ঢাকা, সোমবার 2 July 2018, ১৮ আষাঢ় ১৪২৫, ১৭ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

নারী ও শিশু পাচার রোধে ট্রাইবুনাল গঠনের দাবি

রংপুর অফিস: ‘মানব পাচার প্রতিরোধ ও দমন আইন ২০১২ বাস্তবায়ন’সহ নারী-শিশু পাচারে জড়িত অপরাধ চক্রের দ্রুত বিচারে বিশেষ ট্রাইব্যুনাল গঠনের জন্য দাবি জানিয়েছে বেসরকারি সংগঠন নারী মৈত্রী।
এজন্য শিশুপাচার বন্ধে ও শিশু সুরক্ষায় প্রশাসনের নিয়মিত মনিটরিংয়ের পাশাপাশি জনপ্রতিনিধিদের দায়িত্বশীল ভুমিকা পালনের আহ্বান জানিয়েছে সংগঠনটি। সম্প্রতি রংপুর রিপোর্টার্স ক্লাব মিলনায়তনে ”শিশু পাচার ও শিশুর প্রতি সকল প্রকার সহিংসতা রোধ” শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানানো হয়।
পিসিটিএসসিএম-নারী মৈত্রীর প্রজেক্ট এর কো-অর্ডিনেটর মোমেনুল হক মোমেন সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলেন,  দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশে তুলনামূলকভাবে মানব পাচার বেড়ে চলেছে। বিশেষ করে নারী ও শিশুরা এই চক্রের শিকার হচ্ছে।
কর্মসংস্থানের অভাব, বেকারত্ব ও দারিদ্রতার সুযোগে একটি আর্ন্তজাতিক চক্র বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে গ্রামগঞ্জের শহরমূখী নারী ও শিশুদের পাচার করছে। পাচার হওয়া নারী-শিশু ও কিশোরদের দেশ ও দেশের বাইরে পাঠিয়ে তাদেরকে যৌন অপরাধে জড়ানোর পাশাপাশি মাদক বিক্রি, মাদককারবারি, মাদক সেবন, চুরি-ডাকাতি-ছিনতাইসহ ঝুঁকিপূর্ণ কাজ করতে বাধ্য করা হচ্ছে। দেশের সীমান্তবর্তী এলাকাগুলো থেকে মানব পাচারের ঘটনা বেশি ঘটছে বলেও জানান তিনি। 
সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন রিপোর্টার্স ক্লাবের সভাপতি আব্দুল হালিম আনছারী, সাধারণ সম্পাদক শাহ্ বায়েজীদ আহম্মেদ, এ্যাডভোকেট গোলাম মাওলা চৌধুরি প্রমুখ।
সংবাদ সম্মেলন থেকে নারী-শিশু পাচার রোধ ও শিশু সুরক্ষা নীতিমালা বাস্তবায়নে প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি ও গণমাধ্যমকে সামাজিক দায়বদ্ধতার অংশ হিসেবে আরো জোরোলো ভূমিকা পালনের আহ্বান জানানো হয়। এসময় ২০১২ সালের প্রস্তাবিত মানবপাচার প্রতিরোধ ও দমন আইন বাস্তবায়ন ও ভুক্তভোগীদের জন্য তহবিল গঠনে সরকারের মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্টদের প্রতি দাবি জানায় নারী মৈত্রীর কর্মকর্তারা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ