ঢাকা, মঙ্গলবার 3 July 2018, ১৯ আষাঢ় ১৪২৫, ১৮ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

মেক্সিকোকে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে ব্রাজিল

ব্রাজিলের জয়ের নায়ক নেইমার। নিজে গোল করলেন আবার অন্যকে দিয়েও গোল করিয়ে দলকে জয়ী করলেন

রফিকুল ইসলাম মিঞা : রাশিয়া বিশ্বকাপে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে পাঁচবারের চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল। চ্যাম্পিয়নদের মতোই খেলে দলটি হারাল মেক্সিকোকে। গতকাল নকআউট পর্বে ব্রাজিল ২-০ গোলে মেক্সিকোকে বিদায় করে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে। ম্যাচে প্রথমার্ধে কোন দল গোল করতে না পারলেও বিরতির পর মাঠে নেমেই পাল্টে যায় ব্রাজিল। আর নেইমারের গোলে এগিয়ে যায় ব্রাজিল। খেলার শেষ দিকে ফিগমিনহো একটি গোল করলে ২-০ গোলের বড় ব্যবধানে জয়ী হয় নেইমাররা। আর ব্রাজিলের কাছে হেরে টানা সপ্তমবারের মতো দ্বিতীয় রাউন্ড থেকে বিদায় নিতে হলো মেক্সিকোকে। অবশ্য এই ম্যাচে মাঠে নামার আগে টেনশনটা বেশি ছিল নেইমারদেরই। কারণ একের পর এক চ্যাম্পিয়নদের বিদায়ে আতঙ্কে ছিল ফেভারিটরাই। অনেকেই ধরে নিয়ে ছিল রাশিয়া বিশ্বকাপটা হয়তো বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের জন্য নয়। কারণ প্রথম পর্বে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন জার্মানির বিদায়। নকআউট পর্বে রানার্স আপ আর্জেন্টিনা আর সাবেক চ্যাম্পিয়ন স্পেনের বিদায়ের পর হয়তো ব্রাজিলের বিদায়ের পালা ছিল। তবে শেষ পর্যন্ত পাঁচবারের চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল ঠিকই নিজেদের সেরা প্রমান করে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করল। আর ব্রাজিলের বিপক্ষে প্রথমার্ধে আশাজাগানিয়া খেলেও বরাবরের মতো কোয়ার্টার ফাইনালের আগেই দেশের টিকিট ধরতে হচ্ছে মেক্সিকোকে।
গতকাল গুরুত্বপূর্ণ এই ম্যাচে প্রথমার্ধে কিন্তু গোল করতে পারেনি কোন দলই। যদিও দু-দলই একের পর এক আক্রমন আর পাল্টা আক্রমণে গেয়েছে বেশ কয়েক বার। মেক্সিকোর প্রবল গতির জবাব শুরুতে না দিলেও সময়ের সাথে সাথে জ্বলে উঠেছে ব্রাজিলও। অবশ্য মেক্সিকো শুরুতে গোলের সুযোগ পেয়েছে। এরপর একের পর এক আক্রমণের সুযোগ তৈরি করেও ব্রাজিল গোল পায়নি। ফলে খেলার প্রথমার্ধ গোল শুন্যই থাকে দু-দল। তবে ম্যাচের দুই মিনিটে আক্রমণ করে বসে মেক্সিকো। ডান পাশ থেকে ডি বক্সের বাইরে লোজানোর শট মিরান্ডার গায়ে লেগে প্রতিহত হয়। ৫ মিনিটে প্রথম আক্রমণে যায় ব্রাজিল। তবে ২০ গজ দূর থেকে নেইমারের নেয়া দুর্দান্ত শট রুখে দেন কিপার ওচোয়া। মাঝে পুরো আধিপত্য বিস্তার করে খেলতে থাকে মেক্সিকো। তাদের আক্রমনের পার আক্রমণে দিশেহারা হয়ে পড়ে ব্রাজিলের রক্ষণভাগ। কিন্তু সফল আক্রমণে যেতে পারেনি মেক্সিকানরা। না হলে গোল কিন্তু আগেই পেতে পারত দলটি। তবে ম্যাচের ২৫ মিনিটে ডি বক্সের ভেতর দু’জনকে কাঁটিয়ে জোরালো শট নেন নেইমার। কিন্তু ওচোয়া আরো একবার বাধা হয়ে দাঁড়ান ব্রাজিলের সামনে। ৩২ মিনিটে কৌতিনহোর শটকেও রুখে দেন মেক্সিকোর কিপার ওচোয়া। ৩৯ মিনিটে ডি বক্সের বাইরে নেইমারকে ফাউল করলে রেফারি ফ্রি-কিকের সিদ্ধান্ত দেন। তবে নেইমারের ফ্রি-কিকটি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। ফলে বিরতির আগে খেলা গোলশূন্য ড্র থাকে। বিরতির পর খেলা শুরু হলে গোলের নেশায় মেতে উঠে নেইমারের ব্রাজিল। আর সফলও হয় দলটি। খেলার ৫১ মিনিটে গোল করে দলকে এগিয়ে দেন নেইমারই। খেলার ৫১ মিনিটে মাঝমাঠ থেকে বল পেয়ে ডি বক্সের সামান্য বাইরে উইলিয়ানকে ব্যাক পাস দেন নেইমার। উইলিয়ান বল নিয়ে ভেতরে ঢুকে অসাধারন একটি পাস দিলে বলে পা লাগিয়ে গোল করেন নেইমার। ফলে ১-০ গোলে এগিয়ে যায় ব্রাজিল। বিশ্বকাপে এটি নেইমারের দ্বিতীয় গোল। এক গোলে পিছিয়ে পড়ে গোল পরিশোধের জন্য মরিয়া ছিল মেক্সিকো। কিন্তু মেক্সিকো গোল পরিশোধের সুযোগ না পেলেও খেলার শেষ বাশি বাজার আগে আরো একটি গোল করে ব্রাজিল। ফলে নেইমারের দলটি এগিয়ে যায় ২-০ গোলে। খেলাল ৮৮ মিনিটে দলের পক্ষে এই গোলটি করেন ফিরমিনহো। নেইমার প্রথম গোল করে দলতে এগিয়ে দেয়ার পাশাপাশি ফিরমিহোকে দিয়েও শেস গোলটা করালেন। বাকি সময়ে মেক্সিকো কোন গোল করতে না পারলে ২-০ গোলে জয়ী হয়ে মাঠ ছাড়ে ব্রাজিল।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ