ঢাকা, মঙ্গলবার 12 June 2018, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ২৬ রমযান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

খুলনা-সাতক্ষীরা মহাসড়কে যাত্রীদের ভোগান্তি কমেনি

খুলনা অফিস : খুলনা-সাতক্ষীরা মহাসড়কের যাত্রীদের কষ্ট এবারের ঈদ যাত্রায়ও লাঘব হলো না। খুলনা জিরোপয়েন্ট-চুকনগর-আঠারমাইল সড়কটি বেহাল দশা ছিল দীর্ঘদিনের। সড়কের অধিকাংশ স্থানে কার্পেটিং ওঠানো, ধূলাবালি, পাথর আর খানাখন্দের সাথে নিত্য চলাচল ছিল এ অঞ্চলের মানুষের।
এ অবস্থায় নানা মহল থেকে সড়কটি দ্রুত সংস্কারের দাবি উঠলে সড়কের উন্নয়ন ও সম্প্রসারণের কাজ শুরু হয় গত বছরের নবেম্বরে। খুলনা জিরোপয়েন্ট থেকে আঠারো মাইল পর্যন্ত দৈর্ঘ্য ২৮ দশমিক ৩ কিলোমিটারের এ সড়কটির পুরুত্ব ছিল সাড়ে ৩শ’ থেকে ৪শ’ মি.মি.। এখন এ সড়কে কাজ চলছে। কিন্তু ভোগান্তি কমতে এখনও সময় লাগবে। ঈদে ঘরমুখো মানুষকে পোহাতে হবে সেই যন্ত্রণা। এ সড়কের কৈয়ার বাজারের পর থেকে কিছু কিছু স্থানে কাজ চলমান রয়েছে। কৈয়া ব্রিজের পর থেকে দেড় কিলোমিটার, জিলেরডাঙ্গা, গুটুদিয়া, ডুমুরিয়া ফায়ার সার্ভিস মোড় থেকে এক কিলোমিটার, জিয়েলতলা মোড়, টিপনা এলাকার এক কিলোমিটার, চুকনগর বাজারের পূর্বে প্রায় দেড় কিলোমিটার এবং পরে মালতিয়া পর্যন্ত, আঠারো মাইলের পূর্বে প্রায় এক কিলোমিটার রাস্তা এখনও নির্বিঘেœ চলাচল সম্ভব হচ্ছে না। রাস্তার ইট, পাথর আর ধূলায় মানুষ অতিষ্ঠ। একটু বৃষ্টি হলেই এ রাস্তায় জমে যাচ্ছে পেড়ি কাদা। কোথাও কোথাও জমছে পানি। ফলে যান চলাচলে বিঘœ হচ্ছে। সেই সাথে বাড়ছে ঝুঁকি আর দুর্ঘটনা।
জানা গেছে, এ সড়কটি কয়েকটি লেয়ারে মোট ৯শ’ মি.মি. বা এক মিটার পুরুত্ব হবে। সড়কের কাজ সম্পন্ন হলে ভারবহন ক্ষমতা হবে ডাবল এক্সেল (৬ চাকা) ১৫ টন, ট্রিপল এক্সেল (১০ চাকা) ২২ টন এবং ফোর এক্সেল (১৪ চাকা) সাড়ে ২৭ টন। এ সড়কটি প্রশস্ত ছিল ২০ ফুট। দুই পাশে অতিরিক্ত ৭ ফুট করে দুই পাশে ১৪ ফুট বেশি প্রশস্তসহ হবে ৩৪ ফুট। সড়কের জিরোপয়েন্ট, কৈয়া বাজার, ডুমুরিয়া, কাঁঠালতলা, চুকনগর এবং আঠারো মাইল এ ৬টি পয়েন্টে বাসবে (স্টপেজ) নির্মাণ করা হবে এবং সব মিলিয়ে যার মোট বরাদ্দ হয়েছে ১৪০ কোটি টাকা।
চুকনগর এলাকার ব্যবসায়ী মো. রুহুল আমিন জানান, এবার ঈদের ঘরমুখো মানুষের ভোগান্তি কমবে না। তাদের কষ্ট করে ঘরে ফিরতে হবে। চুকনগর বাজার দিয়ে এ এলাকার রাস্তা আর ঠিক হবে না। যেখানে যেখানে কাজ হয়েছে সেখানেও বেশ উঁচু নিচু রয়েছে।
গুটুদিয়া এলাকার সরকারি চাকরিজীবী হোসনেয়ারা পারভীন  জানান, রাস্তা ঠিক হচ্ছে অনেকদিন ধরে। এখনও ঠিকঠাকমতো মেরামত হয়নি। রাস্তার অনেক জায়গা ঠিক করেছে কিন্তু উঁচু নিচু রয়েছে। ফলে ঠিকমতো গাড়ি চলতে পারে না।
ডুমুরিয়া ফায়ার সার্ভিস মোড় এলাকার মোসা. পারভিন বেগম এবং নাসরিন আক্তার জানান, এ রাস্তা অনেকদিন ধরে নষ্ট। আমরা রাস্তায় ওঠার আগে নাক-মুখ বেঁধে উঠি। রাস্তার পাশের বাড়িগুলো সবসময় ধূলোয় ভরে থাকে। রাস্তার কাজ হচ্ছে কিন্তু সেভাবে না।
এ ব্যাপারে সড়ক ও জনপথ বিভাগ-১’র তথ্য কর্মকর্তা ও উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মো. মামুন কায়সার জানান, এ প্রকল্পটি গত বছরের নবেম্বরে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী এ কাজের উদ্বোধন করার পর থেকে কাজ অব্যাহত রয়েছে। ২০১৯ সালের মধ্যে কাজ শেষ হওয়ার কথা। কিন্তু আমরা আশা করছি চলতি বছরের মধ্যে এ কাজ শেষ হবে। এ সড়কের কাজ বর্তমানে বিভিন্ন স্থানে এখন দৃশ্যমান।
৮০৩ রাউন্ড গুলী ও দু’টি
ম্যাগজিনসহ যুবক গ্রেফতার
৮০৩ রাউন্ড গুলী ও দুটি ম্যাগজিনসহ বিএম সোহেল রানা (২৯) নামের এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গতকাল সোমবার সকাল ১১টার দিকে খুলনার ডুমুরিয়ার শঙ্খ সিনেমা হলের পাশ থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। সোহেল রানা ডুমুরিয়ার থুকড়া গ্রামের জব্বারের ছেলে।
খুলনা জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আনিচুর রহমান জানান, ডুমুরিয়া শঙ্খ সিনেমা হলের কাছে রায়হানের ভাঙ্গাড়ির দোকানে সোহেল রানা গুলি-ম্যাগজিন বিক্রি করতে গেলে পুলিশ তাকে হাতে-নাতে গ্রেফতার করে। পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শাহানাজ বেগমের উপস্থিতিতে পুলিশ এলএমজির গুলি ৭৯০ রাউন্ড, চায়না রাইফেলের গুলি ১৩ রাউন্ড, দু’টি রাইফেলের ম্যাগজিন উদ্ধার করে। এ ব্যাপারে মামলা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ