ঢাকা, বুধবার 13 June 2018, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ২৭ রমযান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

একজন হজযাত্রীও যাতে কষ্ট না পান তা নিশ্চিত করতে হবে

স্টাফ রিপোর্টার : হজ এজেন্সিস অ্যাসোসিয়েশন (হাব) এর মহাসচিব শাহাদাত হোসাইন তসলিম বলেছেন, সুন্দর হজ ব্যবস্থাপনাই আমাদের মূল কাজ। এ কাজে সরকারকে আমরা সহযোগিতা করি। হজযাত্রী সৌদি আরবে যেতে না পারা তো দূরের কথা, আগামীতে একজন হজযাত্রীও যাতে কোনো প্রকার কষ্ট না পান সেটাই আমরা নিশ্চিত করব। মূলত সুশৃঙ্খল হজ ব্যবস্থাপনায় আমরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। এজন্য গণমাধ্যমসহ সংশ্লিষ্ট সবার সহযোগিতা কামনা করছি।
গত সোমবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় একটি রেস্টুরেন্টে রিলিজিয়ার্স রিপোর্টার্স ফোরাম (আরআরএফ) আয়োজিত ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
হাব মহাসচিব বলেন, অতীতে আমরা দেখেছি হজ অব্যবস্থাপনার কারণে শেষ মুহূর্তে হজযাত্রীরা যেতে পারছে না। নানা সমস্যায় পড়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, ধর্মমন্ত্রী, ধর্মসচিবসহ সংশ্লিষ্টদের সহযোগিতায় আমরা সেই জায়গা থেকে বেরিয়ে এসেছি। গতবার শেষ দিকে কমপক্ষে ৫ হাজার হজযাত্রী যেতেই পারছে না, এমন দুরবস্থায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সার্বক্ষণিক তদারকিতে আমরা তাদের হজে পাঠিয়েছি। হজযাত্রী যাতে কোন প্রকার কষ্ট না পান, তারা যাতে সুন্দরভাবে হজ সম্পন্ন করে দেশে ফিরে আসতে পারেন সেটা নিশ্চিত করাই সরকার ও হাবের অন্যতম লক্ষ্য।
তিনি বলেন, হজ পালনে অনেক নিয়ম মানতে হয়। সচরাচর বিদেশে যাওয়ার মত বিষয় না। সৌদি আরবের কঠোর নিয়ম মেনে সরকারকে হজযাত্রী পাঠাতে হয়। এরমধ্যে প্রতিবছর নতুন নতুন নিয়ম মোকাবেলা করতে হয়। প্রতিমুহূর্ত একটা চ্যালেঞ্জের মধ্যে এই হজ ব্যবস্থাপনা হয়ে থাকে। এতকিছুর পরও আমরা হজ ব্যবস্থানায় যে সফল, তার জন্য গণমাধ্যমের ভূমিকা রয়েছে। তারা ভুল ত্রুটি আমাদের সামনে তুলে ধরার কারণে আমরা সতর্ক হই, ব্যবস্থা নিতে পারি। এটা অনেক বড় সহযোগিতা। আশা করি এই সহযোগিতা মিডিয়া অব্যাহত রাখবে।
আরআরএফ সভাপতি মোহাম্মদ ফয়েজ উল্লাহ ভূইয়ার সভাপতিত্বে, সাধারণ সম্পাদক উবায়দুল্লাহ বাদলের সঞ্চালনায় ইফতার পার্টিতে দোয়া মোনাজাত করেন খেলাফত আন্দোলন একাংশের আমির মাওলানা জাফরুল্লাহ খান।
বক্তব্য রাখেন ধর্মমন্ত্রীর সহকারী একান্ত সচিব  শফিকুল ইসলাম শফিক, ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন, হাবের সাবেক মহাসচিব শেখ আব্দুল্লাহ, সাবেক মহাসচিব এম এ রশিদ শাহ সম্রাট, আটাবের মহাসচিব আব্দুস সালাম আরেফ, আটাবের অর্থ সচিব মোহাম্মদ আব্দুল হামিদ, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাবেক সভাপতি শাখাওয়াত হোসেন বাদশা, সাধারণ সম্পাদক শুক্কুর আলী শুভ, মুসলিম লীগের মহাসচিব কাজী আবুল খায়ের, বিজনিস অটোমেশনের রাশিদুল হাসান লিটন, কবির আল মামুন ও মুরাদ হোসেন, খেলাফত মজলিসের যুগ্ম-মহাসচিব শেখ গোলাম আসগর, জমিয়তের যুগ্ম-মহাসচিব মাওলানা ওয়ালী উল্লাহ আরমান, ইসলামী ফ্রন্টের সহ-দপ্তর সচিব মোহাম্মদ আব্দুল হাকিম, ইসলামী আন্দোলন ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি মাওলানা ইমতিয়াজ আলম, হেফাজত ঢাকা মহানগরীর যুগ্ম-সম্পাদক মাওলানা ফজলুর রহমান কাসেমি, খেলাফত মজলিসের অধ্যাপক মো. আব্দুল জলিল, সেলিম হোসাইন, আজিজুর রহমান হেলাল, মোহাম্মদ হারুনুর রশীদ ভুইয়া, ছাত্র মজলিসের সভাপতি ইলিয়াছ আহমেদ, ছাত্রসেনার সহ সভাপতি মুহাম্মদ মাসউদ হোসাইন, সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ গোলাম হায়দার, ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনের সেক্রেটারি এম হাছিবুল ইসলাম প্রমুখ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ