ঢাকা, রোববার 1 July 2018, ১৭ আষাঢ় ১৪২৫, ১৬ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

ঢাকা থেকে শিশু অপহরণের ৩ দিন পর মাদারীপুর থেকে উদ্ধার

মাদারীপুর সংবাদদাতা: ঢাকার মোহাম্মদপুর থেকে নিহান নামে ৩ বছরের একটি শিশুকে অপহরণের ৩ দিন পর মোহাম্মদপুর থানা পুলিশ মাদারীপুরের শিবচর থেকে সোমবার সকালে উদ্ধার করেছে। এর আগে আটক করা হয় খায়রুন বেগম নামের শিশু অপহরণকারীকে। নিহানকে ৩০ হাজার টাকায় এক নিঃসন্তান দম্পতির কাছে বিক্রি করেছিলো বলে খায়রুন পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে।
পুুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, ঢাকার মোহাম্মদপুর এলাকায় ভাঙ্গারী দোকানের কর্মচারী বিল্লাল হোসেন ও তার স্ত্রী গার্মেন্টস শ্রমিক মাহিনুর ৩ বছরের শিশু সন্তান নিহানকে নিয়ে একটি বাসায় ভাড়া থাকতেন। তাদের পাশের রুমেই খাইরুন বেগম (৪০) নামের এক মহিলা ভাড়া থাকার সুবাদে তাদের বাসায় ছিল অবাধ যাতায়াত। দুই পরিবারের মাঝে তৈরি হয় সুসম্পর্ক। গত শনিবার সকালে শিশু নিহানকে খায়রুনের বাসায় রেখে বিল্লাল ও তার স্ত্রী মাহিনুর কাজে চলে যায়। দুপুরে বাসায় ফিরে নিহানকে বাসায় না দেখে মাহিনুর ও বিল্লাল ভয় পেয়ে যায়। অনেক খোঁজাখুজির পর না পেয়ে রোববার খাইরুনকে আসামী করে মোহাম্মদপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করেন শিশুটির পরিবার। পুলিশ মোবাইল ট্রাকিংয়ের মাধ্যমে রোববার ঢাকা থেকে খাইরুনকে আটক করে। পুলিশী জিজ্ঞাসাবাদে খাইরুন শিশু নিহানকে মাদরীপুরের শিবচরে তার এক ফুপাতো বোন (নিঃসন্তান) লাকি বেগমের কাছে ৩০ হাজার টাকায় বিক্রি করেছে বলে স্বীকার করে। সে পুলিশকে আরো জানায়, শনিবার মুন্সিগঞ্জের মাওয়া থেকে লাকি ও তার বোন সাথি টাকা দিয়ে শিশু নিহানকে নিয়ে গেছে। সোমবার সকালে পুলিশ শিবচরের উমেদপুর ইউনিয়নের চান্দেরচর গ্রামে লাকির বাড়িতে অভিযান চালিয়ে শিশু নিহানকে উদ্ধার করে। এসময় লাকি ও তার পরিবারের লোকজন পালিয়ে যায়। সোমবার বেলা ১২ টার দিক এসআই মুকুল রঞ্জনের নেতৃত্বে মোহাম্মদপুর থানা পুলিশের একটি দল শিশুটিকে নিয়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হয়। শিশুটির মা মাহিনুর বেগম বলেন, খায়রুন আমার পাশের বাসায় থাকার সুযোগে আমার সন্তানকে অনেক যত্ন ও খেয়াল রাখতো। এভাবেই সে আন্তরিকতা বাড়িয়ে আমার সন্তানকে অপহরণ করে করে তার বোনের কাছে বিক্রি করেছিল। পুলিশ সচেষ্ট হয়ে আমার বাচ্চাকে শিবচর থেকে উদ্ধার করে দিয়েছে। এ জন্য আমি পুলিশের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই। মোহাম্মদপুর থানার এসআই মুকুল রঞ্জন বলেন, শিশুটিকে টাকার বিনিময়ে বিক্রি করেছিল খাইরুন। শিশুটিকে শিবচর থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। এ ব্যাপারে মামলা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ