ঢাকা, মঙ্গলবার 3 July 2018, ১৯ আষাঢ় ১৪২৫, ১৮ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

শাহজাদপুরে কথিত পীরের আস্তানা মিনি পতিতালয়

শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) সংবাদদাতা: সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার ডায়া গ্রামের টনক খুলু ওরফে আব্দুল কাদের কথিত পীরের আড়ালে দীর্ঘদিন ধরে নিজ বাড়ীতে বহিরাগত পতিতা এনে দেহ ব্যবসা চালিয়ে আসছে। গত শুক্রবার রাতে জনতার হাতে পীরের  ছেলে ফারুকের বিল্ডিংয়ের একটি কক্ষে আপত্তিকর অবস্থায় জনতার হাতে আটক হয় টনক খুলু ওরফে কাদের পীর। এসময় বাড়ীর বিভিন্ন  কক্ষে অভিযান চালিয়ে পতিতা রুপা বেগম (৩০) এবং খদ্দর এরশাদ (৪৫) কে আটক করলে অপর একজন পতিতা ও খদ্দের পালিয়ে যায়। এ সময় জনতার রোষানলে পরে কথিত পীর কাদের পেটের বেদনা দেখিয়ে কৌশলে পালিয়ে যায়। সরেজমিনে ঘুরে স্থানীয়দের মারফত জানা যায়, শুক্রবার সন্ধ্যার পর একটি অটো রিক্সাযোগে দুইজন খদ্দর আর দুইজন পতিতা কথিত পীর কাদেরের বাড়ীতে প্রবেশ করে। গতিবিধি সন্দেহ হলে স্থানীয়রা তাঁদের আটকের  সিদ্ধান্ত নেয়  পরে সংঘবদ্ধ জনতা কথিত পীরের বাড়ীতে প্রবেশ করলে পীর টনক খুলু ওরফে কাদেরকে পতিততার সাথে আপত্তিকর অবস্থায় শুয়ে থাকতে দেখে। সংবাদ পেয়ে শাহজাদপুর থানা পুলিশের এস আই তৈয়ব আলী এএস আই বিশ্বাস ঘটনাস্থল থেকে পতিতা ও খদ্দরকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। উল্লেখ্য এক যুগের বেশি সময় ধরে  কথিত পীর কাদের পাশ্ববর্তী পোরজনা গ্রাম থেকে  ডায়াতে এসে বাড়ী ঘর করে বসবাস শুরু করে। হঠাৎ পীর বনে গেলে বিভিন্ন অঞ্চল থেকে বহিরাগত নারী-পুরুষ ঐ বাড়ীতে  নিয়মিত আসা যাওয়া শুরু করে। বছরে দু একবার বড় ধরনের ওরশ বা বাউল গানের আসর বসালেও তা ছিল লোক দেখানো। পীরের আড়ালে বাড়ীতে বহিরাগত পতিতাদের  এনে টেলিফোনে খদ্দের এনে রমরমা ব্যবসা  চালাচ্ছে। মদ ও গাঁজার ব্যবসা চালিয়ে আসার অভিযোগও রয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে। অসামাজিক কার্যকালাপ দীর্ঘদিন ধরে চালালেও, স্থানীয়রা নিষেধ করলে সে সব অস্বীকার করে দাম্ভিকতার সাথে বলে আমার বাড়ীতে আমি যা ইচ্ছা তাই করবো অন্য লোকের কি।  জনতার হাতে নাতে আটকের ঘটনায় এলাকায় দারুণ চাঞ্চেল্যর সৃষ্টি হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ