ঢাকা, সোমবার 11 June 2018, ২৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ২৫ রমযান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

কঠোর কর্মসূচির মাধ্যমে বেগম জিয়াকে মুক্ত করা হবে -আবদুল্লাহ আল নোমান

চট্টগ্রাম ব্যুরো : শান্তিপূর্ণ বাদ দিয়ে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে কঠোর আন্দোলনের বিকল্প নেই বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান, সাবেকমন্ত্রী আবদুল্লাহ আল নোমান। শনিবার নগরীর পাঁচলাইশ দি কিং অব চিটাগং এ চট্টগ্রাম উত্তর জেলা বিএনপির ইফতার মাহফিলে তিনি একথা বলেন।
 বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া, উত্তর জেলা বিএনপির আহ্বায়ক লায়ন আসলাম চৌধুরীসহ বিএনপি নেতাককর্মীদের মুক্তির দাবিতে এ সভার আয়োজন করা হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম উত্তর জেলা বিএনপির সাবেক সহ সভাপতি চাকসু ভিপি মো.নাজিম উদ্দিন।
নোমান বলেন, ‘বেগম খালেদা জিয়া গণতন্ত্রের মা। তিনি দেশের স্বার্থে কোনদিন কারো সাথে আপোষ করেননি।বিএনপি চেয়ারপার্সনকে মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক মামলা দিয়ে কারগারে রাখা হয়েছে। আমাদেরকে আজ শপথ নিতে হবে। বেগম জিয়াকে যেকোনমুল্যে মুক্ত করতে হবে। গণতন্ত্ররক্ষার সংগ্রাম আমাদেরকে চালিয়ে যেতে হবে। কারণ গণতন্ত্র ছাড়া একটি দেশ কাঙ্খিত গন্তব্যে পৌঁছাতে পারে না। বিএনপির পক্ষে জনগণ আছে। তাই সামনের আন্দোলনে জনগণ রাস্তায় নামবে। জনগণকে সাথে নিয়ে সরকার পতনের আন্দোলনের সূচনা করতে হবে। আন্দোলনের মূল শক্তি জনগণ। বর্তমানে আইন বেআইন হয়ে গেছে আর বেআইন সরকারের জন্য আইন হয়ে গেছে। দেশে আওয়ামী লীগের জন্য এক রকম আইন বিএনপির জন্য অন্যরকম আইন। ষাটের দশকে আমরা আইয়ূব বিরোধী আন্দোলন করেছি। তখন তাদের শক্তি ছিলো বুলেট টিয়ার শেল। আর গণতন্ত্রকামী মানুষের শক্তি ছিলো জনগণ। জনগণ পাথর দিয়েও সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন করেছে। তাই সময় এসেছে কঠোর আন্দোলনের। বাংলাদেশ জোয়ার ভাটার দেশ। এখণ হয়তো বিএনপির জন্য ভাটা চলছে। কিন্তু প্রকৃতির নিয়ম অনুযায়ী জোয়ার অবশ্যই আসবে। সেদিন আওয়ামী লীগের পতন কেউ টেকাতে পারবে না। ইনশাল্লাহ বেগম জিয়ার নেতৃত্বে বিএনপি সরকার গঠন করবে। তিনি অবিলম্বে বেগম খঅলেদা জিয়া, আসলাম চৌধুরীসহ সকল কারাবন্দি নেতাদের মুক্তি দাবি করেন।
 বাজেট নিয়ে আবদুল্লাহ আল নোমান বলেন, ‘প্রস্তাবিত বাজেট জনকল্যাণমূলক না হওয়ায় জনগণ হতাশ হয়েছে। তারা যেহেতু জনগণের সরকার নয়, আর এই সংসদ সদস্যরা যেহেতু জনগণের ভোটে নির্বাচিত নন, তাই তাদের কাছ থেকে জনকল্যাণমুখী বাজেট আশা করা যায় না। এই বাজেট পাস হলে সব জিনিসপত্রের দাম বেড়ে যাবে। বাড়িঘরের ট্যাক্স বাড়বে, বাসাভাড়া বাড়বে, ফলে সামগ্রিকভাবে নিম্ন মধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্তরা বিপাকে পড়বে। কারণ মূল্য সংযোজন করের ওপর নির্ভরশীলতা বাড়ছে। ভ্যাটের ব্যাপ্তি বৃদ্ধি পেলে মধ্যবিত্ত ও নিম্ন মধ্যবিত্তরাই কষ্ট পাবে বেশি। চলতি আয়-ব্যয়ে বিশাল ঘাটতি থাকবে। কারণ আমদানি ব্যয় বাড়ছে, রপ্তানি আয় কমছে। রপ্তানি আয়ের তুলনায় আমদানি ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় মূলস্ফীতি ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পাবে। বাজেটে গরিবকে আরও গরিব করবে আর ধনীদেরকে আরও ধনী করার সুযোগ দেওয়া হয়েছে। এমনিতে দারিদ্র্য কমার হার কমে যাচ্ছে। এ বাজেটে দারিদ্র্য কমার হার আরও কমে যাবে। কারণ নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি হচ্ছে না, অর্থনীতির নতুন খাত তৈরি হচ্ছে না।’
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মীর মো.নাছির উদ্দিন বলেন, ‘আইনী লড়াই করে আমরা বেগম জিয়াকে মুক্ত করতে পারবো না। কারণ সরকারের ইশারায় আদালত চলছে। সরকার বেগম জিয়াকে হত্যার পরিকল্পনা করছে। যাতে জিয়া পরিবারের কেউ নির্বাচনে যেতে না পারে। বেগম খঅলেদা জিয়া ছাড়া এদেশে কোন নির্বাচন হবে না। আমরা লিফলেট বিতরণ করেছে, শান্তিপূর্ণ মিছিল করেছি। কিন্তু ওইসবে আর লাভ হবে না। কঠোর থেকে কঠোর হতে হবে। প্রয়োজনে আমরা নেতাকর্মীরা আত্মাহুতি দিবো। এখনই সময়ে এসেছে রাজপথে নামার। গণমিছিল করতে হবে। কারাগার ঘেরাও করতে হবে। বিএনপি নেতাকর্শীদের উদ্দেশ্যে মীর নাছির বলেন, আর ঘরে বসে থাকার সময় নেই। আসুন রাজপথে নেমে পড়ি। কারণ আমরা জনগণের কাছে ধর্ণা দিবো। আমাদের কোন বিদেশি প্রভু নেই। আমরা কারো লেজুড়েবৃত্তি করি না। শীর্ঘই নতুন সূর্য উদিত হবে।
 বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মাহবুবের রহমান শামীম বলেন, ‘সরকার বেগম খালেদা জিয়ার জামিন বিলম্বিত করছে। দেশকে নিয়ে তারা নানারকম ষড়যন্ত্র করছে। আবারো ৫ জানুয়ারি মার্কা একটি নির্বাচন করার পাঁয়তারা করছে। কিন্তু জনগণ তা মেনে নিবে না। আমাদের পিঠ দেয়ালে টেকে গেছে। সময় আর নেই। যে যেভাবে পারেন রাজপথে নেমে পড়ুন।
 সভাপতির বক্তব্যে চাকসু ভিপি মো.নাজিম উদ্দিন বলেন, ‘বীর চট্টলা আন্দোলনের সূতিকাগার। এখান থেকে বিট্রিশ বিরোধী আন্দোলনের সূচনা হয়েছিলো। চট্টগ্রাম থেকেই স্বাধীনতার ঘোষণা দেয়া হয়েছিলো। এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে চট্টগ্রামের নেতারা নেতৃত্ব দিয়েছে। তাই স্বৈরাচারী শেখ হাসিনা সরকার পতনের আন্দোলনও চট্টগ্রাম থেকে শুরু করতে হবে। সকল ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে সকল নেতাকর্মীকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে সরকার পতনে ডাক দেয়ার আহ্বান জানান তিনি।
 চট্টগ্রাম উত্তর জেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবু তাহেরের সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মীর মো.নাছির উদ্দিন, বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবের রহমান শামীম, শ্রম বিষয়ক সম্পাদক এম নাজিম উদ্দিন, বিভাগীয় সহ সাংগঠনিক সম্পাদক হারুনুর রশিদ, জালাল উদ্দিন মজুমদার, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাবেক সভাপতি অধ্যাপক ছিদ্দিক আহমেদ চৌধুরী, নগর বিএনপির সিনিয়র সহ সভাপতি আবু সুফিয়ান, উত্তর জেলা বিএনপির সাবেক সহ সভাপতি এম এ হালিম, অধ্যাপক ইউনুস চৌধুরী,   ছালাউদ্দিন, সাবেক যুগ্ম সম্পাদক নুরুল আমিন, নুর মোহাম্মদ, আজম খান, সেকান্দর চৌধুরী, আবদুল আউয়াল, অধ্যাপক জসীম উদ্দিন, ডা.খুরশিদ জামিল চৌধুরী,নগর বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক ইয়াছিন চৌধুরী লিটন, আহমেদুল আলম রাসেল, সেলিম চেয়ারম্যান, কামাল পাশা, সৈয়দ নাছির উদ্দিন, নুরুল আমিন চেয়ারম্যান  প্রমুখ।
তীব্র গণআন্দোলনের বিকল্প নেই
চট্টগ্রাম ব্যুরো- বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান, সাবেক মন্ত্রী মেয়র ও রাষ্ট্রদূত মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন বলেছেন, বেগম খালেদা জিয়ার জামিনে প্রতি পদে পদে আওয়ামীলীগ সরকার নগ্নভাবে হস্তক্ষেপ করছে। সরকার নি¤œ আদালত থেকে শুরু করে উচ্চ আদালতসহ সকল আইনী ও প্রশাসনিক কাজে এখতিয়ার বহির্ভুতভাবে বাঁধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে। প্রশাসন ও আদালত এই সরকারের সম্পূর্ণ আজ্ঞাবহ হওয়ায় আইনী প্রক্রিয়ায় বেগম খালেদা জিয়া জামিনের সম্ভাবনা নেই উলে¬খ করে মীর নাছির বলেন, বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে তীব্র গণআন্দোলনের বিকল্প কিছুই নেই। ঈদের পর কঠিন ও কঠোর কর্মসূচি আসছে। সে কর্মসূচি পালনের মাধ্যমে দেশ জুড়ে তীব্র আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।তিনি গত শনিবার চট্টগ্রাম  নগরীর শাহ্ আমানত সেতু সংলগ্ন রাজবাড়ী কমিউনিটি সেন্টারে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির উদ্যোগে শহীদ জিয়ার ৩৭তম শাহাদাত বার্ষিকী ও পবিত্র রমজানুল মোবারক উপলক্ষে এক ইফতার মাহফিল পূর্বক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সাংসদ গাজী মোহাম্মদ শাহজাহান জুয়েল।
মীর নাছির বলেন, শহীদ জিয়া বহুদলীয় গণতন্ত্র ফিরিয়ে এনে বাংলাদেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বকে সুসংহত করেছিলেন। আর বেগম খালেদা জিয়া ৯ বছর স্বৈরাচার বিরোধী আপোষহীন সংগ্রামের মাধ্যমে গণতন্ত্র পূনঃপ্রতিষ্ঠা করের্ছিলেন। আজ বাংলাদেশ এক মহা সংকট কাল অতিক্রম করছে। দিনের পর দিন দেশে রাজনৈতিক সংকট ঘনিভূত হচ্ছে। একই সাথে দেশের অর্থনীতিও বিপযয়ের সম্মুখীন। ব্যাংকগুলো সব দেউলিয়া। আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি অত্যন্ত নাজুক, দেশ জুড়ে ক্রস ফায়ারের নামে প্রকৃত অপরাধীদের বাদ দিয়ে নিরীহ লোকজনকে হত্যা করা হচ্ছে। ভয় ভীতি, হামলা মামলার মাধ্যমে মানুষের বাক স্বাধীনতা হরণ করে রাজনৈতিক আন্দোলন দমন করা যাবে উলে¬খ করে তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়াকে জেলে রেখে আরেকটি ৫ জানুয়ারি মার্কা নির্বাচন করার আওয়ামীলীগের স্বপ্ন বাংলাদেশের মাটিতে আর বাস্তবায়ন হবে না। তিনি জেলা উপজেলার ইউনিয়ন ও গ্রাম পর্যায়ের আন্দোলনের স্টিয়ারিং কমিটি গঠন করার জন্য বিএনপি ও এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের প্রতি নিদের্শ দেন। জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক কামরুল ইসলাম হোসাইনীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি আহমদ খলিল খান, জেলা সিনিয়র সহ-সভাপতি অধ্যাপক শেখ মোহাম্মদ মহিউদ্দিন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক কে এম ফেরদৌস, আলহাজ্ব এম এ রহিম, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রদল নেতা এড. ইফতেখার হোসেন চৌধুরী মহসিন, এড. মোঃ ফোরকান, অধ্যাপক শামসুদ্দোহা যুগ্ম সম্পাদক বদরুল খায়ের চৌধুরী, মঞ্জুর উদ্দীন চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক এস.এম. মামুন মিয়া, অর্থ সম্পাদক মফজল আহমদ চৌধুরী, দপ্তর সম্পাদক এড. আবু তাহের, জেলা যুবদলের সভাপতি মোহাম্মদ শাহজাহান, কৃষক দলের সভাপতি সাইফুদ্দীন, জাসাস সভাপতি শামশুল আনোয়ার খান, পটিয়া জেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুল জলিল, সাধারণ সম্পাদক খোরশেদ আলম, লোহাগাড়া বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সলিম উদ্দিন, বাঁশখালী বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মোঃ ইব্রাহিম, এডভোকেট লোকমান শাহ্ প্রমুখ নেতাবৃন্দ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ