ঢাকা, শনিবার 30 June 2018, ১৬ আষাঢ় ১৪২৫, ১৫ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

দক্ষ বিমান প্রকৌশলী হতে চাইলে

উড়োজাহাজ এক অর্থে পৃথিবীর সমগ্র মানুষকে একসূত্রে গেঁথেছে এবং বিশ্বকে একটি ‘বৈশ্বিক গ্রামে’ পরিণত করেছে। পৃথিবীর বেশিরভাগ দেশে এই আকাশযানের রক্ষণাবেক্ষণ, ব্যবস্থাপনা, উড্ডয়ন, প্রশিক্ষণ উৎপাদন, বাজারজাতকরণের জন্য প্রতিষ্ঠান, শিল্প, প্রশিক্ষক, প্রকৌশলী রয়েছেন। এরমধ্যে বাংলাদেশে এএমই বা বিমান প্রকৌশলীর সংখ্যা খুবই নগণ্য। অদূর ভবিষ্যতে উড়োজাহাজ ও এয়ার লাইন্সের সংখ্যা আরো শতগুণে বর্ধিত হবে, সুতরাং এর রক্ষণাবেক্ষণ প্রকৌশলী বা মেইনটেনেন্স ইঞ্জিনিয়ারও শত শত প্রয়োজন হবে। এই বাস্তবতায় অর্থাৎ এই সেক্টরের সমৃদ্ধ ভবিষ্যৎ বিবেচনায়, কয়েকজন অবসরপ্রাপ্ত অভিজ্ঞ ও দক্ষ এএমইর দূরদর্শী পরিকল্পনায় তথা উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত হয় ‘অ্যারোনটিক্যাল ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশ’ (AIB) নামক একটি যুগান্তকারী ইনস্টিটিউট। আজ থেকে প্রায় এক দশক আগে, ১৯৯৯ সালে কয়েকজন এএমইর বিমান প্রকৌশলী তৈরির স্বপ্ন পূরণের লক্ষ্যে উত্তরা মডেল টাউনে এটি স্থাপিত হয়। উল্লেখ্য যে, প্রতিষ্ঠানটি অ্যাভিয়েশন সেক্টরের বিভিন্ন প্রশিক্ষণমূলক কার্যক্রম অত্যন্ত সাফল্যের সাথে পরিচালনা করে আসছে। এএমই কারিকুলাম অ্যারোস্পেস ও অ্যাভিওনিক্স নামের দুটি ফ্যাকাল্টিতে বিভক্ত। এআইবির ইংরেজি মাধ্যমে প্রশিক্ষণ প্রদান ও সুপার টেকনোলজির অ্যারোনটিক্যাল শিক্ষার সংযোজন এর মানকে বিশ্বের দরবারে আরো প্রতিষ্ঠিত করেছে। বিশেষ করে এর রয়েছে আধুনিক প্রশিক্ষণ সামগ্রীতে সমৃদ্ধ ল্যাব, ওয়ার্কশপ ও ওয়াইফাই সুবিধা সংবলিত আধুনিক ক্যাম্পাস ও বিভিন্ন এয়ার লাইন্সে ইন্টার্নশিপ করার সুযোগ। একই সাথে দূরের শিক্ষার্থীদের জন্য রয়েছে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় পরিচালিত সুলভ হোস্টেল। হাতে কলমের ৪ বছরের কারিগরি শিক্ষা সুসম্পন্নের পর এয়ারলাইন্সে উড্ডয়নযোগ্য উড়োজাহাজে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়। এতে এএমইর প্রাথমিক কাজগুলো জাতীয় ও আন্তর্জাতিক মান অর্জন করে। উত্তরা ১৩ নং সেক্টরের লেক সংলগ্ন প্রাকৃতিক মনোরম পরিবেশে অবস্থিত এই প্রতিষ্ঠানটি বিমান বন্দর নিয়ন্ত্রণকারী সরকারি সংস্থা সিভিল অ্যাভিয়েশন অথরিটি অব বাংলাদেশ কর্তৃক অনুমোদিত এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ বাংলাদেশ টেকনিক্যাল এডুকেশন বোর্ড কর্তৃক স্বীকৃত। যার কলেজ কোড ৫০১৫৮।
(বিস্তারিত জানতে ০১৯৪০১০০১০০) এর অধিকাংশ প্রশিক্ষক/ শিক্ষকই CAAB প্রদত্ত সনদ প্রাপ্ত। তাছাড়া বাংলাদেশ বিমান বাহিনী ও বাংলাদেশ বিমানের অবসরপ্রাপ্ত প্রশিক্ষক ও প্রকৌশলীদের অনেকেই প্রতিষ্ঠানটির সাথে সম্পৃক্ত রয়েছেন। -শিরি

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ