ঢাকা, সোমবার 11 June 2018, ২৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ২৫ রমযান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

খুলনা জেলা ও দায়রা জজকে প্রত্যাহারের দাবি আইনজীবীদের

খুলনা অফিস : অনিয়ম ও দুর্নীতির দায়ে খুলনার জেলা ও দায়রা জজ জেসমিন আনোয়ারকে চট্টগ্রাম লেবার কোর্টে বদলির পর তদবিরের মাধ্যমে বদলি স্থগিত করায় খুলনার আইনজীবীদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। তার বিরুদ্ধে অনৈতিক ও অবিচারিক কর্মকান্ড ও অর্থের বিনিময়ে মাদক ব্যবসায়ীদের জামিন দেয়ার অভিযোগ এনে জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও সিনিয়র আইনজীবীরা দৃষ্টান্তমূলক শাস্তিসহ তাকে খুলনা থেকে অবিলম্বে প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে আইনমন্ত্রীর নিকট লিখিতভাবে দাবি জানিয়েছেন। তবে, অভিযোগ অস্বীকার করেছেন জেলা ও দায়রা জজ জেসমিন আনোয়ার।
আইনজীবীদের লিখিত অভিযোগে জানা যায়, ২০১৬ সালের এপ্রিল মাসে খুলনা জেলা ও দায়রা জজ হিসেবে জেসমিন আনোয়ার যোগদানের পর থেকেই অনৈতিক ও অবিচারিক কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়েন। এছাড়া তিনি অর্থের বিনিময়ে মাদক ব্যবসায়ীদের একের পর এক জামিন দিয়ে বিতর্কিত হয়ে পড়েন। এছাড়া তিনি সরকারি বাসভবনে বসবাস করেও তিনি ‘বাড়ি ভাড়া করে বসবাস করছেন’ দেখিয়ে ৭ লাখ ২০ হাজার টাকা আত্মসাৎ করেছেন। তার এসব কর্মকান্ডের প্রতিবাদে এবং তাকে খুলনা থেকে প্রত্যাহারের দাবিতে গত ১৫ এপ্রিল খুলনা জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এডভোকেট এম এম মুজিবর রহমান, সাবেক সভাপতি এডভোকেট গাজী আব্দুল বারী, সাবেক সভাপতি এডভোকেট গোলাম মোস্তফা ফারাজী, এডভোকেট আব্দুল্লাহ হোসেন বাচ্চু, শেখ ইউনুস আহম্মেদ, শেখ সোহরাব হোসেন, আব্দুল মালেক, সাবেক সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মিনা মিজানুর রহমান, শেখ নূরুল হাসান রুবা, মোল্লা মোহাম্মদ মাসুদ রশিদসহ সিনিয়র আইনজীবীরা আইনমন্ত্রীর নিকট লিখিতভাবে অভিযোগ করেন। দায়রা জজ জেসমিন আনোয়ারের বিরুদ্ধে আনা উক্ত আইনজীবীদের অভিযোগের সঙ্গে একমত পোষণ করে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী নারায়ণচন্দ্র চন্দ এমপি, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি তালুকদার আব্দুল খালেক ও সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান মিজান এমপি, জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হারুনুর রশিদ ও সাধারণ সম্পাদক এস এম মোস্তফা রশিদী সুজা এমপি তাকে অবিলম্বে খুলনা থেকে প্রত্যাহারের আবেদন জানিয়ে আইনমন্ত্রীর নিকট লিখিতভাবে সুপারিশ করেন।
সূত্র জানায়, আইনজীবীদের উক্ত অভিযোগের ভিত্তিতে দায়রা জজ জেসমিন আনোয়ারকে আইন ও বিচার মন্ত্রণালয় থেকে কারণ দর্শানোর নোটিস প্রদান ও তাকে খুলনা থেকে চট্টগ্রামের লেবার কোর্টে বদলি করা হয়। কিন্তু কোনো এক অদৃশ্য কারণে তার বদলির আদেশ স্থগিত করা হয়।
এদিকে দুর্নীতি পরায়ন দায়রা জজের বদলির আদেশ স্থগিত হওয়ায় খুলনার আইনজীবীদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। অবিলম্বে তাকে খুলনা থেকে প্রত্যাহার করা না হলে তার বিরুদ্ধে কঠোর আন্দোলনের হুমকি দিয়েছেন আইনজীবীরা।
এ ব্যাপারে খুলনা জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এডভোকেট এম এম মুজিবুর রহমান বলেন, প্রধানমন্ত্রী যেখানে মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে সোচ্চার সেখানে জেলা ও দায়রা জজ জেসমিন আনোয়ার মাদক ব্যবসায়ীদের জামিন দেয়ায় আমরা হতাশ হয়ে পড়েছি। এছাড়া তার বিরুদ্ধে বহুমাত্রিক অভিযোগ রয়েছে।
তবে খুলনা জেলা ও দায়রা জজ জেসমিন আনোয়ার সাংবাদিকদের বলেন, কিছু সিনিয়র আইনজীবী আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচার চালাচ্ছে। তাদের অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। তাছাড়া অর্থ আত্মসাতের যে অভিযোগের কথা বলা হয়েছে তাও ঠিক নয়। আমি মন্ত্রণালয়ে এ ব্যাপারে বিলও পাঠিয়ে দিয়েছি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ