ঢাকা, রোববার 20 May 2018, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ৩ রমযান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

রংপুর সিটি কর্পোরেশন ১৭৭ কর্মকর্তা-কর্মচারী চাকরিচ্যুত

রংপুর অফিস : রংপুর সিটি কর্পোরেশনে (রসিক) অস্থায়ীভাবে নিয়োগ পাওয়া ১৭৭ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীকে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে ।
গত বৃহস্পতিবার রাত ৯টার দিকে সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আকতার হোসেন আজাদ এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন অস্থায়ীভাবে নিয়োগ পাওয়া ১৭৭ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীকে অফিসে আসতে নিষেধ করে দেওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে তাদের কাছে থাকা সব ফাইলপত্র বুঝিয়ে দিতে বলা হয়েছে।
রসিক সূত্র জানায়, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন না নিয়ে ও পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি না দিয়ে অতিগোপনে ২০১২ সালে প্রায় ২৪০ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীকে নিয়োগ দেন সদ্য সাবেক মেয়র মরহুম শরফুদ্দিন আহাম্মেদ ঝন্টু। ঐ সূত্র জানিয়েছে, এই ২৪০ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগের ক্ষেত্রে কোনও নিয়োগ কমিটিও গঠন করা হয়নি। এমনকি, তাদের নিয়োগের বেলায় কোনও লিখিত বা মৌখিক পরীক্ষাও নেয়া হয়নি। উপরন্তু ৫ থেকে ১৫ লাখ টাকা পর্যন্ত ঘুষ নিয়ে শরফুদ্দিন আহাম্মেদ ঝন্টু এই ২৪০ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীকে নিয়োগ দেন।
সূত্র জানায়, মেয়র হিসেবে দায়িত্ব নিয়ে জাতীয় পার্টি থেকে নির্বাচিত মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা চলতি বছরের ফেব্রুয়াীর মাসে শরফুদ্দিন আহাম্মেদ ঝন্টুর আমলে অস্থায়ীভাবে নিয়োগ পাওয়া সব কর্মকর্তা-কর্মচারীর মাসিক বেতন বন্ধ করে দেন। একইসঙ্গে এসব কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগের ক্ষেত্রে কোনও অনিয়ম হয়েছে কিনা তা তদন্ত করে দেখতে সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আকতার হোসেন আজাদকে প্রধান করে তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করে দেন। কয়েকদিন আগে ঐ তদন্ত কমিটি তাঁদের প্রতিবেদন দাখিল করে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ঐ তদন্ত কমিটির এক সদস্য জানান, অস্থায়ীভাবে নিয়োগ পাওয়া ২৪০ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীর মধ্যে ১৭৭ জনের ক্ষেত্রে অনিয়মের প্রমাণ পাওয়া গেছে। অস্থায়ীভাবে নিয়োগ পাওয়া ১৭৭ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীকে চাকরিচ্যুত করার ব্যাপারে  সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আকতার হোসেন আজাদ বলেন-  আমরা কাগজপত্র পরীক্ষা করে দেখেছি, তাদের নিয়োগের পুরো প্রক্রিয়া অবৈধ ছিল।
রসিক মেয়র মোস্তাফিজার রহমান জানিয়েছেন, তদন্ত কমিটির মতামত ও সুপারিশের ভিত্তিতে তাদের চাকুরিচ্যুত করা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ