ঢাকা, শনিবার 26 May 2018, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ৯ রমযান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

জাতিগত বৈষম্যের অবসান এবং দরিদ্র ও সুবিধাবঞ্চিত শ্রেণির স্বার্থ রক্ষা করতে হবে--------আনোয়ার ইবরাহিম

২৫ মে, দ্য গার্ডিয়ান : মালয়েশিয়ার সাবেক উপ-প্রধানমন্ত্রী আনোয়ার ইবরাহিম বলেছেন, আমি জাতিগত বৈষম্যের অবসান চাই। মালয়েশিয়ায় মালয়রা দশকের পর দশক ধরে বৈষম্যমূলক নীতির সুবিধা ভোগ করে এসেছে। এখন এই নীতি পরিবর্তন করা দরকার। দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জাতিগত পরিচয় যাই হোক তাদের কল্যাণের জন্য পুরনো এই নীতি পাল্টানোর সময় এসেছে। বৃহস্পতিবার এ্যাসোসিয়েট প্রেসকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে মালয়েশিয়ার জনপ্রিয় রাজনৈতিক নেতা ও হবু প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

আনোয়ার ইবরাহিম বলেন, মেধা ও স্বচ্ছতার ভিত্তিতে নীতি গ্রহণ করলে দেশের দরিদ্র জনগোষ্ঠী উপকৃত হবে। জাতিগত মালয় ও চীনাদের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের পর ১৯৭১ সালে নয়া অর্থনৈতিক নীতি (এনইপি) গৃহীত হয়েছিল। ওই নীতি কেবল অভিজাত শ্রেণির স্বার্থই রক্ষা করেছে; মালয়দের সরকারি সেবা, শিক্ষা, চাকরি, ব্যবসা সবক্ষেত্রে সুবিধা এনে দিয়েছে। আনোয়ার বলেন, ৩ কোটি ১০ জন অধ্যুষিত মালয়েশিয়ার দুই তৃতীয়াংশ জাতিগত মালয় এবং বাকিরা অন্যান্য জাতিগোষ্ঠীর। তাই এনইপি নীতিটি লাখ লাখ জাতিগত মালয়কে দারিদ্র্য অবস্থার থেকে তুলে এনে শহুরে মধ্যবিত্ত বানালেও সংখ্যালঘু জাতিগত চীনা ও ভারতীয়দের অবস্থার কোনো পরিবর্তন ঘটায়নি। সংখ্যালঘু জাতিগগোষ্ঠীর অনেকে এর জন্য দেশ ছেড়ে চলেও গেছে। এনইপি অবশ্যই বাতিল করতে হবে। নতুন যে নীতি গ্রহণ করা হয় তা যেন দরিদ্র ও সুবিধাবঞ্চিত শ্রেণির স্বার্থ রক্ষা করে সেটি নিশ্চিত করতে হবে।

আনোয়ার ইবরাহিম বলেন, পার্লামেন্ট সদস্য হওয়ার জন্য চলতি বছর একটি উপ-নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করব। তবে ক্ষমতার শীর্ষ পদে যাওয়ার জন্য আমি কোনো তাড়া অনুভব করছি না। সাবেক প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাক ছিলেন আত্মকেন্দ্রিক। রাষ্ট্রীয় তহবিল ওয়ানএমডিবি’র দুর্নীতি নিয়ে জনমনে যেভাবে বিরূপ প্রতিক্রিয়া তৈরি হচ্ছিল সেটি তিনি আমলে নেননি। তিনি নিজের পরিম-লের বাইরের বাস্তবতা বোঝার চেষ্টা করেননি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ