ঢাকা, শুক্রবার 25 May 2018, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ৮ রমযান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

পহেলা জুন থেকে ঈদযাত্রায় ট্রেনের  অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু

 

স্টাফ রিপোর্টার : আগামী পহেলা জুন থেকে ঈদযাত্রায় ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হবে। ৬ জুন পর্যন্ত টিকিট বিক্রি করা হবে। গতকাল বৃহস্পতিবার রেল ভবনে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে এ তথ্য জানান রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক।

 রেলমন্ত্রী জানান, ১০ জুনের টিকিট ১ জুন, ১১ জুনের টিকিট ২ জুন, ১২ জুনের টিকিট ৩ জুন, ১৩ জুনের টিকিট ৪ জুন, ১৪ জুনের টিকিট ৫ জুন এবং ১৫ জুনের টিকিট ৬ জুন বিক্রি হবে। প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে টিকিট বিক্রি শুরু হবে।

মন্ত্রী জানান, ঢাকায় ফেরার অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হবে ১০ জুন থেকে ১৫ জুন পর্যন্ত। ১৯ জুনের টিকিট বিক্রি হবে ১০ জুন, ২০ জুনের টিকিট ১১ জুন, ২১ জুনের টিকিট ১২ জুন, ২২ জুনের টিকিট ১৩ জুন, ২৩ জুনের টিকিট ১৪ জুন ও ২৪ জুনের টিকিট বিক্রি হবে ১৫ জুন। একজন সর্বোচ্চ চারটি টিকিট কিনতে পারবেন। ঢাকা স্টেশনে ২৬টি কাউন্টার খোলা থাকবে। এরমধ্যে মহিলাদের জন্য দুটি কাউন্টার থাকবে।

এবার ঈদে টিকিট কালোবাজারিদের প্রতিরোধ করা হবে বলে জানিয়েছেন রেলমন্ত্রী মো. মুজিবুল হক। রেলমন্ত্রী বলেন, ‘টিকিট কালোবাজারি প্রতিরোধে সব বড় বড় স্টেশনে জিআরপি, আরএনবি, বিজিবি ও স্থানীয় পুলিশ এবং র‌্যাবের সহযোগিতায় টিকেট কালোবাজারি প্রতিরোধে সার্বক্ষণিক পাহারার ব্যবস্থা করা হবে। তাছাড়া জেলা প্রশাসকদের সহায়তায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে।

 ট্রেনে যাতে যাত্রীরা নির্বি্েঘœ যাতায়াত করতে পারেন সেজন্য ঈদে অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহনের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে বলে জানান রেলমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘রেলে যে যাত্রী আসা যাওয়া করে, তারচেয়েও বেশি যাত্রী আসা-যাওয়ার সুযোগ করে দেবো। ট্রেন প্রতিদিন দুই লাখ ৬০ হাজার যাত্রী পরিবহন করে। ঈদ উপলক্ষে দুই লাখ ৭৫ হাজারের ওপর যাত্রী পারাপারের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।’ তিন লাখও যেতে পারেন বলেও জানান মন্ত্রী।

টিকিট ছাড়া ভ্রমণ করা যাত্রীদের বিষয়ে করণীয় জানতে চাইলে রেলমন্ত্রী বলেন, রেলে আসা-যাওয়া মানুষ বেশি পছন্দ করেন। যাত্রীরা স্বেচ্ছায় ছাদে ওঠে। ছাদে ওঠা আমরা কোনও অবস্থাতেই মেনে নিই না। কর্তব্যরতদের বলেছি, ছাদে যারা উঠবে তাদের নামিয়ে দিয়ে ভেতরে বসে ভ্রমণের জন্য ব্যবস্থা নিতে। বেআইনি কাজ আমরা এলাও করতে পারি না। আমাদের দায়িত্ব হলো ভদ্রভাবে তাদের নিবৃত করা।

ঈদের সময় কৃত্রিম সংকট হবে কিনা জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ‘রেলের সঙ্গে যুক্ত সব কর্মকর্তা-কর্মচারীর ছুটি (শুক্রবারসহ) বাতিল করা হয়েছে। নাশকতা নৈরাজ্য আমরা কামনা করি না। যেখানে নাশকতা যেখানে দুর্নীতি, সেখানে আমাদের বাহিনী প্রস্তুত আছে। এর বাইরে পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি ও আনসার মোতায়েন থাকবে।’রেলমন্ত্রী জানান, ঈদ উপলক্ষে সর্বমোট ১৪০৫টি কোচ (বিদ্যমান-১২২১+সপ আউট-টার্ন-১৮৪) চলাচল করবে। সর্বমোট ২২৯টি লোকোমোটিভ ব্যবহার করা হবে। যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচলের সুবিধার্থে ঈদের তিন দিন আগে থেকে কনটেইনার ও জ্বালানি তেলবাহী ট্রেন ছাড়া কোনও মালবাহী ট্রেন চলাচল করবে না। ১৫, ১৬, ১৭ ও ১৮ জুন  মৈত্রী এক্সপ্রেস চলাচল করবে না।

সাংবাদিক সম্মেলনে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোফাজ্জেল হোসেন, মহাপরিচালক মো. আমজাদ হোসেনসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ