্ছাসেবক লীগের হামলায় ১৫ জন আহত হয়। হামলায় আহতরা হলো- সকিনা বেগম, কুটন বিবি, আছিয়া বেগম, জহুরুন বেগম, জয়নু বেগম, ফজলু মিয়া, জোনাব আলী, ফয়সাল আলী, শফিকুল আলী, আব্দুল জব্বার ও আব্দুল মান্নানসহ ১৫ জন। ২৪ এপ্রিল ফেনীর দাগনভূঁয়ার নয়নপুর গ্রামে যুবলীগ নেতা জাহাঙ্গীরের গুলিতে শারমিন নামে এক মহিলা খুন হয়। জাহাঙ্গীরের স্বভাব ভাল না, তিনি পাশের গ্রাম মৌলভীবাজারে এক ধর্ষণের ঘটনায় জরিমানা ও শাস্তি ভোগ করে। ২৭ এপ্রিল ঢাকার বনশ্রী এলাকায় যুবলীগের দলীয় কোন্দল ও মাদক কারবার নিয়ে দ্বন্দ্বে ৯৮নং ওয়ার্ড যুগ্ম-আহবায়ক আশিকুল ইসলাম রিমন আহত হয়। ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলামের নেতৃত্বে ওয়ার্ড যুবলীগের যুগ্ম-আহবায়ক বায়োজিদসহ কয়েকজন হামলায় অংশ নেয়। 
শ্রমিক লীগ ঃ ৩০ এপ্রিল মেয়মনসিংহের গৌরীপুরে বঙ্গবন্ধু চত্ত্বরে মে দিবসের আলোচনা সভায় জাতীয় শ্রমিক লীগ দু’গ্রুপের সংঘর্ষ, দোকানপাটে হামলা, ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ এবং অনুষ্ঠানটি পন্ড হয়ে যায়। শওমিক লীগ নেতা বেলাল হোসেন ও আব্দুস সামাদ গ্রুপের মধ্যে দ্বন্দ্বে এই ঘটনা ঘটে।
যুব মহিলা লীগ ঃ ৫ এপ্রিল খুলনা সিএমএম আদালতে ৩৫৬৯১নং জাল ওকালতনামা ও জাল ষ্ট্যাম্প ব্যবহার করায় যুব মহিলা লীগ জেলা আহবায়িকা এ্যাডঃ সেলিনা আক্তার, এ্যাডঃ এম. আরিফুর রহমান ও এ্যাডঃ রোজালিন সরকারকে শোকজ করে আদালতে। পরে তাদের আইনজীবি সনদ বাতিল করে পুলিশে দেয়। ৭ এপ্রিল বগুড়া জেলা যুব মহিলা লীগের যুব বিষয়ক সম্পাদিকা শিল্পী বেগমকে নবাববাড়ি সড়কে রুচিতা হোটেলের সামনে থেকে ২০০ পিস ইয়াবাসহ আটক করে পুলিশ।
কৃষক লীগ : ৬ এপ্রিল ঢাকার রূপনগরে সালিশীর নামে দোয়ারী পাড়া এলাকার এক তরুণীকে ধর্ষণ করায় কৃষক লীগ রূপনগর থানা সভাপতি হাজী হারুন ও জাহাঙ্গীর আলম মধুকে রিমান্ডে নেয় পুলিশ। গত ১৬ মার্চ ৩৯ দুয়ারী পাড়ায় রোডে এই ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। ২১ এপ্রিল ঝিনাইদাহ জেলার কোটচাঁদপুরে আল-আমিন নি¤œ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে সাপ্তাহিক দিগন্ত বাণী সম্পাদক শেখ শাহ জামানকে পিটিয়ে আহত করে কৃষক লীগ উপজেলা আহবায়ক শাহজান আলী। রাস্তা নির্মান নিয়ে বিরোধ মিমাংশা কালে এই ঘটনা ঘটে।
বিএনপি ঃ ৭ এপ্রিল গোপালগঞ্জ জেলা বিএনপির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আজিজুর রহমান বেনোকে মোহাম্মদপাড়া এলাকা থেকে আটক করে পুলিশ। ৮ এপ্রিল নোয়াখালীর সেনবাগ বিএনপির ১৭ নেতা-কর্মী আদালতে হাজির হয়ে জামিনের আবেদন করলে আদালত তাদের জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে হাজতে পাঠায়। কারাগারে যাওয়া নেতা-কর্মীরা হলো- সেনবাগ পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শহীদুল আলম, সেনবাগ উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক শাহাদাত আনছারী, কাবিলপুর ইউনিয়ন যুবদল সভাপতি মহিন উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন, কাবিলপুর ইউনিয়ন ছাত্রদল সভাপতি রবিউল হাসান, কাবিলপুর ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক দল সভাপতি ইসমাইল, শ্রমিক দল কাবিলপুর ইউনিয়ন সভাপতি সাইফুল ইসলাম ও বীজবাগ ইউনিযন যুবদল সাধারণ সম্পাদক আবুল কালামসহ ১৭ জন। ৯ এপ্রিল ঢাকার নাবাবগঞ্জ থেকে বিএনপির উপজেলা যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক খন্দকার আবুল কালাম, বিএনপি নেতা আব্দুল্লাহ আল-মামুন, বুলবুল হোসেন, সেন্টু মোল্লা, যুবদল নেতা পবন হোসেন, শিমুল বিশ্বাস, রতন চৌধূরী, ছাত্রদল নেতা জুয়েল হোসেন, দূর্জয় মাহমুদ সোহেল ও স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা আজিজুল হক আদালতে হাজির হয়ে জামিনের আবেদন করলে আদালত তারে জামিন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে পাঠায়। ১০ এপ্রিল সাতক্ষীরা সদর থেকে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শেখ তারিকুল হাসান, যুবদল জেলা সভাপতি আবুল হাসান নাদী, সাধারণ সম্পাদক আইনুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক তাজুল ইসলাম, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দল যুগ্ম-আহবায়ক কামরুজ্জামান ভুট্টো ও পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মাসুম বিল্লাহ শাহীনকে নভারুণ স্কুল মোড় এলাকায় একটি সভা চলাকালে আটক করে পুলিশ। ১২ এপ্রিল নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলা বিএনপির সভাপতি ডঃ রফিকুল ইসলাম হেলালী এবং সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন ভূঁইয়া দুলালসহ ১৩০ নেতা-কর্মী আদালতে হাজির হয়ে জামিনের আবেদন করলে আদালত তাদের আবেদন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে পাঠায়।
১৯ এপ্রিল ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক নূরে আলম ঝিকুকে পশু হাসপাতাল রোড থেকে আটক করে পুলিশ। নোয়াখালীর সোনাইমুড়ির ধন্যগ্রাম থেকে জুবায়ের, নাজিম, ইয়াসিন, রনি ও শান্ত নামে ছাত্রদল এবং স্বেচ্ছাসেবক দলের এক কর্মীকে আটক করে। ২০ এপ্রিল নাড়াইলের নড়াগাতি থানার খাশিয়াল গ্রাম থেকে পুলিশ বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা কবির মুরাদ, খুলনা বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অনিত্য ইসলাম অমিত ও কালিয়া উপজেলা বিএনপি সাধারণ সম্পাদক ওয়াহিদুজ্জামান মিলুসহ ৫৮ নেতা-কর্মীকে আটক করে। ২৩ এপ্রিল যশোর জেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান খান আদালতে হাজির হয়ে জামিনের আবেদন করলে আদালত তার জামিন নামঞ্জুর করে তাকে জেল হাজতে পাঠায়। ২৪ এপ্রিল নরসিংদীর পলাশ থেকে বিএনপির উপজেলা সাংগঠনিক সম্পাদক আওলাদ হোসেন জনি ও উপজেলা যুবদল সাংগঠনিক সম্পাদক বখতিয়ার হোসেনকে সুলতানপুর গ্রাম থেকে আটক করে পুলিশ। ২৭ এপ্রিল পটুয়াখালীর দুমকি পুলিশ উপজেলা বিএনপির সভাপতি খলিলুর রহমানকে আটক করে। ২৯ এপ্রিল ঢাকা মহানগর দক্ষিন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রশীদ, সিনিয়র সহ-সভাপতি এম. শামসুল হুদা, সহ-সভাপতি ইউনুস মৃধা, কে.এম জোবায়ের এজাজ, এ্যাডঃ রফিকুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুল ইসলাম পটু, রফিকুল ইসলাম রাসেল, সহ-সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন, মোয়াজ্জেম হোসেন খান, নয়ন ও ছাত্রদলের আল-মামুন পান্নাসহ ১৭ নেতাকে বাংলামটর রূপায়ন সেন্টার থেকে পুলিশ আটক করে। 
ছাত্র দল ঃ ২৩ এপ্রিল ঢাকা মহানগর পুলিশ বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে পূর্ব ঘোষিত বিএনপির বিক্ষোভ কর্মসূচী পালন কালে মহানগর পূর্ব ছাত্রদল সভাপতি খন্দকার এনামুল হক, বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদল নেতা মনিরুল ইসলাম, ঢাকা মহনগরী উত্তর ছাত্রদল নেতা জুয়েল খান, নিউ মার্কেট থানা ছাত্রদল নেতা সুমন সরকার, আসিফ চৌকিদার, চকবাজার থানার তুহীন, জনি, রাহাত, আবির, লালবাগ থানার রুবেল, যাত্রাবাড়ি থানার আয়াত, রিজভী, অপি খান ও রিফাতকে আটক করে।
যুব দল ঃ ৭ এপ্রিল নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলার বীজবাগ ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড যুবদল সভাপতি নোমানকে পুলিশ নিজ বাড়ি থেকে আটক করে। ২৩ এপ্রিল বরিশাল শহরের আমির কুটির ও কাউনিয়া জানুকি সিংহ রোডে বিভিন্ন উন্নয়ন মূলক কাজ নিয়ে ঠিকাদার ও যুবদল নেতা মোমেন সিকদার সিটি করপোরেশনের সহকারী প্রকৌশলী মামুনুর রশীদের সাথে বাকবিতন্ডা করে। খবর পেয়ে নির্বাহী প্রকৌশলী আনিচুজ্জামান সেখানে পৌঁছালে তাকেও গালাগাল ও লাঞ্ছিত করে। ৩০ এপ্রিল খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে প্রচার অভিযান কালে বাগেরহাট জেলা যুবদল সভাপতি মেহবুবুল হক কিশোরকে গল্লামারী থেকে আটক করে পুলিশ।
জামায়াত ঃ ৪ এপ্রিল চাঁপাইনবাবগঞ্জের ভোলাহাট উপজেলা জামায়াত আমীর মাওলানা আলাউদ্দিনকে তার বাড়ি থেকে আটক করে পুলিশ। ৭ এপ্রিল নীলফামারী জেলা জামায়াতের সাবেক সেক্রেটারি অধ্যাপক খায়রুল আনামকে কেন্দ্রীয় বাস টারর্মিনাল থেকে পুলিশ আটক করে। ১০ এপ্রিল চট্টগ্রামের লোহাগড়ার আমিরাবাদ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও জামায়াত নেতা মাওলানা কাজী নূরুল আলম চৌধুরীকে তার বাসা থেকে আটক করে পুলিশ। ১৩ এপ্রিল রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে বের হওয়ার সময় পুলিশ মহানগর জামায়াত সেক্রেটারি অধ্যক্ষ সিদ্দিক হোসেন ও পূর্ব জেলা জামায়াত আমীর রেজাউর রহমানকে জেলগেট থেকে ফের আটক করে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ