ঢাকা, বৃহস্পতিবার 7 June 2018, ২৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ২১ রমযান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

সুন্দরবনে বন্দুকযুদ্ধে তিন ডাকাত নিহত অপহৃত চার জেলে উদ্ধার

খুলনা অফিস : খুলনায় পুলিশ ও ডাকাতদের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধে সুন্দরবনের কালু বাহিনীর প্রধান আবু সাইদ ওরফে কালুসহ তিন ডাকাত নিহত হয়েছে। এ সময় পুলিশের আটজন সদস্য আহত হয়েছে বলে পুলিশ দাবি করেছে। বন্দুকযুদ্ধের পর অপহৃত চারজন জেলেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহতরা হলো-সুন্দরবনের ডাকাত কালু বাহিনীর প্রধান আবু সাইদ ওরফে কালু, আজগর আলী ও শহিদুল মল্লিক। গতকাল বুধবার বেলা ১১টার দিকে জেলার কয়রা উপজেলার মহেশ্বরীপুর ইউনিয়নের ময়দা পেশা এলাকায় এই বন্দুকযুদ্ধের ঘটনাটি ঘটে।
কয়রা থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) মোস্তফা হাবিবুল্লাহ জানান, তিন দিন আগে কয়রা উপজেলা সদর এলাকার বীনাপানি ও তেঁতুলতলা গ্রামের বাসিন্দা সুন্দরবনের জেলে হাবিবুর ফকির, বাবু, ফরিদুল গাজী ও মজিবুর গাজীকে মুক্তিপণের দাবিতে সুন্দরবন থেকে অপহরণ করে ডাকাত কালু বাহিনী। মুক্তিপণের দাবিতে অপহৃত জেলেদের নিয়ে কালু বাহিনী মহেশ্বরীপুরের ময়দা পেশা এলাকায় অবস্থান করছে। এমন খবর পেয়ে কয়রা থানা পুলিশ বুধবার বেলা ১১টার দিকে ময়দা পেশা এলাকায় অভিযান চালায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাকাতরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলী ছুঁড়তে শুরু করে। পুলিশও পাল্টা গুলী চালায়। দুপুর ১২টার দিকে ডাকাতদের পক্ষ থেকে গুলী ছোঁড়া বন্ধ হলে সেখানে তল্লাশি অভিযান শুরু করে পুলিশ। এ সময় তিন ডাকাতর লাশ পড়ে থাকতে দেখা যায়। ওসি জানান, বন্দুকযুদ্ধ চলাকালে কয়রা থানার এসআই আজম, কিশোর, সাইদ, এএসই মোস্তফা, কনস্টেবল কাইয়ুম ও আরিফসহ আট পুলিশ সদস্য আহত হন। তাদেরকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
খুলনা জেলা বিশেষ শাখার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আনিচুর রহমান জানান, কয়রা থানা পুলিশ ৫ জুন রাত ৮ ঘটিকায় সুন্দরবন থেকে ডাকাতদের হাতে অপহৃত জেলে হাবিবুর, রাজু, সাবিদুল, মুজিবর গাজীদের উদ্ধারের জন্য রাতভর বিরামহীন অভিযান পরিচালনা করে ৬ জুন সকাল ১০ ঘটিকায় জানতে পারে সুন্দরবনের কালু বাহিনী সুন্দরবনের অভ্যন্তরে কয়রা নদীর ময়দা ফ্যাসা নামক স্থানে অপহৃত জেলেদের আটকে রেখেছে। পুলিশ সকাল সাডে ১১ টায় উক্ত ময়দা ফ্যসা খালে পৌঁছালে ডাকাতরা পুলিশকে লক্ষ করে গুলি ছোড়ে। পুলিশও আত্মরক্ষার্থে পাল্টাগুলি চালায়। পুলিশ-ডাকাত প্রায় ঘন্টাব্যাপী বন্দুকযুদ্ধ শেষে ডাকাতদল পিছু হটে। পুলিশ বনের মধ্যে ধাওয়া করে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় ডাকাত মো. আবু সাইদ মোড়ল ওরফে কালু, মো. আকবর আলী গাজী ও মো. শহিদুল মল্লিককে আটক করে। ডাকাতদের আস্তানা থেকে আহত অবস্থায় অপহৃত জেলে হাবিবুর, রাজু, সাবিদুল ও মজিবর গাজীকে উদ্ধার করে। এ ঘটনায় পুলিশ সদস্য এসআই(নি.)/ রাজিউল আমিন, এসআই(নি.)/ কিশোর কুমার, এসআই(নি.)/ গোলাম আজম, এএসআই(নি.)/ মো.মোস্তাফিজুর রহমান, কং/হারিজ মোল্লা, কং/শওকত হোসেন, কং/সামাদ, কং/মোখলেচুর রহমান আহত হয়। ঘটনাস্থল তল্লাশী করে একটি ডাবল ব্যারেল বন্দুক ও ৩ রাউন্ড কার্তুজ, ২টি দেশী তৈরী পিস্তল ও ১ রাউন্ড পিস্তলের গুলি, ৫ রাউন্ড গুলির খোসা, ১টি কুড়াল, ১টি চাপাতি ও ১০/১২ টি গরানের লাঠি এবং ডাকাতির কাজে ব্যবহৃত ১টি নৌকা উদ্ধার করে। পুলিশ গুলিবিদ্ধ ডাকাত ৩ জনসহ আহত পুলিশ সদস্য ও অপহৃত জেলেদের উদ্ধার পূর্বক নিকটবর্তী জায়গীর মহল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক গুলিবিদ্ধ ডাকাতদের মৃত ঘোষণা করেন। অন্যান্য আহতদের চিকিৎসা সেবা দেয়া হয়েছে।
জানা যায়, নিহত ডাকাত আবু সাইদ ওরফে কালু, আকবর ও শহিদুলের বিরুদ্ধে একাধিক ডাকাতি ও অস্ত্র মামলা রয়েছে। এদের মধ্যে ২০১৬ সালে শহিদুল বনদস্যু হিসেবে আত্মসমর্পন করেছিল। পরবর্তীতে কালু বাহিনীতে যোগ দিয়ে পুনরায় ডাকাতিতে জড়িয়ে পড়ে।
১৯ মাদক ব্যবসায়ীসহ  ৭৪ জন গ্রেফতার : ধারাবাহিক মাদকবিরোধী অভিযানের অংশ হিসেবে খুলনা মহানগরী ও জেলা পুলিশ ১৯ মাদক ব্যবসায়ীসহ ৭৪ জনকে গ্রেফতার করেছে। এ সময় ৬৭৫ গ্রাম মদ, ৬০ গ্রাম গাঁজা ও ২০২ পিস ইয়াবা জব্দ করা হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে বুধবার সকাল ৮টা পর্যন্ত এ অভিযান পরিচালিত হয়।
খুলনা জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আনিচুর রহমান জানান, খুলনা জেলা পুলিশের মাদকবিরোধী অভিযানে গত ২৪ ঘণ্টায় ৭ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। জেলার ৯টি থানা এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতদের কাছ থেকে ৬০ গ্রাম গাঁজা ও ১৫ পিচ ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। এছাড়া অন্যান্য মামলা ও ওয়ারেন্টভুক্ত আরও ২৩ জন আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের বিশেষ শাখা সূত্রে জানা গেছে, গত ২৪ ঘণ্টার অভিযানে মাদকদ্রব্য আইনের ১০টি মামলায় ১২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এদের কাছ থেকে ৬৭৫ গ্রাম মদ ও ১৮৭ পিস ইয়াবা জব্দ করা হয়। পাশাপাশি অন্যান্য মামলা ও ওয়ারেন্টভুক্ত আরও ৩২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ