ঢাকা, সোমবার 4 June 2018, ২১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ১৮ রমযান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

মোঘল আমলের প্রাচীন স্থাপত্য আবুরী মসজিদের সংস্কার নেই

মিরপুর (কুষ্টিয়া) সংবাদদাতা : কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলায় মোঘল আমলের প্রাচীন স্থাপত্যের মধ্যে আবুরী মসজিদ অন্যতম নিদর্শন। এটি এ উপজেলার অন্যতম প্রাচীণ একটি মুসলিম স্থাপত্যশৈলী। সংস্কারের অভাবে এ ঐতিহ্যবাহী মসজিদটি ধ্বংস হতে বসেছে। সংস্কার না থাকায় এ মসজিদটি হারিয়ে যেতে বসেছে। জানা যায়, মিরপুর উপজেলার মালিদহাদ ইউনিয়নের প্রত্যান্ত অঞ্চল আবুরী গ্রামে অবস্থিত এই প্রাচীন মসজিদটি স্থাপিত হয় মোঘল আমলে। পাংগাশিয়া নামক মরা নদীর তীরে এক গম্বুজ বিশিষ্ট এই মসজিদটি আবুরী মসজিদ নামে পরিচিত। মসজিদের বিশাল গম্বুজ সকলের দৃষ্টি কাড়ে।বিরাট আকারের গম্বুজটি আবুরী মসজিদের উপর ব্যাঙের ছাতার মত অনুপম সৌন্দর্যের এক নিদর্শন। মসজিদের ভীতরে ও বাইরে এবং নানান ধরনের ফুল ও ফলের কারুকাজ বিদ্যমান। ইসলামী ক্যালিওগ্রাফীর ছোঁয়াও মসজিদের রূপকে দিয়েছে অনেকগুণে বাড়িয়ে। এ মসজিদের দেয়ার ৪ ফুট চওড়া যা মোঘল আমলের অনন্য সৃষ্টি। এছাড়া উত্তর-দক্ষিণ পার্শ্বে ৪ টি জানালা ও সামনে ২টি দরজা রয়েছে। চুন, ইট, সুরকির মজবুত গাথুনি এখনো ধরে রেখেছে প্রত্নতত্ত্বের শেকড় হিসাবে। আবুরী মসজিদের ইতিহাস অনেক পুরনো তবে মোঘল আমলে এক বাদশাহ এটি নির্মাণ করেন বলে স্থানীয়রা জানিয়েছে। সঠিকভাবে তত্ত্বাবধান না করায় মসজিদের জানালা দরজা ভেঙে পড়ার উপক্রম হয়েছে। যার কারণে সৌন্দর্য নষ্ট হচ্ছে এ ঐতিহাসিক মসজিদের। ফলে পর্যটন কেন্দ্র স্থান হিসাবে সকলের কাছে সমাদৃত হচ্ছে না। তথাপিও দূর-দুরান্ত থেকে এ মসজিদটি দেখতে ছুটে আসে অনেক মানুষ। এখন মসজিদের ভিতরে ২ কাতারে একসাথে ৩০ জন মুসল্লী নামাজ আদায় করতে পারে। জানা গেছে, প্রাচীন এই মসজিদের অবকাঠামোকে ধরে রাখার জন্য ইতিপূর্বে নামমাত্র উন্নয়নমূলক কাজ করা হয়েছিল। বর্তমান অবহেলায় পড়ে থাকার দরুণ মসদিটি তার নিজস্ব পরিচয় ধরে রাখতে পারছে না। সরকারের প্রত্বতত্ত্ব বিভাগ আবুরী মসজিদের উন্নয়নে এগিয়ে আসলে রক্ষা পাবে মোঘল আমলে স্থাপিত এ প্রাচীন মসজিদটি। ফলে পর্যটন কেন্দ্র হিসাবে গড়ে উঠতে পারে এ স্থানটি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ