ঢাকা, বুধবার 27 June 2018, ১৩ আষাঢ় ১৪২৫, ১২ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

কেন্দ্র দখল করে জাল ভোটসহ ব্যালটে সিল মারার মহোৎসব চালিয়েছে ক্ষমতাসীন আ’লীগ

স্টাফ রিপোর্টার: গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে প্রায় সকল কেন্দ্রেই দখল-জ্বাল ভোটসহ ব্যালেট পেপারে সিলমারার মহাৎসব চলেছে বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি। গতকাল মঙ্গলবার দলের নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দিনভর পৃথক সাংবাদিক সম্মেলনে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী একথা বলেন। তিনি বলেন, ক্ষমতাসীনদের কেন্দ্র দখলের প্রতিবাদ করলে বিএনপি নেতাদের ওপর হামলা চালানো হয়। এমনকি পুলিশ নেতাকর্মীদের ওপর গুলী চালায় এবং অনেককে গ্রেফতার করে।
সাংবাদিক সম্মেলনে দলের ভাইস চেয়ারম্যান ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন, আহমেদ আজম খান, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, কেন্দ্রীয় নেতা আবদুস সালাম আজাদ, আসাদুল করীম শাহিন, শহীদুল ইসলাম বাবুল, শামসুজ্জামান সরুজ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
বেলা সাড়ে ১১ টায় কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের এক সাংবাদিক সম্মেলনে দলের জ্যেষ্ঠ যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, গাজীপুর থেকে যেসব খবর আমাদের কাছে আসছে তাতে এই পর্যন্ত শতাধিক কেন্দ্র দখল, জ্বাল ভোট প্রদান ও ব্যালট পেপারে সিল মারারা মহাৎসব উৎসব চলছে। মুন্সিপাড়া ৩ নং, ১৫ নং, ১৭ নং, ৩১ নং, ৩৫ নং, ৩৭ নং, ৪২ নং, ৪৯ নং ওয়ার্ডসহ বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে আমাদের এজেন্ট বের করে দেয়া হয়েছে। অস্ত্রের মুখে, পুলিশের হুমকির মুখে এসব কাজ করে চলছে ক্ষমতাসীনরা। এসব বিষয়ে ধানের শীষের মেয়র প্রার্থী হাসানউদ্দিন সরকারের প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট সোহরাবউদ্দিন রিটার্নিং অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ দিলেও তার কোনো প্রতিকার এখনো পাওয়া যায়নি বলে জানান রিজভী।
পুলিশ গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ভোটে ‘ক্ষমতাসীন দলের ক্যাডারের ভুমিকা’ পালন করছে বলেও অভিযোগ করেন জ্যেষ্ঠ যুগ্ম-মহাসচিব। তিনি বলেন, সরকার সুষ্ঠু নির্বাচন, ভোটাধিকার ইত্যাদিকে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য বলে মনে করে। আওয়ামী সন্ত্রাসীরা তো আছেই এর চাইতে বড় সন্ত্রাসী বানিয়ে রেখেছে পুলিশকে। নিজেদের চেতনার লোকদেরকে ঢুকিয়ে তারাই এখন আওয়ামী ক্যাডারের ভুমিকা পালন করে এক তান্ডব শুরু চালিয়েছে গোটা এলাকায়। এরকম একটি পরিস্থিতির মধ্যে নির্বাচন হচ্ছে। আমরা জানিনা পরবর্তিতে সংবাদ কী আসে।
মুন্ন টেক্সটাইল উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের বাইরে ভোটারদের বিশাল লাইন থাকলেও কেন্দ্রের ভেতর ফাঁকা বলে অভিযোগ করেন তিনি। ভোটের দিনও বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে এজেন্ট গ্রেপ্তার করার কথাও জানান রিজভী। কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য অবসরপ্রাপ্ত মেজর মিজানুর রহমানকে গভীর রাতে গুলশানের বাসা থেকে দরজা ভেঙে  পুলিশের র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ান ফোর্সের গ্রেফতারের ঘটনার নিন্দা জানান তিনি।
রিজভী বলেন, গতকাল গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন এলাকার ইউনিয়ন ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি সিরাজ উদ্দিনকে ডিবি পুলিশ গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। সে এখন কোথায় আছে তা নিশ্চিত করেনি আইন শৃঙ্খলা বাহিনী। ১৯ নং ওয়ার্ড নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সভাপতি আবুল হোসেন এর বাড়ীতে লাঠিসোটা নিয়ে হামলা করেছে আওয়ামী সন্ত্রাসীরা। মুন্সীপাড়ার মামুন বেপারীর বাড়ী তছনছ করা হয়েছে। হাড়িনালের মামুনের এবং শ্রমিক নেতা নজরুল ইসলামের বাড়িতেও হামলা চালিয়ে তছনছ করেছে আওয়ামী সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা। ছোট দেওরা পশ্চিম এলাকার ইকবাল হোসেন, সামন্তপুর কেন্দ্রের প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট আমির হোসেন, কাশিমপুর পানি শাইলের সাইফুল, টঙ্গীর আমতলীর আব্দুল আলী, মদিনাতুল উলুম মাদরাসা কেন্দ্রের প্রধান এজেন্ট মুন্না, গাছা ৩২ নং ওয়ার্ড যুবদলের সহ-সভাপতি আব্দুস সালামকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। পূবাইল বিন্দাইন ৪২ নং ওয়ার্ড বিএনপি নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব আনোয়ার হোসেনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এছাড়া পূবাইল বিন্দাইন ৪২ নং ওয়ার্ড বিএনপি নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহবায়ক জাকির হোসেন সরকারকে ব্যাপক মারধর করেছে আওয়ামী সন্ত্রাসীরা। জয়দেবপুর শহীদ স্মৃতি হাইস্কুলে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর উপস্থিতিতে ভোট কেন্দ্র ভাংচুর ব্যালট বাক্স ছিনতাই করে নিয়ে গেছে আওয়ামী সন্ত্রাসীরা।
কেন্দ্র থেকে এজেন্টদের বের করে দিয়ে ব্যালটে সীল মারা হচ্ছে এমন কেন্দ্রের তালিকা প্রকাশ করেন রিজভী। তিনি বলেন, বাসন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মোঘরখাল জামেয়া আরাবিয়া নূরীয়া আলহাজ্ব মকবুল আহমেদ মাদরাসা, বিপ্রবর্থা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, জোলারপাড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মিরেরগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মীরের গাঁও। ফাইজদ্দিন-কছিমদ্দিন ইসলামিয়া মাদরাসা ও  এতিমখানা, জয়দেবপুর। বসুরা মক্তব মাদ্রাসা, (কাদির হাজীর বাড়ীর মসজিদ সংলগ্ন) গাছা। তাকবিয়াতুল ইসলাম দাখিল মাদরাসা, শরিফপুর। অনন্ত মডেল কিন্ডার গার্টেন, শরিফপুর জিয়াশখান উচ্চ বিদ্যালয়, শরিফপুর । অনন্ত মডেল কিন্ডার গার্টেন-১(হেলাল), শরীফপুর। হাজী ফাইজ উদ্দীন পাবলিক স্কুল, ছয়দানা। আব্দুর রহমান মেমোরিয়াল স্কুল, ছয়দানা।  
তিনি বলেন, ৩৪ নং ওয়ার্ডে ৭টি ভোট কেন্দ্রের ধানের শীষের প্রার্থীর সকল এজেন্টদের বের করে দিয়েছে। ৩৫ নং ওয়ার্ডের মোট ১০টি কেন্দ্রের মধ্যে অন্ততঃ ৮ টি কেন্দ্র থেকে ধানের শীষের সকল এজেন্টকে বের করে দিয়ে নৌকা প্রতীকে গণহারে সিল মারছে। এই ওয়ার্ডের কলমেশ্বর কেন্দ্রের ধানের শীষের এজেন্ট জাহাঙ্গির, শরিফপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র থেকে ধানের শীষের এজেন্ট মোতাহারকে গ্রেফতার করেছে। ইছর সঃ প্রাঃ বিদ্যালয়, ইছর গাছা। ৩৬ নং ওয়ার্ডের ৫টি কেন্দ্রের ধানের শীষের ৪১ জন এজে›ট্টকে বের করে দিয়ে নৌকা প্রতীকে সিল মেরেছে।
অন্যান্য দখলীয় কেন্দ্রগুলো হচ্ছে, চান্দরা রহ্্মানিয়া ফাজিল (স্নাতক) মাদরাসা, কুনিয়া হাজী  আঃ লতিফ সরঃ প্রাঃ বিদ্যালয়। মির্জা ইব্রাহিম মেমোরিয়াল হাই স্কুল, মির্জা ইব্রাহিম মেমোরিয়াল হাই স্কুল, কুনিয়া শহীদ আহ্সান উল্লাহ্ মাস্টার উচ্চ বিদ্যালয়, আয়েত আলী উদয়ন একাডেমী, ল্যাংগুয়েজ উচ্চ বিদ্যালয়, খাইলকুর (বগারটেক), ৩৮ নং ওয়ার্ডে ৭টি কেন্দ্র, বাদশা মিয়া স্কুল, পূবাইল রহমানিয়া সিনিয়র মাদ্রাসা, পূবাইল আর্দশ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ, খিলগাঁও সরঃ প্রাঃ বিদ্যালয়, পূবাইল। টংগী কিন্ডারগার্ডেন, নোয়াগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, অথেনটিক স্কুল, জাগরনী উচ্চ বিদ্যালয়, এরশাদ নগর, রওশন এরশাদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, টি,ডি, এইচ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, মজিদা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, বীর মুক্তিযাদ্ধা শহীদ আহসান-উল্লাহ মাষ্টার স্কুল এন্ড কলেজ, মেধা বিকাশ আইডিয়াল স্কুল, শিরিয়া হোসেন পাবলিক স্কুল, মোহাম্মদ আলী সিকদার একাডেমী, হাজী আলমাছ আলী উচ্চ বিদ্যালয় (চানকির টেক), সাতাইশ স্কুল এন্ড কলেজ, সাতাইশ স্কুল এন্ড কলেজ, দিনদার মন্ডল আইডিয়াল স্কুল, আলহাজ চান্দু গাজী  বিদ্যানিকেতন উল্লেখযোগ্য।
রিজভী বলেন, গাজীপুরের নির্বাচনে পুলিশ ও আওয়ামী সন্ত্রাসীরা একাকার হয়ে গেছে। পুলিশ বিভিন্ন কেন্দ্রে গিয়ে বলেছে গণমাধ্যমকে কেন্দ্রে ঢুকতে দেয়া হবে না। কেন্দ্রে যাওয়ার পথে ডিবি পুলিশ ধানের শীষের এজেন্ট ও কেন্দ্র কমিটির সদস্যদের গণহারে গ্রেফতার করেছে। পুলিশ ও ডিবির সহযোগিতায় ছাত্রলীগ নৌকা মার্কায় সীল মারে। কাশিমপুর ইউনিয়নের মাধবপুর কেন্দ্রে সরকার দলীয় মেয়রের ব্যালটে সীল মারার জন্য ভোটারদের নির্দেশ দিয়েছে পুলিশ।
বিকেলে সাংবাদিকদের রিজভী বলেন, সকাল থেকে দিনব্যাপী ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা প্রায় সকল কেন্দ্রেই নৌকার পক্ষে সীল মেরেছে। এই কাজে তাদের সহযোগিতা করেছে আইনশঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। তিনি বলেন, এই সরকারের অধীনে যে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন কখনোই সম্ভব নয় সেটি আাবরো প্রমাণিত হলো।
নির্বাচন কমিশনারের সমালোচনা করে বিএনপির এই মুখপাত্র বলেন, নির্বাচন কমিশন একটা ভাঙা হাঁড়ি, হাঁড়ি যেমন ভাঙলে জোড়া লাগানো যায় না, তেমনি আমরা যতই তাদের কাছে অভিযোগ করি, বলি যে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের আয়োজন করুন, কিন্তু এই ভাঙা হাঁড়ি জোড়া লাগানো যায় না, তারা ভালো কাজ করতে চায় না।
সরকারের সমালোচনা করে রিজভী বলেন, কেড়ে নাও, দখল করো, সন্ত্রাস করো, এটাই হচ্ছে আওয়ামী লীগের চরিত্র এবং ঐতিহ্য। এর বাইরে আওয়ামী লীগ যেতে পারেনি, যাবে না।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ