ঢাকা, মঙ্গলবার 3 July 2018, ১৯ আষাঢ় ১৪২৫, ১৮ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

গত তিন মাসে খুলনা বিভাগে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৯২ আহত ৪৩২

খুলনা অফিস : গত তিন মাসে (এপ্রিল মে ও জুন) খুলনা বিভাগে সড়ক দুর্ঘটনায় ৯২ জন নিহত ও ৪৩২ জন আহত হয়েছে। এর মধ্যে খুলনা মহানগরীতে নিহত ৭ জন ও আহত ১৭৮ জন, খুলনা জেলায় নিহত ১৭ জন ও আহত ২১২ জন, বাগেরহাটে নিহত ১১ জন ও আহত ৪৫জন, সাতক্ষীরায় নিহত ১১ জন ও আহত ৩০জন, যশোরে নিহত ২৪ জন ও আহত ৪৭ জন, ঝিনাইদহে নিহত ১৯ জন ও আহত ৩৪ জন, মাগুরায় নিহত ৩ জন আহত ৯ জন চুয়াডাঙ্গায় নিহত ৪ জন ও আহত ৮ জন, কুষ্টিয়ায় নিহত ১ জন ও আহত ১৯ জন, মেহেরপুরে নিহত ১ ও আহত ১৫ জন, নড়াইলে নিহত ১ ও আহত ১৩ জন (সূত্র-আঞ্চলিক ও জাতীয় পত্রিকা সমূহ)। খুলনা বিভাগের সড়ক দুর্ঘটনার তথ্য ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সড়ক দুর্ঘটনারোধে করণীয় বিষয়ে অনুষ্ঠিত সাংবাদিক সম্মেলনে নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) খুলনা জেলার নেতৃবৃন্দ এ তথ্য জানান। গতকাল সোমবার দুপুরে খুলনা প্রেস ক্লাবের শহিদ হুমায়ুন কবির বালু মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নিসচা’র খুলনা জেলা শাখার উপদেষ্টা ও সদর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট মো. সাইফুল ইসলাম। সম্মেলনে স্বাগত বক্তব্য রাখেন নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা)’র কেন্দ্রিয় কমিটির সদস্য ও খুলনা জেলা সাধারণ সম্পাদক এসএম ইকবাল হোসেন বিপ্লব।
সম্মেলনে জানানো হয়, বর্তমানে সারাদেশে বিভিন্ন কারণে সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে থাকে। সড়ক দুর্ঘটনা সব সময়ই আমাদের দেশে একটি বড় ধরনের সামাজিক সমস্যা। গত তিন মাস আগে (জানুয়ারি-মার্চ) মাসের পরিসংখ্যান দিয়েছিলাম। খুলনা মহানগরীতে সড়ক দুঘটনা দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। খুলনা মহানগরীতে সড়ক দুঘটনার অন্যতম কারণ বেপরোয়া মহেন্দ্র, মোটর সাইকেল, ইঞ্জিন চালিত রিকশা, অপরিকল্পিত ইজিবাইক এবং দিনের বেলা নগরীতে ট্রাক চলাচল। এছাড়াও রাস্তার পাশে ইট বালু রাখা, ট্রাফিক আইন লঙ্ঘন ইত্যাদি। পাশাপাশি খুলনা বিভাগের মধ্যে যশোরে দুর্ঘটনার হার বেশি এবং নিহত-আহতের সংখ্যাও বেশি। দুর্ঘটনার হার কম ছিল নড়াইল জেলায়। বিগত জানুয়ারি-মার্চ মাসে খুলনা বিভাগে সড়ক দুর্ঘটনায় মোট নিহত হয় ৬৯ জন।
সাংবাদিক সম্মেলনে দুর্ঘটনারোধে কিছু নিদের্শনা তুলে ধরা হয়। যার মধ্যে রয়েছে-মোবাইলে কথা বলতে বলতে রাস্তা পার হবেন না, রাস্তা চলাচলের সময় ডান পাশ দিয়ে হাটুন, আমি আপনি সচেতন হলে সড়ক দুর্ঘটনা যাবে কমে, গাড়িতে উঠে চালককে তাড়াতাড়ি যেতে বলবেন না, বাসের ছাদে বা অতিরিক্ত যাত্রী হয়ে গাড়িতে উঠবেন না, ট্রাফিক আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হোন এবং উলটা পথে চলা থেকে বিরত থাকুন, ট্রাফিক আইন, রোড সাইন না মেনে গাড়ি চালাবেন না, অতিরিক্ত গতিতে গাড়ি চালাবেন না, হেলমেট ছাড়া এবং ফুটপাত দিয়ে গাড়ি চালাবেন না, গাড়ি চালানোর পূর্বে ব্রেক, লাইট, হর্ণ চেক করুন, প্রশিক্ষণবিহীন বা হেলপার দ্বারা গাড়ি চালাবেন না। একই সাথে সড়ক দুর্ঘটনারোধে প্রধানমন্ত্রী যে নিদের্শনা দিয়েছেন তার বাস্তবায়নের দাবি জানানো হয়।
এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন-সুশাসনের জন্য নাগরিক-সুজনের খুলনা জেলা সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট কুদরত-ই-খুদা, নিসচা’র জেলা উপদেষ্টা ও খুলনা প্রেস ক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মামুন রেজা, জেলা সভাপতি মে. হাছিবুর রহমান হাছিব, খুলনা নাগরিক সমাজের সদস্য সচিব এডভোকেট মো. বাবুল হাওলাদার, বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির যুগ্ম-মহাসচিব আফজাল হোসেন রাজু, খুলনা উন্নয়ন ফোরমের মহাসচিব এমএ কাশেম, বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন আন্দোলনের চেয়ারম্যান শেখ মো. নাসির উদ্দিন, নিসচা’র জেলা সহ-সভাপতি মো. সেলিম খান, সহ-সাধারণ সম্পাদক খাইরুল ইসলাম জনি, হোসাইন মো. ইউছা ওয়ায়েজ আররাফী নাজু, নিসচা’র দপ্তর সম্পাদক এম মোস্তফা কামাল, সদস্য  মো. মাসুদ রানা, রাকিবউদ্দিন ফরাজী, শিরিনা আক্তার, জুবাইদা নওশিন প্রমুখ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ