ঢাকা, সোমবার 11 June 2018, ২৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ২৫ রমযান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

লক্ষ্মীপুরের রামগতিতে দুই পক্ষে সংঘর্ষ : আহত ১০

রামগতি (লক্ষ্মীপুর) সংবাদদাতা : লক্ষ্মীপুরের রামগতিতে বৃহস্পতিবার রাতে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। পূর্ব চরহাসান-হোসেন এলাকায় আলেকজান্ডার-সোনাপুর সড়কের ভাইভাই তেমুহনীতে এ ঘটনা ঘটে। এতে উভয় পক্ষে ১০ জন আহত হন। স্থানীয় একটি ইটভাটার পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা নিয়ে কথা কাটাকাটির জের ধরে এ সংঘর্ষ হয়।  স্থানীয়রা জানান, ইটভাটার কর্মচারি বেলাল ও তাঁর আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মিলন ও তাঁর লোকজনের মধ্যে ওই সংঘর্ষ হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। সংঘর্ষে আহতরা হচ্ছেন মো. বেলাল, মো. দিদার, সোহরাব উদ্দিন, মো. কামাল উদ্দিন ও মো. নুরনবী এবং অপর পক্ষের আহতরা হচ্ছেন মো. সাইফ উদ্দিন, মো. ফয়সল, মো. ফাহিম ও মো. মিলন। গুরুতর আহত নুরনবীকে উন্নত চিকিৎসার জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অপর আহতরা  উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিয়েছেন। বেলাল জানান, তিনি এলাকায় তাঁর ফুপাতো ভাই মো. জমিরের তামিম ব্রিকস নামের ইটভাটা দেখাশোনার কাজ করেন। স্থানীয় ছাত্রলীগ নেতা মিলন দীর্ঘদিন ধরে নানা অজুহাতে ওই ইটভাটার কাজে বাধা সৃষ্টি করছিলেন। কয়েক দিন আগে ইটভাটার জমিতে আটকে থাকা বৃষ্টির পানি নিষ্কাশনেও তিনি বাধা দেন। এ নিয়ে গত বুধবার বিকেলে মিলনের সঙ্গে তাঁর কথা কাটাকাটি হয়। এর জের ধরে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে মিলন লোকজন নিয়ে ভাইভাই তেমুহনীতে তাঁর উপর হামলা করেন। এতে তিনিসহ তাঁর ভাই মো. দিদার, ভগ্নিপতি নুরনবী ও মো. কামাল আহত হন। গুরুতর আহত নুরনবীকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাতেই নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়। ছাত্রলীগ নেতা মিলন বলেন, ইটভাটার (তামিম ব্রিকস) পাশের একটি জমিতে তিনি মাছ চাষ করেন। ইটভাটার পানি নিষ্কাশনের ড্রেন তাঁর চাষের জমিতে পড়েছে। এতে করে তাঁর মাছ চাষের ক্ষতি হয়। এ কারণে তিনি ড্রেনটি বন্ধ করে দেন। এ নিয়ে বেলালের সঙ্গে বুধবার বিকেলে তাঁর ঝগড়া হয়। এর জের ধরে বৃহস্পতিবার রাতে বেলাল ও তাঁর আত্মীয়-স্বজনরা তাঁকে মারধর করেন। ওই সময় তাঁকে উদ্ধারে এগিয়ে এলে তাঁর লোকজনের সঙ্গে বেলালের লোকজনের সংঘর্ষ হয়। এতে তিনিসহ তাঁর পক্ষের পাঁচজন আহত হন। রামগতি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এটিএম আরিচুল হক বলেন, সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। ওই ঘটনায় কোনো পক্ষই থানায় অভিযোগ দেননি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ