ঢাকা, মঙ্গলবার 3 July 2018, ১৯ আষাঢ় ১৪২৫, ১৮ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

খুলনায় শতভাগ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মিড ডে মিল চালু

খুলনা অফিস : খুলনা বিভাগের শতভাগ স্কুলে মিড ডে মিল চালু করা হয়েছে। বিভাগের ৮ হাজার ১৬০টি স্কুলের সবকটিতেই এই ব্যবস্থা চালু থাকার রিপোর্ট রয়েছে বিভাগীয় উপ-পরিচালকের কার্যালয়ে। কর্মকর্তারা বলছেন প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী শতভাগ স্কুলে মিড ডে মিল চালু করা হয়েছে।
জানা গেছে, খুলনা বিভাগের ৬০টি উপজেলায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে ৮ হাজার ১৬০টি। তার মধ্যে খুলনা জেলার ১০টি উপজেলায় ১ হাজার ১৫৪টি, বাগেরহাটের ৯টি উপজেলায় ১ হাজার ১৬২টি, সাতক্ষীরার ৭টি উপজেলায় ১ হাজার ৯৩টি, যশোরের ৮টি উপজেলায় ১ হাজার ২৮৯টি, ঝিনাইদহের ৬টি উপজেলায় ৯০৬টি, মাগুরার ৪টি উপজেলায় ৫০৩টি, কুষ্টিয়ার ৬টি উপজেলায় ৮০৫টি, চুয়াডাঙ্গার ৪টি উপজেলায় ৪৪৫টি, নড়াইলের ৩টি উপজেলায় ৪৯৫টি এবং মেহেরপুর জেলার ৩টি উপজেলায় ৩০৮টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে।
বিদ্যালয়গুলোতে শতভাগ মিড ডে মিল চালু রয়েছে বলে শিক্ষা প্রশাসনের মাঠ পর্যায়ের প্রেরিত প্রতিবেদনে জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী সকল স্কুলে মিড ডে মিল চালু করা হয়েছে। স্কুলের শিক্ষার্থীদের স্কুল থেকে খাবার সরবরাহ করা হবে না। শিক্ষার্থীদের টিফিন বক্সে বাসা থেকে তাদের পছন্দমত খাবার আনতে হবে। এ জন্য শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের সচেতন করা হয়। আর যে সকল শিক্ষার্থীর অভিভাবকরা একেবারেই টিফিন বক্সও কিনে দিতে পারে না তাদের স্কুলের পক্ষ থেকে টিফিন বক্স সরবরাহ করা হয়। যার ফলে শিক্ষার্থীরা যে যার মতো বাসা থেকে চাহিদা ও পছন্দমতো খাবার নিয়ে আসে। স্কুলের বিরতির সময়ে সহপাঠিরা একসাথে বসে তাদের খাবার খেতে পারে।
খুলনা সদর থানা শিক্ষা অফিসার মো. আমিনুল ইসলাম বলেন, সকল বিদ্যালয়ে মিড ডে মিল চালুর বিষয়ে সরকারের প্রতিশ্রুতি রয়েছে। সে অনুযায়ী স্কুল শিক্ষার্থীরা টিফিন বক্সে যার যার পছন্দমত খাবার বাসা থেকে নিয়ে আসে। আর যে সকল শিক্ষার্থীর টিফিন বক্সও নেই তাদের টিফিন বক্স সরবরাহ করা হয়।
খুলনা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রমেন্দ্র নাথ পোদ্দার বলেন, শিক্ষার্থীরা মিড ডে মিল চালুর মাধ্যমে একসাথে স্কুলে আনন্দের সাথে খাবার খেতে পারে। তবে জেলার শতভাগ স্কুলে এখনও হয়নি। কিছুটা কম রয়েছে। খুব তাড়াতাড়ি সেগুলোতে চালু হবে। এ ব্যাপারে প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগের বিভাগীয় উপ-পরিচালক মেহেরুন নেছা বলেন, মিড ডে মিল চালুর বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি রয়েছে। এ কারণে অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে সকল স্কুলে মিড ডে মিল চালু করা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ