ঢাকা, শনিবার 30 June 2018, ১৬ আষাঢ় ১৪২৫, ১৫ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

ক্ষতির পরিমাণ প্রায় হাজার কোটি টাকা

অভয়নগরের নওয়াপাড়ায় আকিজ জুট মিলের পাটের গুদামে ভয়াবহ আগুনে সকল পাট পুড়ে ছাই

মফিজুর রহমান, অভয়নগর (যশোর) থেকে : দেশের স্বনামধন্য শিল্প প্রতিষ্ঠান ও প্রথম শ্রেণির পাট ও পাটজাত পণ্যের রপ্তানীকারক শিল্প, যশোরের অভয়নগর উপজেলার বাণিজ্য ও বন্দর নগরী নওয়াপাড়ায় প্রতিষ্ঠিত আকিজ জুট মিলের ২টি পাট গুদামে ভয়াবহ অগ্নিকা-ের ঘটনা ঘটেছে। আগুন নিয়ন্ত্রণে মিলের নিজস্ব ৩টি পাম্পসহ খুলনা-যশোর ফায়ার সার্ভিসের ৫টি ইউনিট কাজ করছে। ভয়াবহ এ আগুনে ২টি গুদামের সকল পাট পুড়ে গেছে। এছাড়া দুইটি গুদাম সম্পূর্ণরূপে ব্যবহার অনুপোযোগী হয়ে পড়েছে। দেয়াল ফেটে ধ্বসে পড়েছে। গ্লাসগুলো আগুনের তাপে ফেটে চৌচির হয়েছে। ভয়াবহ এ অগ্নিকা-ের ঘটনায় গোটা উপজেলাসহ আশপাশের গ্রামাঞ্চলের লোকজনের মাঝেও আতংক ছড়িয়ে পড়েছে। ধোয়ারকুন্ডলী শহরের অপরপ্রান্ত থেকেও দেখতে পায় মানুষ। কালো ধোয়া কু-লী পাকিয়ে আকাশে মেঘের মতো কালো হয়ে দেখা দেয়। ভয়াবহ এ আগুনে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ১ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়ে যেতে পারে বলে মিলের একটি সূত্র প্রাথমিকভাবে ধারণা করেছে। বন্ধ রয়েছে বিদ্যুৎ সংযোগ। তবে কীভাবে এ ভয়াবহ অগ্নিকা-ের সূত্রপাত ঘটেছে তা প্রাথমিকভাবে জানাতে পারেনি কেউ।

প্রত্যক্ষদর্শী ও শ্রমিকরা জানান, গত বুধবার বিকাল আনুমানিক ৫টায় জুট মিলের ২৪১ শতকে নির্মিত পাট মাচাই সেড নং-৫ ও পার্শ্ববর্তী গুদামে আগুন দেখা যায়। প্রথমে পাট মাচাই সেডে এবং মূহুর্তের মধ্যে পাশের পাট ভর্তি গুদামে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে প্রথমে নওয়াপাড়া ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্স ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ শুরু করে। আগুনের তীব্রতা বেশি হওয়ায় সংবাদ দেয়া হয় যশোর, খুলনা, দৌলতপুর, মনিরামপুর ফায়ার সার্ভিসে। প্রায় ১ ঘন্টা পর ঘটনাস্থলে ওইসব ফায়ার সার্ভিস টিম এসে উপস্থিত হয় এবং আগুন নিয়ন্ত্রণে একযোগে কাজ শুরু করে। জুট মিলের নির্বাহী পরিচালক শেখ আব্দুল হাকিম ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ বা এ বিষয়ে পরে কথা বলতে চেয়েছেন। 

খুলনা সদর ফায়ার স্টেশনের সিনিয়র স্টেশন অফিসার তারেক হাসান জানান, খুলনা সদর, যশোর, দৌলতপুর, মনিরামপুর ও নওয়াপাড়া ফায়ার স্টেশনের ৫টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে। এছাড়া মিলের নিজস্ব ৩টি পানির পাম্প ব্যবহার করা হচ্ছে। আগুনের ভয়াবহতা অনেক। নিয়ন্ত্রণে সময় লাগতে পারে। আগুনের সূত্রপাত ও ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণের বিষয়ে তিনি নিশ্চিত করে কিছু জানাতে পারেননি। তদন্তপূর্বক জানানো হবে বলে জানান। 

এদিকে আগুন লাগার সংবাদ শুনে আকিজ গ্রুপের চেয়ারম্যান সেখ নাসির উদ্দিন (সিআইপি), অভয়নগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এম এম মাহমুদুর রহমান, অভয়নগর থানার ওসি শেখ গনি মিয়াসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক নেতৃবৃন্দ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়েছেন। ভয়াবহ এ অগ্নিকা-ের ফলে প্রায় ১ ঘন্টা মহাসড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ ছিল। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিসের ইউনিটগুলো। 

এদিকে, আগুনের তীব্রতা আশপাশের ভবনে ছড়িয়ে পড়ার আতংকে এলাকাবাসী নিজ নিজ ভবনে পানি মারছেন। অভয়নগর থানার ওসি শেখ গনি মিয়ার নেতৃত্বে পুলিশ বাহিনী গুদামের চারপাশে নিরাপত্তা বলয় তৈরি করে রেখেছেন এবং যানজট নিরসনে মহাসড়কে হাইওয়ে পুলিশ কাজ করছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ