ঢাকা, শুক্রবার 29 June 2018, ১৫ আষাঢ় ১৪২৫, ১৪ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

আমতলীতে যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে হত্যা ॥ স্বামী গ্রেফতার

আমতলী সংবাদদাতা: বরগুনার আমতলীতে যৌতুকের জন্য দু’সন্তানের জননী নাজমা আক্তার  (৩৫) কে পিটিয়ে হত্যা করেছে পাষন্ড স্বামী হারুন সিকদার। 

ঘটনাটি ঘটেছে, আমতলী উপজেলা গুলিশাখালী ইউনিয়নের উত্তর ডালাচারা গ্রামে।  এ ঘটনায় নাজমা আক্তারের ভাই মো. সপন হাওলাদার বাদী হয়ে হারুন সিকদার (৪০) ও তার পিতা  মৌজে আলী সিকদার (৫০) কে আসামী করে আমতলী থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।  স্থানীয়  সূত্রে জানা যায় , উপজেলার চাওড়া ইউনিয়নের চন্দ্রা গ্রামের মো.দেলোয়ার মিয়ার   মেয়ে নাজমার  সাথে উপজেলার গুলিশাখালী  ইউপির  মৌজে আলী সিকদারের পুত্র হারুন সিকদারের সাথে বিবাহ হয়। বিবাহের পর  হারুন   স্ত্রী নাজমা কে বিভিন্ন সময় যৌতুকের জন্য মারধর করত। মারধোররের কারনে  শশুর বাড়ী লোকজন হারুন কে কয়েক লক্ষ টাকা যৌতুক দেন। হারুন সিকদার ও নাজমা দম্পত্তির  মারয়িা (১২)  সজীব (১০)  নামের দুটি সন্তান রয়েছে।

নাজমার ভাই মো. সপন মিয়া  জানান,  বোনের শান্তির জন্য ১৬ বছর  ধরে যৌতুক দিতে দিতে আমারা অসহায় হয়ে পড়েছি। ঘটনার তারিখ  গত ১৭ জুন  রবিবার সকালে  নাজমার কাছে ব্যবসার জন্য এক লাখ টাকা যৌতুক চায় ভগ্নিপতি হারুন।  তখন নাজমা আর বাপের বাড়ী থেকে টাকা এনে দিতে পারবেনা বললে হারুন তাকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। 

 এ  ঘটনার খবর পেয়ে নাজমার পিতার বাড়ীর লোকজন হারুনের বাড়ী থেকে  নাজমাকে উদ্ধার করে  প্রথমে আমতলী হাসপাতালে ভর্তি করেন। সেখানে নাজমার অবস্থা গুরুতর হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য পটুয়াখালী হাসপাতালে নিয়ে যান। 

এক দিন পর নাজমা আরো অসুস্থ হয়ে পড়ায় বরিশাল শেবাচিম হাপাতালে নিয়ে যায়। বরিশাল হাসপাতালে ভর্তি থাকা অবস্থায় ২০ জুন দুপুরে নাজমা মারা যায়।  এ ঘটনায় নাজমার ভাই সপন হাওলাদার বাদী হয়ে ভগ্নিপতি হারুন সিকদার (৪০) ও তার পিতা মৌজে আলী সিকদার (৫০) কে আসামী করে হত্যা মামলা দায়ের করেন। আমতলী থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আলাউদ্দিন জানান, নাজমার ভাইর দায়েরকৃত মামলার আসামী নাজমার স্বামী হারুন সিকদার কে বুধবার দুপুরের সময় আমতলী মাছ বাজার এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ