ঢাকা, শনিবার 26 May 2018, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ৯ রমযান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

পুলিশ হেফাজতে থাকা ডাকাত সর্দার মিরা বন্দুক যুদ্ধে নিহত

চুয়াডাঙ্গা সংবাদদাতা: চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার গোবিন্দহুদা গ্রামে পুলিশের সাথে ডাকাত সদস্যদের বন্দুকযুদ্ধে ডাকাত সর্দার মিরাজুল ইসলাম মিরা (৪৩) নিহত হয়েছে। বুধবার রাতে পুলিশ হেফাজতে থাকা মিরাজুল ইসলাম মিরাকে নিয়ে অস্ত্র উদ্ধার অভিযানে বের হলে তার সহযোগীদের সাথে এই বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থল থেকে ১ দেশী শাটারগান, ২ রাউন্ড গুলি, ২টি বোমা ও ২টি ধারালো হাসুয়া উদ্ধার
করেছে পুলিশ।
পুলিশ সূত্রে জানাযায়, দামুড়হুদা উপজেলার হাতিভাঙ্গা গ্রামের মৃত হাফেজ মন্ডলের ছেলে মিরাজুল ইসলাম মিরা আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সক্রিয় সদস্য। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাকে বুধবার বিকালে কার্পাসডাঙ্গা ফাঁড়ি পুলিশ ২ রাউন্ড গুলিসহ নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে।
দামুড়হুদা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আকরাম হোসেন জানান, গ্রেফতারের পর থানা কাস্টডিতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে মিরাজুল তার কাছে অস্ত্র থাকার কথা স্বীকার করে। পরে তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী বুধবার দিনগত রাত ১টার দিকে মিরাজুলকে নিয়ে পুলিশের একটি দল অস্ত্র উদ্ধারে বের হয়।
পুলিশ দলটি রাত ২টার দিকে দামুড়হুদা-কার্পাসডাঙ্গা সড়কের গোবিন্দহুদা গ্রামে পৌঁছালে আগে থেকে ওঁত পেতে থাকা মিরাজুলের সহযোগীরা পুলিশের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। এক পর্যায়ে মিরাজুলকে ছিনিয়ে নিতে তার সহযোগীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ও বোমা বর্ষণ শুরু করে। পুলিশও পাল্টা গুলি চালালে শুরু হয় দুপক্ষের গুলি বোমার লড়াই। প্রায় আধা ঘন্টাব্যাপি বন্দুকযুদ্ধের এক পর্যায়ে পুলিশের প্রতিরোধের মুখে ডাকাত সদস্যরা পিছু হটে পালিয়ে যায়।
খবর পেয়ে চুয়াডাঙ্গার সহকারী পুলিশ সুপার (হেড কোয়ার্টার) আহসান হাবীবও সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছান। পরে স্থানীয় লোকজনের সহযোগিতায় পুলিশ দামুড়হুদা-কার্পাসডাঙ্গা সড়কের মেইন রাস্তার ধারে গুলিবিদ্ধ মিরাজুলের লাশ পড়ে থাকতে দেখে। ঘটনাস্থল ও তার আশপাশে অভিযান চালিয়ে সন্ত্রাসীদের ফেলে যাওয়া একটি শাটারগান, ২ রাউন্ড গুলি, ২টি বোমা ও ২টি ধারালো হাসুয়া উদ্ধার করা হয়। চুয়াডাঙ্গার সহকারী পুলিশ সুপার আহসান হাবীব জানান, নিহত মিরাজুল ইসলাম মিরা চুয়াডাঙ্গার শীর্ষ সন্ত্রাসী জামু-আকরাম গ্যাং এর সক্রিয় সদস্য। তার বিরুদ্ধে ২টি ডাকাতি, ৩টি অস্ত্র, ১টি নারীবাজী ও ১টি অপহরণ মামলা রয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ