ঢাকা, বুধবার 4 July 2018, ২০ আষাঢ় ১৪২৫, ১৯ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

সিরীয় হামলায় ডেরা থেকে পালিয়েছেন ২ লাখ ৭০ হাজার মানুষ

ডেরা ছেড়ে পালাচ্ছে স্থানীয় বাসিন্দারা

৩ জুলাই, মিডল ইস্ট মনিটর/আল-জাজিরা : সিরিয়ার দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় শহর ডেরায় সরকারি বাহিনীর বড় ধরনের হামলার মুখে অন্তত ২ লাখ ৭০ হাজার মানুষ ঘর-বাড়ি ছেড়ে জর্ডান সীমান্তের দিকে পালিয়েছেন। সোমবার জাতিসংঘের পক্ষ থেকে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

গত সোমবার জর্ডানের জাতিসংঘ মুখপাত্র হিতাম মালকাউয়ি জানান, পালিয়ে যাওয়া এসব মানুষের মধ্যে ১ লাখ ৩৫ হাজার শিশু। এসব মানুষ জাতিসংঘের ত্রাণ বিতরণের অপেক্ষায় রয়েছে। মুখপাত্র আরও জানান, ডারা থেকে পালিয়ে যাওয়া মানুষের সংখ্যা ধারণার চাইতে বেশি।

গত ১৯ জুন আসাদ বাহিনী ডেরার নিয়ন্ত্রণ নিতে লড়াই জোরালো করে। এতে করে জর্ডানের অভিমুখে নতুন করে শরণার্থী ঢল শুরু হয়। আসাদ বাহিনী ডেরার নিয়ন্ত্রণ নিতে সমর্থ হলেও কুনিয়েত্রা প্রদেশ এবং সেইদা প্রদেশের আংশ বিশেষে এখনও বিদ্রোহীদের সঙ্গে লড়াই চলছে।

রাশিয়ার বিমান বাহিনীর সমর্থনে চালানো এই অভিযানের কারণে হাজার হাজার সিরীয় নাগরিক জর্ডান সীমান্তে জড়ো হয়েছে। তবে জর্ডান তাদের প্রবেশে বাধা দিচ্ছে। আগে থেকে কয়েক লাখ শরণার্থীকে আশ্রয় দেওয়া দেশটি দাবি করছে আরও বেশি শরণার্থী সামলানোর মতো সম্পদ নেই তাদের।

গত রবিবার ডেরা প্রদেশের কৌশলগত গুরুত্বপূর্ণ বসরা আল-সাম শহরের বিদ্রোহীরা প্রেসিডেন্ট বাসার আল আসাদের অনুগত বাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে। আল জাজিরা জানিয়েছে, বিদ্রোহীদের ভারী অস্তশস্ত্র সরকারের কাছে সমর্পণ করতে চুক্তিতে পৌঁছানোর আলোচনায় মধ্যস্ততা করেছে জর্ডান।

গত বৃহস্পতিবার সাফাদি বলেছেন, ইতিমধ্যে জর্ডানে ১৩ লাখ সিরীয় রয়েছে। আমাদের দেশ সামর্থের সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছেছে। জর্ডান এদের দায়িত্ব নিয়েছে, আর আমি অবশ্যই বলবো আমরা প্রায় একাই এই দায়িত্ব পালন করছি।

শরণার্থীদের পাশে দাঁড়ালো জর্ডানবাসী : সিরিয়ার দারা প্রদেশ থেকে পালিয়ে আসা মানুষদের জন্য সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন জর্ডানিরা। গত দুই দিনে হাজার হাজার জর্ডানি সিরিয়া সংলঘ্ন সীমান্তে সাহায্য নিয়ে হাজির হয়েছেন। ইতিমধ্যেই তারা দেশব্যাপী 'ডোনেশন ক্যাম্পেইন' চালু করেছেন। তাদের সাহায্য সংগ্রহের এ প্রচেষ্টা দেশব্যাপী বিস্তৃতি লাভ করেছে।

এ পর্যন্ত দারা থেকে প্রাণভয়ে পালিয়ে গেছে প্রায় ২লাখ ৭০হাজার মানুষ। গৃহযুদ্ধ পীড়িত সিরিয়া থেকে লাখ লাখ মানুষ নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজে পার্শবর্তী জর্ডান, লেবানন, তুরস্ক ও ইরাকে পালিয়ে গেছে।

নতুন করে প্রদেশটিতে সরকারি বাহিনী বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে আক্রমণ শুরু করায় পলায়নের হার বেড়েছে।

ডোনেশন ক্যাম্পেইনের আয়োজকদের একজন হুসেইন সামাদি আল জাজিরাকে বলেন, সীমান্তে আশ্রয় নেয়া সিরীয় ভাই-বোনদের সাহায্যে করা আমাদের জাতীয় কর্তব্য। এ জন্যই আমরা ডোনেশন ক্যাম্পেইন চালু করেছি।

জর্ডান সরকার ইতিমধ্যেই জানিয়েছে তাঁরা নতুন করে আর কোন শরনার্থী গ্রহন করতে পারবে না। এমন সিদ্ধান্তে দেশটির সাধারণ নাগরিকরা অসন্তোষ প্রকাশ করেছে। যার প্রতিক্রিয়া এ ডোনেশন কার্যক্রম।

জর্ডানে নিযুক্ত জাতিসংঘের মুখপাত্র হিতাম মালকাওয়াই জানান, যুদ্ধ পরিস্থিতি থেকে বাঁচতে এ পর্যন্ত শুধু ১ লাখ ৩৫ হাজার নারীই শহরটি ছেড়ে চলে গেছে। এ সংখ্যা প্রত্যাশার চেয়ে অনেক বেশি বলে তিনি মন্তব্য করেছেন।

উল্লেখ্য, সিরিয়ার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ এ প্রদেশটিতে প্রায় ৯ লাখ ৯৮ হাজার মানুষ বসবাস করে যা দেশটির ২০১০ সালের আদমশুমারিতে দেখানো হয়েছে। জর্ডান ও ইসরাইলের সীমান্তুবর্তী হওয়ায় এ প্রদেশটি ইসরাইল, সিরিয়ার সরকারী বাহিনী ও বিদ্রোহীদের ত্রিপক্ষীয় হামলায় জর্জরিত।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ