ঢাকা, বুধবার 4 July 2018, ২০ আষাঢ় ১৪২৫, ১৯ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

সরকার কোটা আন্দোলনকারীদের সাথে প্রতারণা করেছে -আমির খসরু

গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে বাংলাদেশ ইয়ুথ ফোরামের উদ্যোগে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের উপর পুলিশ ও ছাত্রলীগের পৈশাচিক হামলার প্রতিবাদ এবং অবিলম্বে কোটা পদ্ধতি বাতিলের দাবিতে আয়োজিত প্রতিবাদী যুব সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার: সরকারি চাকরিতে কোটা বাতিল বিষয়ে ঘোষণা দিয়েও এতোদিন তা রক্ষা না করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শিক্ষার্থীদের সঙ্গে প্রতারণা করেছেন বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি নেতা আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী।
গতকাল মঙ্গলবার বাংলাদেশ ইয়ুথ ফোরামের উপদেষ্টা মেহেদী হাসান পলাশের সভাপতিত্বে এক আলোচনা অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপি’র যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মোহাম্মদ রহমতুল্লাহ, কৃষক দলের নেতা শাহাজান মিয়া সম্রাট প্রমুখ।
আমির খসরু বলেন, যদি কেউ পবিত্র সংসদে দাঁড়িয়ে কোন সিদ্ধান্ত নেন, সেই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করা তার দায়িত্ব। কিন্তু বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ছাত্রদের সঙ্গে প্রতারণা করেছেন।
ছাত্রদের আন্দোলনের মুখে গত ১১ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রী সংসদে ঘোষণা দেন কোটা থাকবে না। এরপর ২ মে সাংবাদিক সম্মেলন এবং সবশেষ গত ২৭ জুন সংসদে একই কথা বলেছেন। তবে এই বিষয়টি দীর্ঘদিন ধরে চালু আছে জানিয়ে এটি বাতিলের প্রক্রিয়ার জন্য সময় লাগবে বলে জানান তিনি।
এরিই মধ্যে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সাত সদস্যের একটি কমিটি করেছে যাদেরকে ১৫ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।
আমির খসরু বলেন, প্রতিনিয়ত এ ধরনের প্রতারণা চলছে। তাতে দেশের শুধু এই ছাত্র সমাজ মেধাহীন হচ্ছে তা নয়। তাতে মেধাবী বাংলাদেশ গড়ে উঠছে না বরং বঞ্চিত হচ্ছে।
তিনি বলেন, ছাত্ররা আন্দোলন করেছে কোটা সংস্কারের জন্য যাতে করে বাংলাদেশের আগামী প্রজন্মের ভবিষ্যৎ উন্মুক্ত থাকে। আজকে কোটার নাম দিয়ে কিছু সীমিত মানুষের কাছে কারাবন্ধ হয়ে আছে।
 কোটা আন্দোলনে জড়িতদের ওপর ছাত্রলীগের হামলারও নিন্দা জানান বিএনপি নেতা। বলেন, ছাত্র সমাজ আজকে একটি সন্ত্রাসী দলের নিপীড়নের নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। তাই এই দলটিকে আন্তর্জাতিকভাবে সন্ত্রাসী দল হিসেবে পরিচিত করা উচিত। তাদের নির্যাতন-নিপীড়ন আজকে বাংলাদেশের সমস্ত মানুষ নীরবে কাঁদছে। যেভাবে সরকারি লোকেরা দিবালোকে ছাত্রদের ওপর হামলা চালিয়ে যাচ্ছে তা অবিশ্বাস্য।
বিএনপির এ নেতা বলেন, যেই ছাত্র সমাজ এরশাদের মতো স্বৈরাচার পতনের আন্দোলনে অংশ নিয়েছিল, যেই ছাত্র সমাজ ১/১১’র সরকারকে বিদায় করেছিল, সে ছাত্র সমাজ আজকে একটি সন্ত্রাসী দলের নির্যাতনের নিপীড়নের শিকার হচ্ছে।
শিক্ষার্থীরা সরকারি চাকরিতে কোটা পদ্ধতির সংস্কার চেয়েছিল, তা বাতিল চায়নি উল্লেখ করে আমির খসরু বলেন, বাংলাদেশের আগামী প্রজন্মের ভবিষ্যৎ যেন উন্মুক্ত থাকে বা মেধার ভিত্তিতে যেন চাকরির সুযোগ পায়, সেই দাবিতেই কোটা আন্দোলন পরিচালিত হচ্ছে। যখন সম্পূর্ণটাই বাতিলের ঘোষণা দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী তখনই বোঝা গিয়েছিল এখানে অন্য কোনো দুরভিসন্ধি রয়েছে। তারই প্রতিফলন ঘটছে এখন। আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন, আইন বিভাগ সর্বোপরি সরকার এ বিষয়ে নীরব রয়েছে। সাধারণ নির্দোষ শিক্ষার্থীদের ওপর অত্যাচার নিপীড়ন চালাচ্ছে সরকারি সন্ত্রাসী বাহিনী।
বিএনপির এই স্থায়ী কমিটির সদস্য আরও বলেন, সংসদ একটি পবিত্র জায়গা। সেখানকার কোনো সিদ্ধান্ত তাও আবার দেশের প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া, তা বাস্তবায়ন করা একটি জাতীয় গুরুদায়িত্ব। তাও পালন করছে না এই অবৈধ সরকার। এ যাবতকালে দেশের সব বড় আন্দোলন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে হয়েছে। আর তাদের দাবি না মেনে অত্যাচার দেশের সাধারণ মানুষ সহ্য করবে না। এ ক্ষেত্রে আমরা বিচার বিভাগের পদক্ষেপ আশা করেছিলাম। কিন্তু রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় এই বিচার বিভাগ ব্যবহৃত হওয়ায় সেখান থেকেও কোনো আশাজনক সাড়া পাওয়া যাচ্ছে না। যে কারণে বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলার কোনো সুরাহা হচ্ছে না।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ