ঢাকা, বুধবার 4 July 2018, ২০ আষাঢ় ১৪২৫, ১৯ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

অবৈধ আওয়ামী সরকারের বিরুদ্ধে যথাসময়েই জনবিস্ফোরণ ঘটবে -নজরুল ইসলাম খান

গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে ড্যাবের উদ্যোগে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা ও নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে চিকিৎসক সমাবেশের আয়োজন করা হয় -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার : ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগকে অবৈধ আখ্যা দিয়ে সরকারের বিরুদ্ধে নির্দিষ্ট সময়েই ‘জনবিস্ফোরণ’ ঘটবে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান। গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ড্যাব) এর উদ্যোগে কারাবন্দী খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা ও মুক্তির দাবিতে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় তিনি একথা বলেন।
অধ্যাপক সিরাজ উদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে এবং ড্যাবের যুগ্ম মহাসচিব রফিকুল ইসলাম বাচ্চুর পরিচালনায় আলোচনা সভায় সংগঠনের মহাসচিব অধ্যাপক এজেডএম জাহিদ হোসেন, উপদেষ্টা অধ্যাপক আবদুল মান্নান মিয়া, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মোস্তাক রহিম স্বপন, অধ্যাপক মো. সাহাবুদ্দিন, অধ্যাপক আমিনুল হক, ছড়াকার আবু সালেহ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।
নজরুল ইসলাম খান বলেন, এই যে বিভিন্ন নির্বাচনে তারা (সরকার) অন্যায়ভাবে জয় ছিনিয়ে নিচ্ছে সেটা কিন্তু তাদের দলের লোকদের নিয়ে না, সেটা করছে  প্রশাসন ও পুলিশকে দিয়ে। দেশের সব মানুষ এটা প্রত্যক্ষ করছে, চোখের সামনে দেখছে তারা। তাদের এই দেখার মাধ্যমে, আমাদের মিডিয়া যে সব প্রচার করছে সেগুলোর মাধ্যমে, ফেইস বুক ও সোশ্যাল মিডিয়ায় যা আসছে তার মাধ্যমে জনগণের মধ্যে ক্ষোভ বিক্ষোভ- এটা তৈরি হচ্ছে, সৃষ্টি হচ্ছে। একটা নির্দিষ্ট সময়ে একটা বিস্ফোরণ হবে ইনশাল্লাহ।
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রসঙ্গ টেনে নজরুল ইসলাম খান বলেন, আপনারা বলেছেন যে,  জাতীয় ঐক্য গড়ে তোলা দরকার এই সরকারের বিরুদ্ধে। আমরা সেই চেষ্টা করছি। আপনারা বুঝতে পারবেন, জানতে পারবেন যেটা প্রয়োজন সেটাই করার চেষ্টা হচ্ছে। আপনারাই বলেছেন যে, ফাইনাল খেলা কিন্তু নভেম্বর ডিসেম্বরের দিকে হবে। ওই খেলায় জিততে হবে। এখন আমাকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে যে, আমি এই খেলাটা কবে শুরু করবো  যাতে করে নভেম্বর-ডিসেম্বর পর্যন্ত ওই খেলায় টিকে থাকতে হবে। সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য যে প্রস্তুতি সেই প্রস্তুতি ড্যাব যেমন নিচ্ছেন, অন্যান্য পেশাজীবী সংগঠনকে নিতে হবে, আমার দলের সব জেলায় নিতে হবে, অঙ্গসংগঠনের নিতে হবে। সেটা নিয়েই তো এই খেলায় নামতে হবে।
নজরুল ইসলাম খান বলেন, আমরা যখনই কোনো আন্দোলন করি আমাদের প্রতিপক্ষে কিংবা বিপক্ষে আওয়ামী লীগ দাঁড়ায় না। আমাদের সামনে এসে দাঁড়ায় পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবি। আওয়ামী লীগ না। অর্থাৎ এই সরকার জনগণের সরকার নাই, এই সরকার প্রশাসন ও পুলিশের সরকার হয়ে গেছে। তিনি বলেন, আমরা রাজনীতি করি, রাজনৈতিকভাবে বিষয়টাকে দেখছি। আপনাদের আবেগকে যেমন আমরা শ্রদ্ধা করি তেমনি আপনাদেরকেও আমরা গুরুত্ব দেই। আবেগের চেয়ে জরুরী হলো আকাংখা পুরণ। সেটা হলো এই সরকারের পতন ঘটিয়ে জনগনের সরকার কায়েম করা। যেটা করার জন্য যখন যেটা করা উচিৎ বলে মনে করবো আমরা আমি বিশ্বাস করি যে, আমাদের প্রতি আস্থা রেখে আপনারা সহযোগিতা করবেন।এবার প্রতিরোধ করার দিন, এবার বিজয় হওয়ার দিন আমাদের। আপনাদের সবাইকে প্রস্তুতি নেওয়ার আহবান জানাচ্ছি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ