ঢাকা, সোমবার 28 May 2018, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ১১ রমযান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

খালিশপুরে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতার ঘটনায় আদালতে দু’টি মামলা দায়ের

খুলনা অফিস : কেসিসির ৭নম্বর ওয়ার্ডে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতার ঘটনায় কাউন্সিলর সুলতান মাহমুদ পিন্টুর পক্ষ থেকে দু’টি মামলা করা হয়েছে। সেলিম আহমেদের সমর্থক ও ৭ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এনাম মুন্সি বাদী হয়ে গত ২০ মে কাউন্সিলর পিন্টুসহ ১৯ জনকে আসামী করে মামলা দায়েরের পর মঙ্গলবার পিন্টুর চাচাতো ভাই গোলাম রহমান কচি বাদী হয়ে খুলনার মহানগর হাকিমের আমলী আদালত (গ) অঞ্চলে এ মামলা দায়ের করেন।
ইট পাটকেল নিক্ষেপ ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জিহাদের বাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগে শেখ ওয়াহিদ বাদী হয়ে আরো একটি মামলা করেন একই আদালতে। রাবার বুলেট বিদ্ধ কচির মামলায় ৭ নং ওয়ার্ড আ’লীগের সভাপতি শেখ সেলিম আহমেদ, শেখ ফরহাদ আহমদে, শেখ খালিদ আহমেদ, এনাম মুন্সিসহ ১১ ও অজ্ঞাতনামা ১৫/২০ জনকে আসামী করা হয়েছে। শেখ ওয়াহিদের মামলায় আসামী করা হয়েছে ৮ জনকে।
এদিকে, নম্বর ওয়ার্ডের এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকার পরিস্থিতি ক্রমান্বয়ে উত্তপ্ত হয়ে উঠছে। মামলা পাল্টা মামলা দায়েরের ঘটনায় স্থানীয় বিরোধ বৃহৎ আকার ধারণ করতে পারে এমন আশংকাও অনেকের।
আদালতে মামলার বিষয়ে খালিশপুর থানার ওসি সরদার মোশারেফ হোসেন জানান, একটি মামলায় আদালত থেকে এজাহার হিসেব গণ্য অপরটি তদন্তের মাধ্যমে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। মামলাগুলির বিষয় খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ