ঢাকা, শনিবার 30 June 2018, ১৬ আষাঢ় ১৪২৫, ১৫ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

শাহজাদপুরে কাঁসা শিল্প বিলুপ্তির পথে

শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) : একটি কাঁসা সামগ্রীর দোকান

এম,এ, জাফর লিটন, শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) থেকে : শাহজাদপুরে বিলুপ্ত হতে চলেছে ঐতিহ্যবাহী কাঁসা শিল্প। পুঁজি ও পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে ক্রমেই হারাতে বসেছে এর চাহিদা। সরকারি সহায়াতা পেলে এ শিল্প ঘুরে দাঁড়াবে বলে আশা প্রকাশ করছেন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা। শাহজাদপুর শহরের নতুনমাটি ও দ্বারিয়াপুর বাজারে এখনও কয়েকজন ব্যবসায়ী জড়িত আছে এই শিল্পে সাথে। কাঁসার কলস, থালা, বাটি, জগ ও পিতলের আসবাবপত্র ও ঘর সাজানোর জিনিস যেন হারাতে বসেছে চাহিদা। কাঁচামালের দাম বৃদ্ধি প্লাস্টিক, মেলামাইন, সিরামিক ও স্টিলের জিনিসপত্রের ব্যবহার বেড়ে যাওয়ায় কাঁসা শিল্পের চাহিদা কমে গেছে। এ ব্যবসার সাথে যারা জড়িত আছেন তাঁদের জীবন জীবিকা চলছে বহুকষ্টে। তাই অনেকে এ পেশা ছেড়ে অন্য ব্যবসায় মনোযোগী হয়েছেন। কাঁসার বাসন তৈরিতে রং ও তামার দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় এর মূল্যও বেড়ে গেছে আশঙ্কাজনকভাবে ফলে অল্প মূল্যে স্টিল ও প্লাস্টিকের প্রতি সবাই ঝুঁকছে। যার কারণে ব্যবহার ও বিক্রি হৃাস পাওয়ায় যুগের সাথে পাল্লা দিতে পারছেনা কাঁসা শিল্প। তাই এ শিল্পকে বাঁচাতে কাঁচামাল রং ও তামা সহজ শর্তে আমদানীতে সরকারের সহযোগিতা প্রয়োজন। কাঁসা ও পিতলের বাসন সামগ্রী ঢাকা ও চট্টগ্রাম থেকে আনতে হয় খরচও বেশি পড়ে তাই শাহজাদপুরের ব্যবসায়ীরা খরচ বেশি হওয়ায় ব্যবসা ভাল করতে পারছেনা। দ্বারিয়াপুর বাজারের ব্যবসায়ী আব্দুস সালাম জানান, তিনি ৪৫ বছর ধরে এই ব্যবসার সাথে জড়িত আছেন। শুধু স্মৃতি ও ঐতিহ্য ধরে রেখেছেন কোনো কোনো দিন একটাকাও কেনাবেচা হয়না। তাই এই ব্যবসায় জড়িত থেকে সংসার চালানো কঠিন হয়ে পেরেছে। তাই তিনিও এই ব্যবসার পাশে অন্য পণ্য বিক্রি করে জীবিকা চালাচ্ছেন। শুধু হিন্দুদের বিবাহ অনুষ্ঠানে এই কাঁসার বাসন কোসন বিক্রি হচ্ছে। তাই মাসের বেশি সময় বিক্রি হয় না। যুগের সাথে খাপ খাওয়াতে না পেরে অনেক জায়গায় কারখানাও বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। তবে কাঁসার বাসন সামগ্রী তৈরি করতে আধুনিক যন্ত্রাংশ পাওয়া যাচ্ছে। সরকার যদি বিদেশ থেকে আধুনিক যন্ত্রাংশ সহজ শর্তে আমদানী করতে পারে তাহলে তৈরি খরচও কম হবে। ক্রেতাদের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যেও চলে আসবে। তাই ঐতিহ্যবাহী এই কাঁসা শিল্প টিকিয়ে রাখতে সরকারী পৃষ্ঠপোষকতা প্রয়োজন। তবেই শাহজাদপুরের এই কাঁসা শিল্প ক্রয় বিক্রয় বেড়ে যাবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ