ঢাকা, মঙ্গলবার 12 June 2018, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ২৬ রমযান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

মিরসরাইয়ে বিএনপির ইফতার মাহফিলে হামলা, আহত ২০

মিরসরাই (চট্টগ্রাম) সংবাদদাতা : মিরসরাইয়ে বিএনপির ইফতার মাহফিলে হামলায় অন্তত ২০জন আহত হয়েছে। গত রোববার উপজেলার বড়তাকিয়া বাজারে আপন কমিউনিটি সেন্টারে এই হামলার ঘটনা ঘটেছে। দেশ মাতা বেগম খালেদা জিয়া বেগম জিয়া মুক্তি পরিষদের উদ্যোগে ইফতার মাহফিল ও বেগম জিয়ার চিকিৎসার দাবিতে প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মাঈন উদ্দিন মাহমুদের সভাপতিত্বে ও বারইয়ারহাট পৌরসভা বিএনপির সাবেক সভাপতি মাঈন উদ্দিন লিটনের সঞ্চালনায় ইফতার মাহফিলের সময় ইফতারের ৩০ মিনিট পূর্বে এই হামলা হয় বলে জানান নেতৃবন্দ। এদিকে সোমবার (১১ জুন) বারইয়ারহাট পৌরসভা বিএনপির উদ্যোগে অনুষ্ঠিতব্য ইফতার মাহফিল প্রশাসনের নির্দেশে স্থগিত হয়েছে। বেগম জিয়া মুক্তি পরিষদের সচিব মাঈন উদ্দিন লিটন জানান, ইফতারের ৩০ মিনিট পূর্বে অতর্কিত ভাবে লাঠিসোটা নিয়ে ছাত্রলীগ-যুবলীগের নেতা-কর্মীরা হামলা চালায়। এসময় শতাধিক চেয়ার, ব্যানার, মঞ্চ ভেঙ্গে ফেলে। তাদের হামলায় ইফতার মাহফিল ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। হামলায় আহতরা হলেন ভাইস চেয়ারম্যান মাঈন উদ্দিন মাহমুদ, বিএনপি নেতা সালেহ আহমদ, বারইয়াহাট পৌর বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক সাইদুল ইসলাম মামুন, যুবদল নেতা আকাশ, কাশেম মাহফুজ, মিন্ট, তুহিন, মিল্লাত, হারুন মেম্বারসহ ২০ জন আহত হয়। তাদের মধ্যে গুরুত্বর কয়েকজনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। হামলার জন্য বিএনপি নেতারা স্থানীয় ছাত্রলীগ ও যুবলীগকে দায়ী করে।
তবে হামালার বিষয়টি অস্বীকার করে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফরহাদ হোসাইন বলেন, উক্ত ঘটনার জন্য ছাত্রলীগ দায়ী নয়। এই হামলা বিএনপির অন্তকোন্দলের জের।
মিরসরাই থানার অফিসার ইনচার্জ সাইরুল ইসলাম বলেন, বিএনপির অভ্যন্তরীণ অনেক বিরোধ আছে। এই ঘটনার বিষয়ে কারো ওপর হামলা বা হতাহতের বিষয়ে কোন আবেদন আমরা পাইনি। লিখিত আবেদন পেলে বিষয়টি খতিয়ে দেখবো।
বারইয়ারহাট পৌরসভা বিএনপির আহবায়ক দিদারুল আলম মিয়াজী বলেন, পুর্ব নির্ধারিত সোমবার আমরা পৌরসভা বিএনপির উদ্যোগে ইফতার মাহফিল করার সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছি। মাহফিলে উপজেলা চেয়ারম্যান নুরুল আমিন প্রধান অতিথি হিসেবে থাকার কথা ছিল। কিন্তু প্রশাসনের নগ্ন হস্তক্ষেপের কারণে স্থগিত করা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ