ঢাকা, শনিবার 23 June 2018, ৯ আষাঢ় ১৪২৫, ৮ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

খালেদা জিয়াকে জেলে রেখে আমরা তো ঈদ উদযাপন করতে পারি না -আমীর খসরু

চট্টগ্রাম ব্যুরো: সাবেক মনত্রী ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, ‘আমাদের অবস্থান, আমাদের নির্ভরশীলতা বাংলাদেশের জনগণের ওপর।
কাউকে ঘর থেকে বের হতে দেবে না, কাউকে গুম করবে, খুন করবে, কারো বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দেবে। এইটা বিশ্বের কোন দেশে টিকে নি, বাংলাদেশেও টিকবে না। এসব করে তাদের অনেক ক্ষতি হয়েছে। কিন্তু এরপরেও তারা কিছু শিখলোনা। এইটা দুঃখের বিষয়।’ তিনি আরো বলেন, ‘আমরা আমাদের সংগ্রামে জয়ী হব।’ক্ষোভ প্রকাশ করে আমির খসরু বলেন, ‘ঈদ আমাদের জন্য নয়। এই যে দেখেন আমি আজ পুরনো কালো পাঞ্জাবি পরেছি। খালেদা জিয়াকে জেলে রেখে আমরা তো ঈদ উদযাপন করতে পারি না। এই দেশকে তারা বন্দি করে রেখেছে। বন্দিশালার মধ্যে ঈদ হয় না। নেতাকর্মীদের উৎসাহ যোগানোর জন্য শুভেচ্ছা বিনিময় করতে হচ্ছে। দেশের মানুষের ভোটাধিকার ফিরে পাওয়ার জন্য, মালিকানা ফিরে পাওয়ার জন্য, বাকস্বাধীনতা ফিরে পাওয়ার জন্য বাংলাদেশের মানুষ অবতীর্ণ হয়েছে।
জনগণকে সাথেই নিয়ে আন্দোলনে জয়ী হওয়ারও প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন তিনি। গত  রোববার চট্টগ্রামের মেহেদীবাগে নিজ বাসভবনে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময়ের সময়ে এসব কথা বলেন আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী।
তিনি  বলেন, ‘যেসব দল রাষ্ট্রীয় সংস্থার ওপর নির্ভরশীল, অন্য দেশের ওপর নির্ভরশীল সে দলগুলো অস্থায়ী ভাবে হয়তো ক্ষমতা ধরে রাখতে পারবে কিন্তু সেটা দীর্ঘস্থায়ী হতে পারবে না। আমরা আমাদের সংগ্রামে জয়ী হব। কারণ জনগণ আমাদের সাথে আছে।’
আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘আত্মীয়স্বজন. বন্ধু-বান্ধব ও জনগণকে সাথে নিয়ে ঈদ পালন করা যে মানুষের অধিকার। সেইটাও তারা ভয় পাচ্ছে। বিএনপি নেতাকর্মীরা রাস্তায় গেলে হাজার-হাজার, জনতা বেরিয়ে আসে। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে জেলে বন্দি করে রেখেছে আর বিএনপি নেতাকর্মীদের ঘর থেকে বের হতে দেবে না। কারণ বের হলেই তাদের জন্য সমস্যা। বর্তমানে গণতান্ত্রিক অধিকার ও মালিকানা ফিরে পেতে মানুষ বদ্ধপরিকর।
বিএনপি নেতাকর্মী যেখানে যায়, সেখানে জনতার ঢল নামছে উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, ‘সরকারের সবচেয়ে বড় ভয় বর্তমানে এটি। জেলে গণতন্ত্রের মা’কে বন্দি করে রেখেছে। বিএনপি নেতাদের ঘর থেকে বের হতে দিচ্ছে না, মিথ্যা মামলা দিচ্ছে। গুম, খুন, হত্যার মাধ্যমে বাঁধাগ্রস্ত করার চেষ্টা করছে। কিন্তু এতে কোন লাভ হচ্ছে না। তাদের পরাজয় নিশ্চিত। তা-ব নিয়ে ক্ষমতায় বেশি দিন থাকা যায় না। আগে বাকশাল করেও পারে নি। তা-ব দিয়ে দলীয় সন্ত্রাসের মাধ্যমে জনগণের বিরুদ্ধে দাঁড়ালে কখনো সফল হওয়া যায় না।’
রাজনৈতিকভাবে ভাবে তারা পরাজিত হতে দেখে এবং তারা একদলীয়ভাবে নির্বাচন করার জন্য বেগম খালেদা জিয়াকে জেলে বন্দি করে কর্মকা- চালাচ্ছে মন্তব্য করে তিনি আরও বলেন, ‘এইটা বিচারিক সিদ্ধান্ত নয়, রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করা হবে। আইনের পেছনে দৌঁড়ে কোন লাভ হবে না। এইটি কোন আইনি বিষয় নয়। এটি দলীয়ভাবে ক্ষমতায় যাওয়ার একটি প্রক্রিয়া। এইটি জনগণকে সাথে নিয়ে রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করতে হবে। যেহেতু এইটি জনগণের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র। বাংলাদেশের জনগণের ভোটাধিকার কেড়ে নিয়ে অন্যায়ভাবে ক্ষমতায় যাওয়ার একদলীয় প্রচেষ্টা। সুতরাং জনগণ তা প্রতিহত করবে।’
এদিকে বিএনপি নেতাকর্মীদের সঙ্গে চট্টগ্রামে নিজ বাসায় শুভেচ্ছা বিনিময় করেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান বলেন, ‘সরকার যে নির্বাচন দিতে চায় তাতে জনগণ ভোট দিতে পারবে না। চলমান অবস্থাকে রাজনৈতিক সংকট মন্তব্য করে আন্দোলনের মাঠে নামার কথা বলেন এই বিএনপি নেতা।আবদুল্লাহ আল নোমান বলেন, ‘সামনে একটা নির্বাচনের কথা বলা হচ্ছে। কিন্তু যে নির্বাচন এ সরকার করতে চায় সে নির্বাচনে জনগণ ভোট দিতে পারবে না।’
তিনি বলেন, ‘ ব্যালট ছিনতাই হবে। এর থেকে বাঁচতে হলে সহায়ক সরকার দরকার। নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার দরকার।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ