ঢাকা, মঙ্গলবার 26 June 2018, ১২ আষাঢ় ১৪২৫, ১১ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

বিশ্বকে গণতন্ত্র শিক্ষাদানে সক্ষম হয়েছে তুরস্ক -এরদোগান

সংগ্রাম ডেস্ক : রোববারে তুরস্কে নির্বাচনে ভোট গণনা শেষে পুনরায় প্রেসিডেন্ট হিসেবে ঘোষণা দেওয়া হয় রজব তৈয়ব এরদোগানকে। তুরস্কের বর্তমান এই প্রেসিডেন্ট বিপুল পরিমাণে ভোট পেয়ে খুব সহজেই এই নির্বাচন জিতে যায়।
তিনি তার বিজয়ী ভাষণে বলেন, ব্যালেট পেপারের নিরাপত্তা ও ভোটদানের স্বাধীনতাই তুরস্কের গণতন্ত্রের শক্তিকে প্রকাশ করে। এ নির্বাচনে ৯০ শতাংশেরও বেশি ভোট দিয়ে মানুষ এটা দেখিয়ে দিল যে বিশ্বকে গণতান্ত্রিক শিক্ষা প্রদান করতে সক্ষম হয়েছে তুরস্ক।
দিন শেষে এরদোগান বিজয় দাবি করে বলেন, জাতি আমাকে প্রেসিডেন্ট হিসেবে ও নির্বাহী ক্ষমতা প্রয়োগের দায়িত্ব দিল।
এবারই প্রথম তুরস্কে রাষ্ট্রপতি শাসিত সংসদীয় ব্যবস্থা চালু হল। সে হিসেবে এ পদ্ধতিতে এরদোগানই হলেন দেশের প্রথম নেতা।
এ সময় তিনি বলেন, ক্ষমতাসীন জাস্টিস এন্ড ডেভেলপম্যান্ট পার্টি (একে) এবং পিপলস এলায়েন্স সংসদে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করল।
 বেসরকারি ফলাফলে ৯৮ ভোটে দেখা গেছে সংসদীয় ও রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের উভয়েই এরদোগানের নেতৃত্বের জোট সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করেছে।
প্রসঙ্গত, একে পার্টির নেতৃত্বে ন্যাশনালিস্ট মুভমেন্ট পার্টি (এমএইচপি) জোট বেধে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে।
উল্লেখ্য, বেসরকারি ফলাফলে দেখা গেছে ৯৮.১১ শতাংশ ভোট গণনা শেষে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে এরদোয়ান পেয়েছেন ৫২.৫২ শতাংশ ভোট। একইভাবে এরদোয়ান নেতৃত্বাধীন জোট সরকার গঠনে পেয়েছে ৫৩.৫৯ শতাংশ ভোট।
রুহানির শুভেচ্ছা
তুরস্কের প্রেসিডেন্ট হিসেবে পুনর্নির্বাচিত হওয়ায় রজব তৈয়ব এরদোগানকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ইরানের প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানি। গতকাল সোমবার এক শুভেচ্ছা বার্তায় তিনি আশা প্রকাশ করে লিখেছেন, নতুন মেয়াদে ইরান ও তুরস্কের বন্ধুত্ব ও ভ্রাতৃত্বপূর্ণ সম্পর্ক অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে আরও বেশি শক্তিশালী হবে।
তিনি আরও বলেছেন, মধ্যপ্রাচ্যসহ মুসলিম বিশ্বের বর্তমান পরিস্থিতির বিষয়ে দুই দেশের ঘনিষ্ঠ ও দায়িত্বপূর্ণ সহযোগিতা বিদ্যমানসমস্যা সমাধানের এবং শান্তি, কল্যাণ ও স্থিতিশীলতা জোরদারের আরও উপযুক্ত ক্ষেত্র তৈরি করবে। একই সঙ্গে তিনি তুরস্কের জনগণের সাফল্য ও কল্যাণ কামনা করেন।
তুর্কি গণমাধ্যমে বলা হয়েছে, ৯৯ শতাংশ ভোট গণনার পর দেখা গেছে, এন্দোগান ৫৩ শতাংশের বেশিভোট পেয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ¦ী মুহাররেম ইনজি পেয়েছেন ৩১ শতাংশ ভোট।
সর্বশেষ ফলাফল অনুযায়ী পার্লামেন্ট নির্বাচনেও এন্দোগানের নেতৃত্বাধীন একে পার্টি এগিয়ে আছে।
দেশে দেশে সমর্থকদের উল্লাস
তুরস্কের নির্বাচনে প্রেসিডেন্ট রজব তৈয়ব এরদোগানের সাফল্যের পর  রোববার রাতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের নাগরিকরাসহ তুর্কি প্রবাসীরা রাস্তায় নেমে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন।
এসময় তারা একে পার্টি ও তুরস্কের জাতীয় পতাকা হাতে নিয়ে নেচে-গেয়ে বিজয় উদযাপন করেন।
 রোববার অনুষ্ঠিত নির্বাচনে ৫২ দশমিক ৫৫ শতাংশ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন এরদোগান।
এদিন একইসঙ্গে প্রেসিডেন্ট ও পার্লামেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। পার্লামেন্ট নির্বাচনেও সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছে এরদোগানের দল জাস্টিস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (একে) পার্টির নেতৃত্বাধীন জোট পিপলস অ্যালায়েন্স।
 বেলজিয়ামের রাজধানী ব্রাসেলসের তুর্কি-অধ্যুষিত অঞ্চলের সড়কগুলোতে প্রবাসীরা এরদোগানের সাফল্য উদযাপন করেন। আন্তর্জাতিক ডেমোক্রেটস ইউনিয়নের সদস্যরাও এই উদযাপনে অংশগ্রহণ করেন।
জার্মানিতে তুর্কি নাগরিকরাও বিপুল উৎসাহ নিয়ে রাজধানী বার্লিনের ব্যস্ততম রাস্তায় জড়ো হয়ে উল্লাস প্রকাশ করেছেন।
এসময় তারা ‘রজব তৈয়ব এরদোগান তুরস্কের সেরা’ বলে স্লোগান দেন। এছাড়াও কোলন শহরের কাছাকাছি কারপেন শহরেও একে পার্টির সমর্থকরা একত্রিত হয়ে বিজয় উদযাপন করেন।
অস্ট্রিয়ার তুর্কি নাগরিকরাও অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিযনোয়ও এরদোগানের বিজয় উদযাপন করেছেন।
ভিয়েনার একটি কনফারেন্স হলে একত্রিত হয়ে নির্বাচনের ফলাফল প্রত্যক্ষ করেন তারা। এসময় তারা তুর্কি পতাকা উড়াতে থাকেন এবং গান গেয়ে এরদোগান ও তার দলের বিজয় উদযাপন করেন।
সুইডেনসুইডেনের একে পার্টির সমর্থকরা স্টকহোমে তুর্কি দূতাবাসের নির্বাচন সমন্বয কেন্দ্রে একত্রিত হন।
তারা তুরস্ক, একে পার্টি এবং জাতীয়তাবাদী মুভমেন্ট পার্টির (এমএইচপি) পতাকা হাতে নিয়ে দূতাবাস ভবনের সামনে একত্রিত হয়ে এরদোগানের বিজয়কে উদযাপন করেন।
যুক্তরাজ্য বেসরকারিভাবে প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগানের সাফল্যের ফলাফল ঘোষণার পর প্রায় দুই শতাধিক তুর্কি নাগরিক লন্ডনের রাস্তায় নেমে উদযাপন করেন।
লন্ডনের হাইড পার্কে জড়ো হয়ে সমর্থকরা এরদোগান ও তার একে পার্টির সমর্থনে স্লোগান দেন।
আজারবাইজানের বাকুতে তুর্কি দূতাবাসের সামনে প্রবাসীরা একত্রিত বিজয় উদযাপন করেন। এসময় তারা তুর্কি জাতীয় সংগীত গেয়ে উল্লাস প্রকাশ করেন।
বসনিয়া ও হারজেগোভিনা :বসনিয়া হার্জেগোভিনার রাজধানী সারয়েভোর রাস্তায় এরদোগানের নির্বাচনের সাফল্য উৎসাহের সঙ্গে উদযাপন করা হয়।
সারায়েভোতে বসবাসরত তুর্কি নাগরিকদের পাশাপাশি বিপুল সংখ্যক বসনিযান, ফিলিস্তিনি ও ঘানার নাগরিকরাও এই উদযাপনে যোগ দেন। তারা তুর্কি ও বসনিয়ান পতাকা হাতে বিভিন্ন স্লোগান দেন।
পাকিস্তান: তুর্কি ও পাকিস্তানিরা রাজধানী ইসলামাবাদের জি-৬ সেক্টরে জড়ো হয়ে এই সাফল্য উদযাপন করেন। তারা তুর্কি ও পাকিস্তানী পতাকা নিয়ে শহর প্রদক্ষিণ শেষে ফয়সাল মসজিদের সামনে মিলিত হন।
এছাড়াও সুদান, মেসিডোনিয়া, কসোভো, আলবেনিয়া, নেদারল্যান্ড, ফ্রান্স, কাতার, লেবাননেও বিপুল উৎসাহ নিয়ে তুর্কি নাগরিকরা এই বিজয় উদযাপন করেন।
সূত্র: আনাদুলো এজেন্সি/পার্স টুডে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ