ঢাকা, বৃহস্পতিবার 21 June 2018, ৭ আষাঢ় ১৪২৫, ৬ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজর
Online Edition

সৌদি আরব, মিসরকে বিদায় করে দ্বিতীয় রাউন্ডে উরুগুয়ে 

কামরুজ্জামান হিরু: লুইস সুয়ারেজের একমাত্র গোলেই সৌদী আরবকে হারিয়ে বিশ্বকাপের দ্বিতীয় রাউন্ডে খেলা নিশ্চিত করলো উরুগুয়ে। দুইবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন লাতিন আমেরিকার এই দেশটির জয়ে দ্বিতীয় রাউন্ড নিশ্চিত হয়েছে স্বাগতিক রাশিয়ার। টানা দ্বিতীয় হারে গ্রুপ পর্ব থেকেই বিদায় নিতে হচ্ছে সৌদি আরব ও মিশরকে।আগেরদিনই ‘এ’ গ্রুপ থেকে সবার আগে দ্বিতীয় রাউন্ড নিশ্চিত করেছিল স্বাগতিক রাশিয়া। মিসরকে ৩-১ গোলে হারিয়ে। তবে মিসরের বিদায় নিশ্চিত ছিল না তখন। মোহামেদ সালাহর দল তাকিয়ে ছিল সৌদি আরবের দিকে। সৌদি আরব যদি উরুগুয়েকে হারাতে পারে, তাহলে মিসরের একটা সুক্ষ সম্ভাবনা টিকে থাকবে।কিন্তু কোনাটাই হলো না। সৌদি আরব এবং মিসর মধ্যপ্রাচ্যের দুই দেশকেই একসঙ্গে বিদায় করে দিলো উরুগুইয়ানরা। ১৯৫৪ বিশ্বকাপের পর ৬৪ বছর বিরতি দিয়ে বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বে টানা দুটি ম্যাচ জিততে পারলো উরুগুয়ে।

হারলেই বিদায়। এমন সমীকরণ নিয়ে উরুগুয়ের মুখোমুখি হয়েছিল সৌদি আরব। প্রথম ম্যাচে রাশিয়ার কাছে ৫ গোল হজম করার পর অবশ্য মানসিকভাবেও বেশ পিছিয়ে ছিল সৌদি ফুটবলাররা। অন্যদিকে সৌদিকে কোনোমতে হারাতে পারলেই, রাশিয়ার পর দ্বিতীয় রাউন্ডের টিকিট নিশ্চিত উরুগুয়ের। এমন পরিস্থিতিতে রোস্তভ এরেনায় সৌদি আরবকে ১-০ গোলে হারিয়েছে লুইস সুয়ারেজের দল উরুগুয়ে।

মিসরের বিপক্ষে খুবই বাজে পারফরম্যান্স দেখান উরুগুয়ের বার্সা তারকা লুইস সুয়ারেজ। যে কারণে বেশ সমালোচনার শিকারও হতে হয় তাকে। তবে সব সমালোচনাকে পাশ কাটিয়ে ঠিকই সৌদি আরবের বিপক্ষে জ্বলে উঠলেন তিনি। তার একমাত্র গোলেই জয় পেলো উরুগুয়ে।একই সঙ্গে নিজের শততম আন্তর্জাতিক ম্যাচাটাকেও সুয়ারেজ স্মরনীয় করে রাখলেন।একই সঙ্গে টানা তিনটি বিশ্বকাপে গোল করলেন বার্সার এই তারকা।

আক্রমন পাল্টা আক্রমনে খেলা শুরু হলেও ম্যাচের ২৩ মিনিটেই গোল করে উরুগুয়েকে এগিয়ে নেন সুয়ারেজ। কার্লোস সানচেজের ক্রস থেকে ভেসে আসা বলটিতে মাথা ছোঁয়ানোর জন্য কয়েকজন লাফিয়ে উঠেছিলেন। কিন্তু সবাইকে ফাঁকি দিয়ে বল চলে আসে একেবারে ডানপ্রান্তে দাঁড়ানো সুয়ারেজের পায়ে। ডিফেন্ডার আল ওয়াইজ সুয়ারেজকে বাধা দেয়ার চেষ্টা করেও থামাতে পারেননি। সময়ক্ষেপন না করে আলতো শটে বার্সা তারকা বলটা পাঠিয়ে দেন সৌদি আরবের জালে ১-০। 

এদিন ভালো খেললেও ভাগ্য সহায় না থাকায় হারলো সৌদি আরব। রাশিয়ার বিপক্ষে যদি অন্তত এই খেলাটি খেলতে পারতো, তাহলে হয়তো এতগুলো গোল হজম করতে হতো না। বলের দখলে উরুগুয়ের চেয়ে এগিয়েই ছিল মধ্যপ্রাচ্যের দেশটি। সৌদি আরবের ছিল ৫৩ ভাগ। উরুগুয়ের ৪৭ ভাগ। কিন্তু একা এক সুয়ারেজই ব্যবধানটা গড়ে দিলেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ