ঢাকা, সোমবার 11 June 2018, ২৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ২৫ রমযান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

বিজেপি নেতার বরাত দিয়ে প্রকাশিত বক্তব্য উদ্দেশ্যপ্রণোদিত অপপ্রচার ব্যতীত কিছুই নয় -মাওলানা এটিএম মা’ছুম

বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকার ১ম পৃষ্ঠায় গতকাল রোববার প্রকাশিত রিপোর্টে বিএনপির প্রতিনিধি দলের ভারত সফরকালে বিজেপি প্রতিনিধি দলের নেতা অনির্বাণ গাঙ্গুলির সাথে কথিত বৈঠকে প্রদত্ত বক্তব্যের বরাত দিয়ে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী সম্পর্কে প্রদত্ত সম্পূর্ণ অসত্য এবং উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বক্তব্যের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারী জেনারেল মাওলানা এটিএম মা’ছুম বলেন, ভারত সফরকালে বিএনপির নেতাদের সাথে বিজেপি প্রতিনিধি দলের কথিত বৈঠকে বিজেপি প্রতিনিধি দলের নেতা অনির্বাণ গাঙ্গুলির বক্তব্যের বরাত দিয়ে বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকার রিপোর্টে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী সম্পর্কে যে সব বক্তব্য ছাপা হয়েছে তা সর্বৈব অসত্য ও বানোয়াট।
গতকাল রোববার দেয়া বিবৃতিতে তিনি বলেন, বিএনপির কোনো প্রতিনিধি দল ভারত সফর গিয়েছে কিনা বা গিয়ে থাকলেও তারা কংগ্রেস এবং বিজেপির কোনো প্রতিনিধি দলের সাথে আদৌ কোনো বৈঠক করেছে কি-না তাও আমরা জানি না। কথিত সে বৈঠকে বিজেপি প্রতিনিধি দলের নেতা আদৌ কোনো বক্তব্য দিয়েছেন কি-না তাও আমাদের জানা নেই। বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকায় প্রকাশিত রিপোর্টে বিজেপির কথিত নেতার বরাত দিয়ে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীকে জড়িয়ে যে বক্তব্য ছাপা হয়েছে, তা যদি সত্যিই তিনি দিয়ে থাকেন তাহলে সে সম্পর্কে আমাদের সুস্পষ্ট বক্তব্য হল বিজেপির কথিত নেতার বক্তব্যের মধ্যে সত্যের লেশমাত্রও নেই। বাংলাদেশের একটি সুপ্রতিষ্ঠিত জননন্দিত রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী সম্পর্কে তার যে অসত্য বক্তব্য বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকার রিপোর্টে প্রকাশিত হয়েছে তাতে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী সম্পর্কে তার চরম অজ্ঞতা ও মিথ্যাচারই প্রমাণিত হয়েছে। তার মন্তব্য সম্পর্কে আমাদের সুস্পষ্ট বক্তব্য হল বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী বাংলাদেশের সম্পূর্ণ আইনানুগ বৈধ জনপ্রিয় একটি রাজনৈতিক দল। বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী সম্পূর্ণ নিয়মতান্ত্রিক গণতান্ত্রিক ধারার রাজনীতিতে বিশ্বাস করে। বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীকে নিষিদ্ধ করার জন্য সরকারের কোনো মামলা চালানোর প্রশ্নই আসে না। উগ্র মৌলবাদ, জঙ্গিবাদ কিংবা আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদী কোন সংস্থার সাথে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কোনো যোগসাজশ থাকার প্রশ্ন অবান্তর। 
তিনি বলেন, বাংলাদেশে জামায়াতের প্রায় সাত শতাংশ ভোট থাকার যে কথা বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকার রিপোর্টে লেখা হয়েছে তা একেবারে ডাহা অসত্য। ২০০৮ সালের প্রহসনমূলক জাতীয় সংসদ নির্বাচনসহ ২০১৮ সাল পর্যন্ত আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদ নির্বাচন থেকে শুরু করে স্থানীয় সরকারের অনুষ্ঠিত কোনো নির্বাচনই অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও দেশে-বিদেশে কারো নিকট গ্রহণযোগ্য হয়নি। কাজেই বাংলাদেশে কোনো দলের কত ভোট রয়েছে সে সম্পর্কে সঠিক বক্তব্য দেয়া কারো পক্ষেই সম্ভব নয়। আগামীতে দেশে যদি সকল দলের অংশগ্রহণে একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ এবং সকলের নিকট গ্রহণযোগ্য জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় কেবলমাত্র তখনই স্পষ্টভাবে বুঝা যাবে বাংলাদেশে কোনো দলের কত ভোট আছে। বিজেপি নেতার বরাত দিয়ে প্রকাশিত বক্তব্য উদ্দেশ্যপ্রণোদিত অপপ্রচার ব্যতীত অন্য কিছুই নয়। শুধু তাই নয়, বিজেপির কথিত নেতা বাংলাদেশের রাজনীতি ও রাজনৈতিক দল এবং নির্বাচন সম্পর্কে অযাচিত বক্তব্য দিয়ে প্রকৃতপক্ষে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে অবাঞ্ছিত হস্তক্ষেপ করেছেন। এ ধরনের হস্তক্ষেপ আদৌ কাম্য নয়।
এ ধরনের হীন উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বক্তব্য প্রদান করা থেকে বিরত থাকার জন্য তিনি বিজেপি নেতার প্রতি আহ্বান জানান এবং ভিত্তিহীন বক্তব্যের ওপর নির্ভর করে জামায়াতের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালানো থেকে বিরত থাকার জন্য তিনি বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকা কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ