ঢাকা, মঙ্গলবার 19 June 2018, ৫ আষাঢ় ১৪২৫, ৪ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজর
Online Edition

রাজধানীতে অবৈধ অস্ত্র ব্যবসায়ী গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার : ঢাকার মহাখালীতে এক ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। মোহাম্মদ আলী বাবুল ওরফে বাবুল মিয়া (৫৭) নামে ওই ব্যবসায়ীকে দুটি আগ্নেয়াস্ত্রসহ গ্রেপ্তারের পর তার তথ্যে আরও আটটি অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার করা হয় বলে জানিয়েছে পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিট।
কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, “বাবুলের কাছ থেকে মোট ১০টি অস্ত্র এবং প্রায় ১২০০ রাউন্ড গুলী উদ্ধার করা হয়েছে।” এই অস্ত্রগুলোর মধ্যে রয়েছে তিনটি পিস্তল, চারটি একনলা বন্দুক, একটি রাইফেল এবং দুটি রিভলবার।
মনিরুল জানান, গত ১৫ মে জাহিদুল আলম নামে একজন চিকিৎসককে যাত্রাবাড়ী এলাকা থেকে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তারের পর ৩ জুন তার দ্বিতীয় স্ত্রী মাসুমা আক্তারকেও গাবতলী থেকে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার করা হয়। ওই দম্পতির কাছে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে জাহিদুলের ময়মনসিংয়ের বাসা থেকে আরও অস্ত্র পাওয়া গিয়েছিল। জাহিদুল জিজ্ঞাসাবাদে অস্ত্র সংগ্রহের উৎস হিসেবে বৈধ অস্ত্র ব্যবসায়ী বাবুলের নাম বলেছিলেন বলে জানান মনিরুল। তিনি বলেন, “এরপর গোপন অনুন্ধান চালিয়ে মহাখালী থেকে গত ১১ জুন বাবুলকে একটি পিস্তল এবং একটি রিভলবারসহ গ্রেপ্তার করা হয়। এই দুটি অস্ত্রই অবৈধ।“রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করার পর গতরাতে (বৃহস্পতিবার) তাকে নিয়ে অভিযান চালানো হয় ময়মনসিংহের বাসায়। সেখান থেকে আটটি অবৈধ অস্ত্র ও গুলী উদ্ধার করা হয়।”
মনিরুল বলেন, বৈধ অস্ত্রের ব্যবসার পাশাপাশি বেশি লাভের আশায় বাবুল অবৈধ ব্যবসায় লিপ্ত হয়েছিলেন। “রাজশাহী, চট্টগ্রাম ও খুলনার কয়েকজন বৈধ ব্যবসায়ীর সঙ্গে তার অবৈধ ব্যবসার যোগসূত্র রয়েছে বলে স্বীকার করেছে। যেসব অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে, সেগুলো সুন্দরবনের জলদস্যুর কাছে পৌছানোর কথা ছিল।”
রাজধানীতে স্বামীর মারধরে গৃহবধূর মৃত্যু
রাজধানীর যাত্রাবাড়িতে স্বামীর মারধরের পর এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার বিকালে যাত্রাবাড়ির দনিয়া এলাকার একটি বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে বলে নিহতের স্বজনদের বরাত দিয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই বাবুল মিয়া জানিয়েছেন। নিহত আসমা আক্তার শিমু (৩৪) দনিয়া এলাকার অন্বেশা গলির ১০ তলা বাড়ির ৫ম তলায় ফল ব্যবসায়ী স্বামী আব্দুল মাজেদের সঙ্গে থাকতেন। শিমু দুই সন্তানের মা।
হাসপাতালে আসা শিমুর স্বজনের বরাত দিয়ে বাবুল মিয়া বলেন, একই বাসায় মাজেদের ভাইয়ের পরিবারও থাকে। শুক্রবার বিকালের দিকে শিমুর হাত থেকে গরম চা মাজেদের ভাইয়ের মেয়ের শরীরে পড়ে।“এতে মাজেদ ক্ষিপ্ত হয়ে শিমুকে মারধর করলে সে অজ্ঞান হয়ে যায়। বিকাল ৫টার দিকে শিমুকে হাসপাতালে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ফিরোজ আহমেদ তাকে মৃত ঘোষণা করেন।”ফিরোজ সাংবাদিকদের জানান, শিমুর শরীরের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।
নিহতের স্বজন সেলিনা সাংবাদিকদের জানান, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শিমুকে মাজেদ মারধর করে। শিমু আগে থেকে প্রেসারের রোগী ছিল। ঘটনার পর মাজেদ পালিয়ে যায়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ