ঢাকা, রোববার 24 June 2018, ১০ আষাঢ় ১৪২৫, ৯ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

ইসরাইলের ঔদ্ধত্য ছাড় দেবে না ইরান-ফিলিস্তিন-সিরিয়া

২৩ জুন, ওয়েবসাইট : ইসরাইলের ঔদ্ধত্য বেড়েই চলছে। ফিলিস্তিন, সিরিয়া কিংবা ইরানের ব্যাপারে দেশটি যেন চুল পরিমাণও ছাড় দিতে রাজি নয়। মিত্র দেশ যুক্তরাষ্ট্র, সৌদি আরবসহ কয়েকটি ছাড়া তারা অন্য কোনো দেশের জনমতকেই পাত্তা দিচ্ছে না। ফলে সঙ্কট বেড়েই চলছে।

ইসরাইলের মিলিটারি বাহিনীর এক অনুষ্ঠানে  ইসরাইলি প্রেসিডেন্ট ঘোষণা দেন গাজা সীমান্তে আরো সেনা মোতায়েন করা হবে। নেতানিয়াহুর এই ঘোষণার কয়েক ঘণ্টা আগেই গাজায় দফায় দফায় বিমান হামলা চালায় ইসরাইল। এতে বেশ কিছু বেসামরিক ফিলিস্তিনি নাগরিক গুরুতরভাবে আহত হন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিশেষ প্রতিনিধি জ্যাসন গ্রিনব্লাট ও জারেদ কুশনার ইসরাইল পরিদর্শনে যাওয়ার প্রাক্কালে এই ঘোষণা দেন ইসরাইলি প্রেসিডেন্ট। 

হামাস বলেছে, ইসরাইলের আগ্রাসী পদক্ষেপকে গ্রহণযোগ্য ও যৌক্তিক হিসেবে তুলে ধরার কোনো উপায় নেই। অন্যায় আগ্রাসনের পক্ষে সমর্থন আদায়ে ব্যর্থ হয়ে আমেরিকা জাতিসঙ্ঘ মানবাধিকার কাউন্সিল থেকে বেরিয়ে গেছে। আমেরিকা ২০১৭ সালে ইসরাইলের অন্যায় তৎপরতার বিরুেদ্ধ প্রস্তাব পাস করার কারণে ইউনেস্কো থেকেও বেরিয়ে গেছে। আমেরিকা এ ধরনের পদক্ষেপের মাধ্যমে প্রমাণ করছে তাদের সরকার মূলত ইসরাইলিদের নিয়ন্ত্রিত এবং জনগণ ও মানবাধিকার তাদের কাছে কোনো গুরুত্বই রাখে না।

এদিকে পাশ্চাত্যের সাথে তেহরানের স্বাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতা অক্ষুণ্ন রাখতে সহযোগিতা শক্তিশালী করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইরান ও রাশিয়া। মস্কোয় ইরানের উপ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাইয়্যেদ আব্বাস আরাকচি ও তার রুশ সমকক্ষ সের্গেই রিয়াবকভের মধ্যে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে।

ওই মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, আমেরিকার একতরফা ও অবৈধ নিষেধাজ্ঞার প্রভাব বলয় থেকে মুক্ত হয়ে পরমাণু সমঝোতার আওতায় ইরান ও রাশিয়ার মধ্যে বাণিজ্যিক ও অর্থনৈতিক সহযোগিতা চালিয়ে যাওয়ার জন্য দু’দেশের মধ্যে ব্যাপকভিত্তিক আলোচনা অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

ইরান হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছে, পাশ্চাত্যের সঙ্গে স্বাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতা ভেঙে পড়লে মধ্যপ্রাচ্যসহ গোটা বিশ্ব ‘ভয়ঙ্কর’ পরিণতির সম্মুখীন হবে। ইরানের আণবিক শক্তি সংস্থার প্রধান আলী আকবর সালেহি শুক্রবার অসলো ফোরামের অবকাশে একদল বিশেষজ্ঞের উদ্দেশে দেয়া বক্তব্যে এ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন। সেখানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ওমান ও নরওয়ের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা।

২০১৫ সালে জাতিসংঘের পাঁচ স্থায়ী সদস্য দেশ ও জার্মানিকে নিয়ে গঠিত ছয় জাতিগোষ্ঠীর সঙ্গে পরমাণু সমঝোতায় সই করেছিল ইরান। কিন্তু গত মাসের গোড়ার দিকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করে ওই সমঝোতা থেকে আমেরিকাকে একতরফাভাবে বের করে নেন।

এ সম্পর্কে আলী আকবর সালেহি বলেন, ট্রাম্পের ‘অপরিণামদর্শী ও ভিত্তিহীন’ সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক সমাজ তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে। তবে ইউরোপীয় দেশগুলো পরমাণু সমঝোতাকে ধরে রাখার যে কথা মুখে বলছে তা যদি তারা নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বাস্তবায়ন করে দেখাতে না পারে তাহলে এর পরিণতি হবে ‘ভয়াবহ’। পরমাণু সমঝোতা ভেঙে পড়লে মধ্যপ্রাচ্যসহ গোটা বিশ্ব নজিরবিহীন নিরাপত্তাহীনতার সম্মুখীন হবে বলে তিনি সতর্ক করে দেন।

২০১৬ সালের জানুয়ারি মাসে পাশ্চাত্যের সাথে ইরানের স্বাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতার বাস্তবায়ন শুরু হয়। সমঝোতা অনুযায়ী ইরান তার শান্তিপূর্ণ পরমাণু কর্মসূচিতে সীমাবদ্ধতা আরোপ করে এবং এর বিনিময়ে তেহরানের ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয় পাশ্চাত্য। তবে ট্রাম্প গত ৮ জুন পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেয়ার সময় বলেছেন, তার দেশের পক্ষ থেকে ইরানের ওপর থেকে তুলে নেয়া নিষেধাজ্ঞাগুলো পুনর্বহাল করা হবে।

সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদ বলেছেন, আমেরিকার প্রেসিডেন্টদের সঙ্গে আলোচনা করা সময়ের অপচয় ছাড়া আর কিছু নয়; কারণ, তারা আমেরিকার প্রেসার গ্রুপগুলোর হাতে জিম্মি। ১৯৭৪ সালে আমেরিকার সঙ্গে সিরিয়ার আলোচনা শুরু হওয়ার পর থেকে দামেস্ক এখন পর্যন্ত কিছু পায়নি। কারণ, মার্কিন প্রেসিডেন্টরা দেশটির বিভিন্ন লবি, বৃহৎ গণমাধ্যম, আর্থিক প্রতিষ্ঠান এবং তেল ও অস্ত্র কোম্পানিগুলোর মতো বিভিন্ন প্রেসার গ্রুপের হাতে জিম্মি হয়ে রয়েছেন। সিরিয়ার চলমান সঙ্কট সমাধানে ইতিবাচক ভূমিকা রাখতে পারে এমন যেকোনো পক্ষ ও দেশের সাথে আলোচনায় বসতে দামেস্কের আপত্তি নেই।

তিনি আরো বলেন, কিন্তু আমেরিকা যেহেতু সিরিয়ার ব্যাপারে বিদ্বেষী নীতি পোষণ করে কাজেই ওয়াশিংটনের সঙ্গে আলোচনা করে সময় নষ্ট করার অর্থ হয় না। সিরিয়ার ব্যাপারে অদূর ভবিষ্যতে আমেরিকার নীতিতে পরিবর্তন আসার কোনো লক্ষণ নেই।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ