ঢাকা, বুধবার 13 June 2018, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ২৭ রমযান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

বিশ্বকাপে বাংলাদেশের খেলা অলীক স্বপ্ন

স্পোর্টস রিপোর্টার : বিশ্বকাপে একদিন খেলবে বাংলাদেশ এমন স্বপ্ন বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) সভাপতি কাজি সালাহউদ্দিন দেখলেও দেখেননা জাতীয় দলের বর্তমান তারকা ফুটবলার মামুনুল ইসলাম ও জাহিদ হাসান এমিলিরা। তারা মনে করেন দেশের ফুটবল ক্রমেই পিছিয়ে যাচ্ছে। বিশ্বকাপ এলেই বাংলাদেশে ফুটবল নিয়ে যেমন উন্মাদনা শুরু হয়, তা পরবর্তী সময়ে থাকেনা। আর্জেন্টিনা-ব্রাজিল নিয়ে যতটা মাতামাতি তেমনটি দেখা যায়না নিজের দেশের ক্ষেত্রে। ফিফা র‌্যাংকিংয়ে উন্নতি ঘটলেও জাতীয় দলের দুই সাবেক অধিনায়ক জাহিদ হাসান এমিলি ও মামুনুল ইসলাম মনে করছেন, বিশ্বকাপে বাংলাদেশের অংশ নেওয়া অলীক স্বপ্নের মতো। বিশ্বকাপ তো দূরের কথা, দক্ষিণ এশিয়াতে সবার নিচে লাল-সবুজের অবস্থান। তাহলে কি অদূর ভবিষ্যতেও লাল-সবুজ পতাকা নিয়ে ফুটবলে উন্মাদনা হবে না?

বাস্তবতা মেনে নিয়েই বাংলাদেশের বিশ্বকাপ সম্ভাবনাকে অনেক দূরের পথ মনে করছেন এমিলি। এই স্ট্রাইকারের বক্তব্য, ‘যখন বিশ্বকাপ ফুটবল আসে, তখন মনে হয় আমরাই যেন বিশ্বকাপে খেলছি। 

কিন্তু আমরা বাস্তব অবস্থার চেয়ে যোজন যোজন ব্যবধানে পিছিয়ে আছি। বাংলাদেশের ফুটবল এখন কোনও পর্যায়ে নেই। কোনও জায়গায় আমরা ভালো অবস্থানে নেই। না আছি দক্ষিণ এশিয়াতে, না আছি এশিয়াতে। বিশ্বে কোনও অবস্থান নেই আমাদের। অথচ আমাদের এখানে অনেক মেধা আছে। সেটা ঠিকভাবে ব্যবহার করা যায় না। আমাদের নির্দিষ্ট কোনও পরিকল্পনা নেই। তাহলে কিভাবে এগোবে দেশের ফুটবল?’

জাতীয় দলের সাবেক এই অধিনায়ক অভিজ্ঞ ষ্ট্রাইকার হতাশা ব্যক্ত করে বললেন, আমাদের খুব খারাপ লাগে যখন দেখি প্রতিবেশী দেশগুলো এগিয়ে যাচ্ছে। ভারতের প্রসঙ্গ তুলে এমিলি বললেন, দুই বছর আগেও তাদের সঙ্গে ড্র করেছি। দুই বছরে ওরা কোথায় গেছে, আর আমরা কোথায় আছি। সবাই আসলে বড় বড় পরিকল্পনা দেখায়। কিন্তু কেউ কাজ করে না। এটা আমাদের জন্য বড় সমস্যা।

জাতীয় দলের আরেক অধিনায়ক মিডফিল্ডার মামুনুলও বাংলাদেশের ফুটবল নিয়ে জানালেন হতাশার কথা, ‘বিশ্বকাপ এলে খারাপ লাগে। আমাদের নিয়ে কেন উন্মাদনা হয় না। বিভিন্ন দিবস ছাড়া জাতীয় পতাকা কেন ওড়ে না। বিশ্বকাপ কিংবা এশিয়ান পর্যায়ে যেতে হলে দীর্ঘমেয়াদে পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে হবে। সরকার থেকে যদি শুরু করে সংশ্লিষ্ট সবাই স্বপ্ন দেখিয়ে এগিয়ে আসতে পারতো, তাহলে কিছু একটা সম্ভব। যেটা ভারতে হচ্ছে। নয়তো অন্য দেশের পতাকা উড়িয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হবে।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ