ঢাকা, সোমবার 11 June 2018, ২৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ২৫ রমযান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

মে মাসে খুলনায় খুন ও ধর্ষণসহ ৫১২টি অপরাধ সংগঠিত

খুলনা অফিস : গত মে মাসে খুলনা জেলা ও মহানগরীর ১৭টি থানায় খুন ও ধর্ষণসহ ৫১২টি অপরাধ সংগঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার  সকালে খুলনা জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় এ তথ্য জানানো হয়।
সভায় আইনশৃঙ্খলা প্রতিবেদনে জানানো হয়, খুলনা জেলার নয়টি উপজেলায় গত মে-১৮ মাসে রাহাজানি ১টি, চুরি ২টি, খুন ১টি, অস্ত্র আইন ২টি, নারী ও শিশু নির্যাতন ১৪টি,  নারী ও শিশু পাচার ২টি, মাদকদ্রব্য ১৪১টি এবং অন্যান্য ৮০টিসহ মোট ২৪৩টি মামলা দায়ের হয়েছে। গত এপ্রিল-১৮ মাসে এ সংখ্যা ছিল ১৪৩টি।
মহানগরীর আটটি থানায় মে-১৮ মাসে চুরি ৪টি, অস্ত্র আইনে ৩টি, দ্রুত বিচার ২টি, ধর্ষণ ১টি, নারী ও শিশু নির্যাতন ৭টি ও  মাদকদ্রব্য ২২০টি এবং অন্যান্য আইনে ৩২টি সহ মোট ২৬৯টি মামলা দায়ের হয়েছে। গত এপ্রিল-১৮ মাসে এ সংখ্যা ছিল ২১৫টি।
খুলনা জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. আমিন উল আহসান এর সভাপতিত্বে তাঁর সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় দীর্ঘক্ষণ মাদক নিয়ন্ত্রণ নিয়ে আলোচনা হয়। অবৈধ মাদকের বিরুদ্ধে অভিযানে ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের পাশাপাশি ঈদের পরপরই রূপসার হাজী মালেক ডিগ্রি কলেজসহ শহরের অন্যান্য স্থানে মাদকবিরোধী সচেতনতা সভা করা হবে। সভায় কয়েকজন সদস্য মাদক ব্যবহারকারীদের ছবি থানায় টাঙিয়ে রাখারও অনুরোধ জানান।
আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় আরও কিছু সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়: রূপসাঘাটে খেয়া পারাপারের সময় যাত্রীদের কাছে থাকা মালামালের জন্য যে অতিরিক্ত টোল আদায় করা হচ্ছে তা বন্ধ করা। ঈদের পরপরই মাহিন্দ্রতে অতিরিক্ত যাত্রী বহন বন্ধ করা। দিনের বেলায় শহরে যাতে বাস-ট্রাক প্রবেশ করতে না পারে তার ব্যবস্থা নেওয়া।
আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, ডেপুটি সিভিল সার্জন, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, ইউএনও ও কেএমপি’র প্রতিনিধিসহ অন্যান্য সদস্যগণ উপস্থিত ছিলেন।
ছাত্রীর আত্মহত্যার চেষ্টা
খুলনা মহানগরীতে ধর্ষণের শিকার মাদরাসা ছাত্রী গায়ে আগুন লাগিয়ে আত্মহত্যা চেষ্টা করেছে। নগরীর মোহাম্মদনগর মহিলা মাদরাসার ৫ম শ্রেণীর এই ছাত্রী খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন এন্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটে ভর্তি রয়েছে।
ভুক্তভোগীর পরিবার সূত্রে জানা যায়, গত দেড় মাস আগে নগরীর সোনাডাঙ্গা মেইন রোডের বাসিন্দা মো. আব্দুল আজিজ-এর ছেলে আবির (১৫) এবং তার দুলাভাই মকবুল ইসলামের ছেলে টুটুল (৩৫) মিলে ধর্ষণ করে ওই ছাত্রীকে। এক পর্যায়ে মোবাইলে ধারণের পর মেয়েটিকে ব্লাক মেইল করার চেষ্টা করে ধর্ষকরা। এ ঘটনায় গত রোববার মেয়েটি গায়ে আগুন লাগিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। পরে ঘটনাটি জানাজানির ভয়ে মেয়েটিকে সাতক্ষীরায় গ্রামের বাড়িতে পাঠিয়ে দেয় তার পরিবার। পরবর্তীতে মেয়েটির শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে শনিবার খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। পরে এ ঘটনা সবার নজরে আসে।
সোনাডাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মমতাজুল হক বলেন, বিষয়টি শুনেছি। কিন্তু এখন পর্যন্ত আমার কাছে কেউ অভিযোগ নিয়ে আসেনি। তবে বিষয়টি নিয়ে তদন্ত চলছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ