ঢাকা, সোমবার 11 June 2018, ২৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ২৫ রমযান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

হারানোর কিছু ছিল না তবে অনেক পেয়েছি: অধিনায়ক সালমা

স্পোর্টস রিপোর্টার : মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুরে যেন নতুন সূর্যের উদয় হলো। মহিলা এশিয়া কাপে নতুন চ্যাম্পিয়ন এখন বাংলাদেশ। গতকাল ভারতকে হারিয়ে মহিলা এশিয়া কাপে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার কৃতিত্ব দেখিয়েছে বাংলাদেশ। টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের এশিয়া কাপে ফাইনালে খেলার স্বপ্ন নিয়ে দেশ  ছেড়েছিল বাংলাদেশ। সেখানে ট্রফি নিয়ে দেশে ফেরার পর্ব এখন সালমা খাতুনের দলের। ছেলেদের ক্রিকেটেও যখন এশিয়ার সেরা হওয়ার কৃতিত্ব দেখাতে পারেনি বাংলাদেশ, এখনো কোনো টুর্নামেন্টের শিরোপা জেতার ইতিহাস নেই, সেখানে পথটা প্রথম রচিত হলো মেয়েদেরই হাতে। এমন অবিস্মরণীয় অর্জনের পর বাংলাদেশের ক্রিকেটে প্রথম শিরোপা জয়ী অধিনায়ক হিসেবে ইতিহাসের পাতায় উঠে যাওয়া সালমা খাতুন বলেন, ‘অনেক খুশি লাগছে যে প্রথমবারের মতো আমরা এশিয়া কাপ জিতেছি। এটা আসলে বলে বোঝাতে পারবো না... এটা কতোটা বড় পাওয়া আমাদের আজকের দিনটি।’ মেয়েদের ক্রিকেটে এশিয়া কাপ একরকম নিজেদের সম্পত্তিই বানিয়ে ফেলেছিল ভারত। ২০০৪ সাল  থেকে ছয়টি আসরের সবকটিতে চ্যাম্পিয়ন হয় দলটি। ২০০৪, ২০০৫, ২০০৬ ২০০৮ সালে ওয়ানডে ফরম্যাটের আসরে চ্যাম্পিয়ন ভারত। এরপর ২০১২ ও ২০১৬ সালে টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটেও চ্যাম্পিয়ন মেয়েদের ক্রিকেটের অন্যতম শক্তিশালী দলটি। মালয়েশিয়ায় আয়োজিত মেয়েদের সপ্তম এশিয়া কাপেও ফেভারিট ছিল ভারত। কিন্তু সেই দলের সাম্রাজ্যের পতন হলো বাংলাদেশের হাতে। লিগপর্বেও ভারতকে (৭ উইকেটে) হারানোয় ফাইনালে মেয়েদের জয়ের সাহসটা গিয়েছিল বেড়ে। ম্যাচশেষে অধিনায়ক সালমা জানালেন সেই আত্মবিশ্বাসের কথা। তিনি বলেন, ‘আত্মবিশ্বাস ছিল। ভারতের বিপক্ষে লিগ ম্যাচটা আমরা জিতছিলাম। আজকে ফাইনাল ম্যাচে আমাদের টার্গেট ছিল ভালো কিছু করবো। আমাদের হারানোর অনেক কিছু ছিল না কিন্তু ওদের হারানোর অনেক কিছু ছিল। আমাদের পাওয়ার অনেক কিছু ছিল যা আমরা পেয়েছি।’ ২১ বছর আগে আইসিসি ট্রফি জিতে নতুন উচ্চতায় উঠেছিল বাংলাদেশের ক্রিকেট। আজ সেই মালয়েশিয়াতেই রচিত হলো আরেকটি ইতিহাস। মেয়েদের এশিয়া কাপের শ্রেষ্ঠত্বের মুকুট বাংলাদেশের। ছেলেরা যা পারেনি, ছেলেদের কাছে এখনো যা অধরা, সেটাই করে দেখাল বাংলাদেশের মেয়েরা। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রথম শিরোপা জয় বাংলাদেশের। সেটাও মেয়েদের হাত ধরে। তাইতো পুরস্কার বিতরণী মঞ্চে আবেগে আল্পুত সালমা খাতুন। কত বড় অর্জন করেছেন মেয়েরা, তা অধিনায়ক সালমার কন্ঠেও স্পষ্ট হচ্ছিল, ‘আসলে আমাদের দারুণ খুশি লাগছে। আমরা প্রথমবারের মতো এশিয়া কাপের শিরোপা জিতেছি। বলে বোঝাতে পারব না আজকের দিনটা আমাদের জন্য কত বড় পাওয়া ছিল।’ টুর্নামেন্ট বাজেভাবে শুরু করেছিল বাংলাদেশ। শ্রীলংকার বিপক্ষে মাত্র ৬৩ রানে অলআউট হয়ে ম্যাচ হারে টাইগ্রেসরা। এরপর আর বাংলাদেশকে পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। পাকিস্তান, ভারত, থাইল্যান্ড ও মালয়েশিয়াকে হারিয়ে বাংলাদেশ ওঠে ফাইনালে। ভারতকে প্রথম মুখোমুখিতে হারানোয় আত্মবিশ্বাসী ছিল বাংলাদেশ শিবির। ফাইনালেও একই আত্মবিশ্বাস ছিল জাহানারা, রুমানাদের। প্রথমে ভারতকে ১১২ রানে আটকে রাখে বাংলাদেশ। শেষ বলে দুই রান নিয়ে জয় নিয়ে ইতিহাস সৃষ্টি করল মেয়েরা। অসাধারণ, অনন্য, অবিশ্বাস্য। মালয়েশিয়ায় প্রবাসী বাংলাদেশিরা টুর্নামেন্টের শুরু থেকেই বাংলাদেশকে সমর্থন করে আসছিল। আজও তারা ছিলেন মাঠে। বাংলাদেশ জিততেই ‘বাংলাদেশ-বাংলাদেশ’ স্লোগান দিতে দিতে তারা ঢুকে যান মাঠে। উল্লাসে মেতে ওঠেন সালমাদের সঙ্গে। প্রবাসী বাংলাদেশিদের ধন্যবাদ দিতে ভুল করেননি অধিনায়ক, ‘সাপোর্টাররা আসলে অনেক ভালো লাগে। আমাদের বাংলাদেশের সাপোর্টার অনেক ছিল। ধন্যবাদ আপনাদের।’ নিজেদের পুরো সফর নিয়ে সালমা বলেছেন, ‘টুর্নামেন্টে আমাদের প্রথম ম্যাচটি একটু খারাপ ছিল। তারপর আমরা খুব ভালোভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছি। প্রত্যেকটি ম্যাচ আমরা জিতেছি। আশা করছি সামনে যে টুর্নামেন্টে আছে, আমরা এই ধারাবাহিকতা ধরে রাখব। ’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ