ঢাকা, বুধবার 6 June 2018, ২৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ২০ রমযান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

বিএনপি ক্ষমতায় গেলে রাজনীতির আমূল পরিবর্তন হবে

গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে বাংলাদেশ লেবার পার্টির উদ্যোগে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং নিরপেক্ষ জাতীয় নির্বাচনের দাবিতে আয়োজিত সংহতি সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বীর বিক্রম -সংগ্রাম

জনগণের আন্দোলনের মাধ্যমে খালেদা জিয়া কারাগার থেকে মুক্তি পাবেন। আগামী দিনে বিএনপি এবং ২০ দল যদি সরকার পরিচালনার দায়িত্ব পায় তাহলে বর্তমানের রাজনৈতিক কাঠামোর আমূল পরিবর্তন হবে।
গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে বাংলাদেশ লেবার পার্টি আয়োজিত সংহতি সমাবেশে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অবঃ) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ একথা বলেন।
বাজেটে জনগণের কোনো প্রত্যাশা মিটবে না জানিয়ে তিনি বলেন, এই বাজেটে আগামী দিনে আওয়ামী লীগ একটি পরিকল্পিত কারচুপির নির্বাচন করতে যাচ্ছে। তাদেও দলীয় নেতাদের চাঙ্গা করার জন্য রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে উৎকোচ দেওয়া হবে। এতে জনগনের কোন কল্যান হবে না। খালেদা জিয়ার মুক্তি চাইবো কার কাছে প্রশ্ন করে তিনি বলেন, দেশে কোনো বিচার ব্যাবস্থা নেই, আইনের শাসন নেই। দেশে যে আইনের শাসন নেই তার প্রমান হলো প্রধান বিচারপতিকে দেশ ছেড়ে পালিয়ে যেতে হয়েছে।
তিনি বলেন, এই মুহূর্তে সর্বসম্মতভাবে ঘোষণা করতে চাই, খালেদা জিয়াকে জেলে রেখে বিএনপি এবং ২০ দলীয় জোট কোন নির্বাচনে যাবে না। স্পষ্টভাবে ঘোষণা করতে চাই, আওয়ামী লীগের অধীনেও বিএনপি নির্বাচনে যাবে না। যদি নিরপেক্ষ সরকার প্রতিষ্ঠিত না হয়, আমরা নির্বাচনে যাবো না। আমরা গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করার জন্য রাজপথে নেমেছি, রাজপথে আরও শক্তভাবে নামবো।
হাফিজ বলেন, আমরা অপেক্ষা করে আছি সরকারের বোধদয় হয় কি না। গাজীপুরের সিটি নির্বাচন পর্যন্ত আমরা দেখবো। তারপর ঈদের পর আমরা ২০ দলীয় জোট ঐক্যবদ্ধভাবে সিদ্ধান্ত নেবো আগামী দিনগুলোতে আমাদের কী করণীয় হবে। বিএনপি কোনো দুর্বল দল নয়। ২০ দলীয় জোটের পক্ষে শতকরা ৮০ জন লোকের সমর্থন আছে। বিচার বিভাগের কাছে আমরা আবেদন জানাতে পারি উল্লেখ করে তিনি বলেন, আপনারা আপনাদের মেরুদন্ড শক্ত করুন। আপনারা আইনের শাসনকে সমুন্নত রাখার জন্য শপথবদ্ধ। আপনারা রাজনৈতিক দলের দিকে তাকাবেন না। বিনা অপরাধে খালেদা জিয়াকে কারাগাওে পাঠানো হয়েছে। তিনি অসুস্থ, তার প্রতি আপনারা সুবিচার করুন।
খালেদা জিয়ার মুক্তি ও নিরপেক্ষ জাতীয় নির্বাচনের দাবিতে আয়োজিত এই সংহতি সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন লেবার পার্টির চেয়ারম্যান ডাঃ মোস্তাফিজুর রহমান ইরান। সভায় বক্তব্য রাখেন- বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু, চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব, এডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট আবদুস সালাম আজাদ, লেবার পার্টির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব ইঞ্জিনিয়ার ফরিদ উদ্দিন, ভাইস চেয়ারম্যান এডভোকেট ফারুক রহমান, এস এম ইউসুফ আলী, তানভির হোসাইন, ঢাকা দক্ষিন সভাপতি মাওলানা আনোয়ার হোসেন, যুগ্ম-মহাসচিব এডভোকেট আবদুর রাজ্জাক রাজু, সাংগঠনিক সম্পাদক হুমাউন কবির, বরিশাল জেলা সভাপতি হেলাল উদ্দিন চৌধুরী, দপ্তর সম্পাদক আমানুল্লাহ মহব্বত, ছাত্রমিশন সভাপতি সালমান খান বাদসা ও সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মোঃ মিলন প্রমুখ। প্রেসবিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ