ঢাকা, সোমবার 24 September 2018, ৯ আশ্বিন ১৪২৫, ১৩ মহররম ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

দুই মামলায় খালেদার জামিন, একটিতে খারিজ

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: 

কারাগারে থাকা বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া কুমিল্লায় দায়ের করা নাশকতার দুটি মামলায় ছয় মাসের জামিন পেয়েছেন। তবে নড়াইলে দায়ের করা মানহানির মামলায় তার জামিন নামঞ্জুর করেছে উচ্চ আদালত।

আজ সোমবার বিচারপতি একেএম আসাদুজ্জামান ও বিচারপতি জেবিএম হাসানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

এর আগে কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে কুমিল্লায় হত্যা, বিশেষ ক্ষমতা আইনে নাশকতা ও নড়াইলে মানহানি মামলায় জামিন শুনানি শেষ হয়। শুনানি শেষে আদেশের জন্য আজ সোমবার দিন ধার্য করেন আদালত।

খালেদা জিয়ার আইনজীবী প্যানেলের সদস্য অ্যাডভোকেট মাসুদ রানা জানান, নাশকতার অভিযোগে বিশেষ ক্ষমতা আইনে ও বাস পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম থানায় করা দুটি মামলায় ছয় মাসের জামিন পেয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন।

মানহানির অভিযোগে নড়াইলে করা এক মামলায় জামিন আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন আদালত।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় পাঁচ বছরের দণ্ড হওয়ার পর থেকে কারাগারে বিএনপি নেত্রী। গত ১২ মার্চ তাকে চার মাসের জামিন দিয়ে হাইকোর্টের আদেশ আপিল বিভাগ বহাল রাখে ১৬ মে। তবুও মুক্তি পাননি বিএনপি নেত্রী। কারণ আরও পাঁচটি মামলায় তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তার পরোয়ানা রয়েছে আর এর মধ্যে তিনটি মামলায় তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

২০১৫ সালে বিএনপির সরকারবিরোধী আন্দোলনের সময় ৩ ফেব্রুয়ারি কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে বাসে পেট্রল বোমা হামলা চালিয়ে হত্যা করা হয় আটজনকে। এই ঘটনায় করা হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে আলাদা মামলায় বিএনপি নেত্রীকে করা হয়েছে হুকুমের আসামি।

 

খালেদা জিয়ার পক্ষে ছিলেন খন্দকার মাহবুব হোসেন, এজে মোহাম্মদ আলী, জয়নুল আবেদীন, মাহবুব উদ্দীন খোকন, মাসুদ রানা।

জামিন দেয়ার বিরোধিতা করে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

গত ১৬ মে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির পাঁচ বছরের সাজার মামলায় খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেওয়া জামিন বহাল রাখে আপিল বিভাগ। একইসঙ্গে সাজার বিরুদ্ধে খালেদা জিয়ার আপিল আগামী ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে নিষ্পত্তির নির্দেশ দেয় সর্বোচ্চ আদালত।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ