ঢাকা, শনিবার 23 June 2018, ৯ আষাঢ় ১৪২৫, ৮ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

তাড়াশে দ্বিতীয়বার পুকুর লীজ নামা লিখে না দেওয়ায়-

সলংগা সংবাদদাতা: সিরাজগঞ্জ জেলার তাড়াশ উপজেলায় দ্বিতীয় বার ৭.৬৮ শতক পুকুরটি লীজ নামা লিখে না দেওয়ায় স্ট্যাম্প ও স্বাক্ষর জালিয়াতি করে তাড়াশ আমলী আদালতে ৪৪৮, ৩৭৯,৩৪ ধারায় মামলা করে স্বার্থ সিদ্ধির পায়তারা চালাচ্ছে মর্মে অভিযোগ পাওয়া গিয়াছে। গত ২১ মার্চ রানী দিঘি গ্রামের অসহায় মমতাজ সরকারের পুকুর ২৬ লক্ষ টাকার ক্ষতি পুরন দাবির ঘটনাটি ঘটেছে। তাড়াশ উপজেলা বারুহাস ইউনিয়নে রানী দিঘি গ্রামের ভূক্তভোগী অসহায় মমতাজ সরকার জানান, আমি গত ২০১৪ সালে আমার ৭.৬৮ শতক পুকুরটি ০৩ বছরের জন্য তাড়াশ উপজেলা দেশিগ্রাম ইউনিয়নের ধুলিশ্বর গ্রামের শ্রী বিমল সরকার ও দেশিগ্রাম ইউনিয়ারে মৃত মোহাম্মাদ আলীর ছেলে প্রতারক পর অর্থলোভী আব্দুল আজিজের কাছে ৭ লাক্ষ টাকার বিনিময় ০৩টি ১০০ টাকা দামের স্ট্যাম্পে  তাতে অপর প্রত্যক পাতায় আমার স্বাক্ষর সহ সীল ও তারিখ ছিল। তাতে আব্দুল আজিজ ও শ্রী বিমলেরর সাথে আমার ৩ বছরে চুক্তি নামা শেষ হয়। পরে আমি পুকুরটি পুনরায় ৭.৬৮ শতক পুকুরটি বেশী দামে অন্যের কাছে লীজ প্রদান করার সিদ্ধান্ত করলে পর অর্থলোভী  আব্দুল আজিজ আবারও ৭ লক্ষ টাকার বিনিময়ে ৭.৬৮ শতক পুকুরটি লীজ রাখার প্রস্তাব করেন। আমি পুকুরটি প্রকাশ্যে ডাকের মাধ্যমে লীজ দিব বললে পরে পর অর্র্থলোভী মামলা বাজ আমার বাড়ী এসে বলে ভাই আমপনার পুকুর বেশী দাম পেলে অন্যের কাছে রাখেন আমার কোন দুঃখ নেই।
আমি অশিক্ষিত হওয়ায় আমার কাগজপাতি তেমন বুঝতানা তার সাথে আমার সকল দলিল কাগজপত্র নিয়ে মাজেমধ্যে তার সাথে বুঝতাম ও পরামর্র্শ করতাম । সে সময়ে অসমেয়ে যতন তখনই পুকুর দেখার নাম করে আমার বাড়ীতে আসত। আমি তাকে ছাড়া এক মুঠো ভাত খেতাম না। তাকে আমার বাড়ীর সদস্য মনে করতাম। সে আমাকে বলতো স্টাম্পের মুল কপি আপনার কাছে থাকা যে কথা আমার কাছে থাকা থাকা একই কথা। এই বলে সে স্ট্যাম্পটি তার বাড়ীতে নিয়ে যায়। পুকুরটি তার কাছে লীজ না রাখায় সে ক্ষিপ্ত হয়ে আমার ভাই ভাতিজার সাথে একটু মন মালিন্য থাকার কারনে আমার ভাই ভাতিজাদের যোগ সাজশে তাদেরকে ভুল বুঝিয়ে তাদেরকে মোটা অংকের টাকার লোভ দেখিয়ে তাদের স্বাক্ষী মেনে তাড়াশ থানা আমলী আদালতে ৪৪৮,৩৭৯,৩৪ ধারায় স্ট্যাম্প ও স্বাক্ষর জালিয়াতি করে স্বার্র্থসিদ্ধির পায়তারা চালাচ্ছে। আমি মামলার নকল  স্ট্যাম্পের অপর পাতায় আমার স্বাক্ষর ও চুক্তি নাময় তারিখ নেই দেখেছি এতে অনেক তথ্যেই ভূল আমি আদালতের কাছে ন্যায় বিচারে আশা করছি। শ্রী বিমলের সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে সে এই প্রতিনিধিকে জানান ৩ বছর শেষ হয়েছে আমি জানি আমি আব্দুল আজিজের সাথে এই মামলার সাথে জড়িত নই।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ