ঢাকা, মঙ্গলবার 19 June 2018, ৫ আষাঢ় ১৪২৫, ৪ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজর
Online Edition

বড়াইগ্রামে পৃথক দুর্ঘটনায় মাদরাসা ছাত্রসহ দু’জন নিহত

বড়াইগ্রাম (নাটোর) সংবাদদাতা : বড়াইগ্রামে রবিবার ও শনিবার পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় মাদরাসা ছাত্রসহ দুজন নিহত হয়েছে। নিহতরা হলো-উপজেলার বড়াইগ্রাম পৌরসভার চকবড়াইগ্রাম গ্রামের জিয়াউর রহমান ব্যাপারীর ছেলে ও সিরাজগঞ্জের একটি হাফেজিয়া মাদরাসার ছাত্র জিহাদুল ইসলাম (১৩) এবং বনপাড়া পৌরসভার হারোয়া গ্রামের মানিক মিস্ত্রীর ছেলে দুলাল হোসেন মিস্ত্রী (৪২)
স্থানীয়রা জানান, ঈদের দিন শনিবার জিহাদ শখের বশে তার বাবার ব্যাটারি চালিত অটোভ্যান চালাতে গিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উল্টে বড়াল নদীতে পড়ে যায়। পরে তাকে দ্রুত রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রবিবার দুপুরে সে মারা যায়। এর আগে শনিবার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে দুলাল বনপাড়া বাজার থেকে নতুন কেনা মোটর সাইকেলে বাড়ি ফেরার পথে হারোয়া বটতলার মোড়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশের বৈদ্যুতিক পিলারের সঙ্গে সজোরে ধাক্কা লাগে। এতে তার মাথা থেঁতলে যায়। পরে পথচারীরা উদ্ধার করে স্থানীয় ক্লিনিকে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
পানিতে ডুবে স্কুল ছাত্রীর মৃত্যু : বড়াইগ্রামে পানিতে ডুবে মিলি খাতুন (৬) নামে এক স্কুল ছাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। শনিবার ঈদের দিন দুপুর দুইটার দিকে উপজেলার কুমরুল গ্রামে এ মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে। মিলি উপজেলার বনপাড়া সরদারপাড়া এলাকার মৃত মাসুদ রানার মেয়ে এবং কুমরুল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণীর ছাত্রী। বাবা মারা যাওয়ায় মিলি কুমরুল গ্রামে তার নানা আব্দুল লতিফের বাড়ীতে থেকে লেখাপড়া করতো। স্থানীয় ইউপি সদস্য ফেরদৌস উল আলম জানান, মিলি দুপুরে বন্ধুদের সাথে নানার বাড়ী সংলগ্ন পুকুরে গোসল করতে গিয়ে পানির নীচে তলিয়ে যায়। পরে বন্ধুদের মাধ্যমে খবর পেয়ে স্বজনেরা পুকুর থেকে তার অচেতন দেহ উদ্ধার করে স্থানীয় ক্লিনিকে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মিলিকে মৃত ঘোষণা করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ