ঢাকা, শনিবার 26 May 2018, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ৯ রমযান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

এবার দখলকৃত সিরীয় গোলান মালভূমিরও স্বীকৃতি চায় ইসরাইল

২৫ মে,  খবর রয়টার্স ও বিবিসি: মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছ থেকে জেরুসালেমকে নিজেদের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি আদায়ের পর এবার দখলকৃত সিরীয় গোলান মালভূমিরও স্বীকৃতি চায় ইসরাইল। শুধু তাই নয়, ১৯৬৭ সালে দখল করা গোলানকে নিজেদের ভূখণ্ড হিসেবে স্বীকৃতি দিতে ট্রাম্প প্রাশাসনের ওপর রীতিমত চাপও তৈরি শুরু করেছে ইসরাইল।

 গত বুধবার রয়টার্সকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে নিজ দেশের এমন অবস্থানের কথা স্বীকার করেছেন ইসরাইলের গোয়েন্দামন্ত্রী ইসরাইল কাটজ।

সাক্ষাৎকারে ইসরাইল কাট্জ বলেন, গোলান মালভূমির ইস্যুটি ওয়াশিংটনের সঙ্গে আলোচনার ক্ষেত্রে এজেন্ডার প্রথমে রয়েছে। আমেরিকা দখলকৃত গোলান মালভূমিকে ইসরাইলের অংশ হিসেবে স্বীকৃতি দিলে তা হবে ইরানের জন্য একটি সতর্কবার্তা। একইসঙ্গে এটি ট্রাম্প প্রশাসনের ইরানবিরোধী তৎপরতায় নতুন মাত্রাও যোগ করবে।

তিনি বলেন, গোলান মালভূমি বিষয়ে পদ্ক্ষেপ নেয়ার এখনই উপযুক্ত সময়। সেখানে ইসরাইলের সার্বভৌমত্ব প্রতিষ্ঠার বিষয়ে মার্কিন স্বীকৃতি সম্বলিত বিবৃতি হবে ইরানের জন্য আরও একটি বেদনাদায়ক জবাব।

১২০০ বর্গফুটের গোলান মালভূমি সিরিয়া ও ইসরাইল দুই দেশের জন্যই কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ। ১৯৬৭ সালে আরবদের সাথে ছয় দিনের যুদ্ধে অঞ্চলটি দখল করে নেয় ইসরাইল। পরে ১৯৮১ সালে এসে এটিকে তারা নিজেদের ভূখণ্ড বলে ঘোষণা করে। সেখানে অবৈধ ইহুদি বসতি স্থাপন করা হয়। কিন্তু আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় কখনও তেল আবিবের এই দখলদারিত্বের স্বীকৃতি দেয়নি। ২০১৬ সালের এপ্রিলে প্রথমবারের মতো দখলকৃত গোলান মালভূমিতে ইসরাইলি মন্ত্রিসভার বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ