ঢাকা, মঙ্গলবার 12 June 2018, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ২৬ রমযান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

সুন্দরগঞ্জের ভেঙে যাওয়া রামডাকুয়া ব্রীজটি ২ বছরেও পুনঃনির্মাণ করা হয়নি

গাইবান্ধা সংবাদদাতা: ২০১৫ সালে বন্যার স্রোতে গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ পৌর সভার ৭ নং ওয়ার্ডের উপর দিয়ে প্রবাহিত তিস্তার শাখা নদীর উপর রামডাকুয়া ব্রীজটি ভেঙ্গে যায়। দুই বছর অতিবাহিত হলেও আজও ব্রীজটি পুনঃনির্মাণ করা হয়নি । যার কারণে ২০ গ্রামবাসীসহ স্কুল ও কলেজগামী শিক্ষার্থীদের চরম দুর্ভোগে পোহাতে হচ্ছে। শাখা নদী পারাপারের একমাত্র ভরসা এখন নৌকা এবং বাশের সাঁকো। বন্যার সময় নৌকা এবং শুকনো মৌসুমে বাশের সাঁকো দিয়ে উপজেলার বেলকা, তারাপুর, হরিপুর ও কশিম বাজার ইউনিয়নের ২০ গ্রামবাসী ও স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থী এবং ব্যাবসায়ীদের অতিকষ্টে পারাপার করতে হচ্ছে। ২০১২ সালে সাবক জাপার সাংসদ কর্নেল ডা: আব্দুল কাদের খান নিজ অর্থায়নে ইঞ্জিনিয়ারিং প্লান স্টিমিট ছাড়াই দেড়শ ফিট লম্বা রামডাকুয়া ব্রিজটি নির্মাণ করেন। নির্মাণের পর থেকে ব্রীজটি নড়বড়ে ছিল। ঝুকি নিয়ে চলাচল করত পথচারিগণ। ২০১৫ সালের ২য় দফা বন্যায় ব্রীজটি সম্পুর্ণরুপে ভেঙ্গে যায়। ব্রীজটির উপর দিয়ে প্রতিদিন হাজার পথচারী উপজেলা শহরে যাওয়া আসা করে।
তালুক বেলকা গ্রামের শিক্ষার্থী শফিকুল ইসলাম জানান, বন্যার সময় কলেজে যাওয়া আসা করা অত্যন্ত কষ্টকর হয়ে পরে। নৌকার জন্য দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। শুকনো মৌসুমে পায়ে হেটে বাশের সাঁেকার উপর দিয়ে পার হতে হয়। পৌর মেয়র আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, ব্রীজটি পুননির্মণের জন্য সংশিষ্ট মন্ত্রণালয়ে চাহিদাপত্র পাঠানো হয়েছে।
উপজেলা নির্বাহী প্রকৌশলী মুহাম্মদ আবুল মুনসুর জানান, ব্রীজটি পুনঃনির্মাণের জন্য একটি চাহিদাপত্র পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। এখন পর্যন্ত অনুমোদন পাওয়া যায়নি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ