ঢাকা, মঙ্গলবার 12 June 2018, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ২৬ রমযান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

প্রতিকূলতা সত্ত্বেও এরদোগানই পাচ্ছেন নতুন প্রেসিডেন্সিয়াল ক্ষমতা

১১ জুন, ইন্টারনেট : তুরস্কের আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রজব তৈয়ব এরদোগান প্রথম-রাউন্ডে সম্ভবত চূড়ান্ত লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারছেন না এবং তার ক্ষমতাসীন একে পার্টি ২৪ জুনের ভোটে পার্লামেন্টে সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারাতে পারেন বলে আভাস দিয়েছে একটি জরিপ সংস্থা। তা সত্ত্বেও এরদোগানই নতুন প্রেসিডেন্সিয়াল ক্ষমতা লাভ করতে যাচ্ছেন বলে মনে করছে জরিপ সংস্থাটি। ‘পুলস্টার গেজেসি’ নামে সংগঠনের জরিপের ফলাফলে এই পূর্বাভাস দেয়া হয়েছে।

গত এপ্রিলে প্রেসিডেন্ট এরদোগান নির্ধারিত সময়ের এক বছরেরও বেশি আগে নির্বাচন আহ্বান করেন। অর্থনৈতিক এবং নিরাপত্তা চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করার জন্য তুরস্কের একটি শক্তিশালী নির্বাহী প্রেসিডেন্সির প্রয়োজনের কথা বলে এরদোগান আগাম নির্বাচন দেন।

গেজেসি’র এই জরিপ গত ২৫ ও ২৬ মে তারিখে পরিচালিত হয়। এতে ৬,৮১১ উত্তরদাতা অংশ নেন। জরিপের ফলাফলে দেখা যায়, প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রথম রাউন্ডে এরদোগান ৪৮.৭ শতাংশ ভোট পাচ্ছেন। অন্যদিকে, প্রধান বিরোধী প্রার্থী মুহররেম ইন্স পাচ্ছেন ২৫.৮ শতাংশ ভোট।

এরদোগান এবং ইন্সের পরেই অবস্থান করছেন মেরাল আকসেনার। তিনি ভোট পাচ্ছেন ১৪.৪ শতাংশ। দেশটির সাবেক এই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ন্যাশনালিস্ট মোভমেন্ট পার্টি (এমএইচপি) থেকে বরখাস্ত হওয়ার পর গত বছর ‘আইয়ি’ বা ‘গুড’ পার্টি প্রতিষ্ঠা করেন। তার সাবেক দল এমএইচপি বর্তমানে ক্ষমতাসীন একে পার্টির সঙ্গে জোট গঠন করে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে। ফলাফলে আরো দেখা যায়, কারাগারে আটক থাকা কুর্দিপন্থী পিপলস ডেমোক্রেটিক পার্টির (এইচডিপি) প্রার্থী সেলাহাত্তিন ডেমিরতাজ ১০.১ শতাংশ সমর্থন পাচ্ছেন।

তুরস্কের অন্যতম পরিচিত রাজনীতিবিদ ডেমিরতাজ যদিও তিনি কারারুদ্ধ অবস্থায় প্রচারণা চালাচ্ছেন, তারপরেও সংসদে প্রবেশের জন্য ১০ শতাংশ ভোটের যে বাধ্যবাধকতা রয়েছে, সেটি অতিক্রম করার সম্ভাবনা রয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ