ঢাকা, বৃহস্পতিবার 7 June 2018, ২৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ২১ রমযান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

শেষ দিনেও টিকিট প্রত্যাশীদের উপচেপড়া ভীড় কমলাপুর স্টেশনে

স্টাফ রিপোর্টার : ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ট্রেনের আগাম টিকিট বিক্রি শেষ হয়েছে গতকাল বুধবার। এদিন বিক্রি করা হয়েছে ১৫ জুনের টিকিট। তবে রোজার সংখ্যা ৩০দিন পূর্ণ হলে ঈদ হবে ১৬ তারিখের পরিবর্তে ১৭ তারিখ। এরকম হলে ১৬ জুন বিশেষ ব্যবস্থায় ট্রেন চালু থাকবে বলে জানিয়েছেন কমলাপুর রেল স্টেশনের ম্যানেজার সীতাংশু চক্রবর্তী। ২৯ রোজায় বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পর তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে জানান তিনি। গতকাল বুধবার এক প্রশ্নের জবাবে এই তথ্য দেন সীতাংশু চক্রবর্তী। তবে কতটি বিশেষ ট্রেন চালু করা হবে তা এখনো নিশ্চিত করেননি তিনি। কমলাপুর রেল স্টেশনের ম্যানেজার বলেন,  ঈদের অগ্রিম টিকিট বিক্রির শেষ দিন ছিল গতকাল।
গতকাল দুপুরের মধ্যেই কয়েকটি বিশেষ ট্রেনের টিকিট শেষ হয়ে যায়।  এ বিপরীতে দেওয়ানগঞ্জের বিশেষ ট্রেনের টিকিট বিক্রি করা হয়। কাক্সিক্ষত এই টিকিট হাতে পাওয়ার আশায় রাজধানীর কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে আগের দিন মঙ্গলবার বিকাল থেকে এসে লাইনে দাঁড়িয়ে ছিলেন শত শত মানুষ। এই লাইন স্টেশন ছাপিয়ে পশ্চিম পাশের মূল রাস্তার কাছে চলে যায়। টিকিট পেয়ে অনেককেই উল্লাস প্রকাশ করতে দেখা গেছে। টিকিট প্রত্যাশীদের পদচারণায় স্টেশন এলাকা জনসমুদ্রে পরিণত হয়। এদিকে রাজধানীতে ফেরার টিকিট বিক্রি হবে ১০ জুন থেকে ১৫ জুন পর্যন্ত।
ঈদে চট্টগ্রামের বাড়ি যাবেন বলে মঙ্গলবার সকাল ছয়টায় এসে ট্রেনের আগাম টিকিট কেনার লাইনে দাঁড়ান সুভাষ বড়ুয়া। ২৬ ঘণ্টা পর তাপানুকূল (এসি) কোচের চারটি টিকিট হাতে পেয়েছেন তিনি। চওড়া একটা হাসি দিয়ে বললেন, প্রতিবার বাসে করেই বাড়ি যাই। গতবার বাড়ি যেতে ১৯ ঘণ্টা লেগেছিল। তাই এবার ট্রেনে চড়তে আসা। আরামে যাব ভেবেই আনন্দ লাগছে। এ যেন এক যুদ্ধজয়ের অনুভূতি।
গতকাল সকাল আটটায় ২৬টি কাউন্টারে একযোগে টিকিট বিক্রি শুরু হয়। দীর্ঘ সময় দাঁড়িয়ে থেকে টিকিট হাতে পেয়ে অনেকেই উচ্ছ্বাস প্রকাশ করছিলেন। তবে বেশির ভাগের ছিল ‘কাক্সিক্ষত’ টিকিট না পাওয়ার ক্ষোভ। টিকিট বিক্রি শুরুর কিছুক্ষণ পরই স্টেশনের বিভিন্ন কাউন্টার থেকে জানানো হয় তাপানুকূল কোচগুলোর টিকিট শেষ। এতে দীর্ঘ সময় লাইনে অপেক্ষমাণ মানুষের মধ্যে চিৎকার ও হইচই শুরু হয়ে যায়। অনেকে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। লাইনে দাঁড়ানো চাকরিজীবী আনিসুল ইসলাম বলেন, ‘আরে ভাই, এত ঘণ্টা ধইরা দাঁড়াইলাম, এখন আধা ঘণ্টা পার হওয়ার আগেই বলে এসির টিকিট দুইটা আছে। অথচ আমি চাইলাম চারটা সিট। এটা কি মগের মুল্লুক নাকি?
ডাক বিভাগের কর্মচারী রফিকুল ইসলাম কমলাপুর স্টেশনে এসেছিলেন মঙ্গলবার দুপুরে। লাইনে তিনি ছিলেন সাতজনের পরে। তিনি সোনার বাংলা এক্সপ্রেসের চারটি এসির টিকিট চেয়েছিলেন। পেয়েছেন তিনটি। পরিবার নিয়ে চট্টগ্রামে গ্রামের বাড়িতে ঈদ করতে যাবেন। তিনি বলেন, এখন আমি বাকি একটা টিকিট কই পাই। ভারী বিপদে পড়লাম তো। এতক্ষণ দাঁড়ায়ে কী লাভটা হইল। উল্টো ঝামেলায় পড়লাম।
রেলস্টেশনের ২৬টি কাউন্টার থেকে টিকিট বিক্রি হয়। এর মধ্যে দুটি কাউন্টার নারীদের জন্য সংরক্ষিত। গতকাল ২৭ হাজার ৪৬১টি টিকিট বিক্রি হচ্ছে। তবে নারীদের কাউন্টার দুটির উল্লেখ থাকলেও কেবল একটি কাউন্টার থেকে টিকিট বিক্রি দেখা গেছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ