ঢাকা, বৃহস্পতিবার 24 May 2018, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ৭ রমযান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

ওরা অনেক এগিয়েছে আমরা পিছিয়েছি -রুমানা

স্পোর্টস রিপোর্টার : দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে ওয়ানডে আর টি-টোয়েন্টি সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হয়েছে বাংলাদেশ মহিলা ক্রিকেট দল। ৫-০ ব্যবধানে ওয়ানডেতে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার পর টি-টোয়েন্টিতে ৩-০ ব্যবধানে  হেরেছে মহিলা দল। ফলে দক্ষিণ আফ্রিকা সফর থেকে শূন্য হাতে দেশে ফিরেছে রুমানা-সালমারা। সফর শেষে দেশে ফিরে গতকাল মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে অধিনায়ক রুমানার বলেন,‘ওরা অনেক এগিয়ে  গেছে, আমরা অনেক পিছিয়ে  গেছি।’ তাইতো দীর্ঘ এক মাসের দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের প্রাপ্তি খুঁজে পেলেন না রুমানা। 

পুরো সফরের প্রাপ্তি জানাতে গিয়ে অধিনায়ক বলেন,‘অনেকদিন পর ওয়ানডে খেলতে  গেছি। এ বছর ৫টা খেললাম, আবার কবে পাব জানি না। সামনের এশিয়া কাপ টি- টোয়েন্টি। ওয়ানডে নেই। প্রাপ্তি বলতে অভিজ্ঞতা বাড়ল। ওরা ভালো দল। ভালো দলের সাথে খেলতে কেমন প্রস্তুতি দরকার বা নিতে হবে, সেটা বুঝেছি।’ ঘরের মাঠে গত বছর প্রোটিয়া মেয়েদের আতিথেয়তা দিয়েছিল বাংলাদেশ। পাঁচ ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজে ৪-১ ব্যবধানে হেরেছিল স্বাগতিকরা। এবার ওদের মাঠে হোয়াইটওয়াশ। ভিন্ন কন্ডিশনে প্রতিপক্ষের দাপটে টিকতে পারেননি রুমানারা। অস্বীকার করেননি রুমানাও। তিনি বলেন, ‘ওদের মাটিতে ওরা আসলে রাজার মতো খেলেছে। ওরা পুরোপুরিই দেখিয়ে গেছে। পেস অ্যাটাক ছিল অসাধারণ। কন্ডিশন অনেক প্রভাব  ফেলেছে। এখনো আমরা আমাদের দেশের কন্ডিশন থেকে বের হতে পারিনি।’ তবে এই সফরে প্রাপ্তির খাতায় শুধুই শূন্যতা নেই। ওয়ানডে অধিনায়ক রুমানা আহমেদের মতে, বাংলাদেশ দলের প্রাপ্তি অভিজ্ঞতা অর্জন। এ নিয়ে তিনি বলেন, ‘অনেক দিন পর ওয়ানডে খেললাম। 

এ বছর পাঁচটা ওয়ানডে খেলার সুযোগ পেলাম। আবার কবে খেলবো জানি না। সামনে এশিয়া কাপ টি-টোয়েন্টি। আমাদের প্রাপ্তি বলতে ওয়ানডে খেলার অভিজ্ঞতা বৃদ্ধি। দক্ষিণ আফ্রিকা ভালো দল, আর ভালো দলের বিপক্ষে খেলার জন্য কেমন প্রস্তুতি নেওয়া উচিত সেটা বুঝেছি। ভবিষ্যতে এই অভিজ্ঞতা কাজে লাগবে।’ বাংলাদেশ দলের কোচ হিসেবে দুই বছর দায়িত্ব পালন করেছেন প্রাক্তন ইংলিশ অলরাউন্ডার ডেভিড চ্যাপেল। এ সফর দিয়েই তার দায়িত্ব শেষ হলো। কাতার পর্যন্ত দলের সঙ্গে এসে এরপর আলাদা হয়ে যান চ্যাপেল। এরই মধ্যে বাংলাদেশ ক্রিকেট  বোর্ড মহিলা দলের নতুন কোচ হিসেবে যুক্ত করেছেন ভারতের প্রাক্তন উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান আনজু জেইনকে। তার সহকারী হিসেবে থাকবেন আরেক ভারতীয় দেবিকা পালশিখর। আনজু জেইন যুক্ত হলে বাংলাদেশ মহিলা দলের কোচিং স্টাফ হয়ে যাবে ভারতীয় নির্ভর। কারণ এরই মধ্যে কাজ করছেন দেবীকা পালশিখর ও ফিজিও আনুজা ডালভি।

দক্ষিণ আফ্রিকা সফরই ছিল মেয়েদের ক্রিকেট কোচ ডেভিড ক্যাপেলের শেষ ‘অ্যাসাইনমেন্ট’। দেড় বছর কাজ করা ইংল্যান্ডের সাবেক অলরাউন্ডারকে বিদায় জানানোর সময় আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েছিলেন রুমানা ও তার সতীর্থরা,‘তিনি ১৮ মাস ছিলেন আমাদের সঙ্গে। বিদায়ের সময় খুব কষ্ট হচ্ছিল আমাদের। উনারও অনেক কষ্ট হচ্ছিল। এক সময়  তো কেঁদেই ফেললেন, আমরাও কেঁদেছি। কাতার বিমানবন্দরে তাকে বিদায় জানিয়েছি আমরা।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ